অতিরিক্ত ভায়াগ্রা সেবনই কি পিয়াস করিমের মৃত্যু ?

    0
    214

    আমারসিলেট24ডটকম,১৫অক্টোবরঃ বিভিন্ন  টিভি মিডিয়ার টক শোতে অংশ গ্রহন কারী  পিয়াস করিমের লাশ শহীদ মিনারে না নেয়ার পক্ষে অনলাইন অ্যাক্টিভিস্টদের যুদ্ধ চলছে । এমন অবস্থায় পিয়াস করিমের মৃত্যু নিয়ে পাওয়া গেল চমকপ্রদ এক সংবাদ !   হৃদরোগে মৃত্যু নয় , পিয়াস করিম মারা গেছেন অতিরিক্ত ভায়াগ্রা সেবনে !!

     পিয়াস করিমের ব্যক্তিগত চিকিৎসক জানান , “স্যারের ইরেকটাইল ডিসফাংশান (পুরুষাঙ্গের উত্থান না হওয়া) ছিল। সেজন্য তাকে রেগুলার ভায়াগ্রা খেতে হত।”

    অতিরিক্ত ভায়াগ্রা সেবনে মৃত্যু হয়েছে কিনা জানতে চাইলে পিয়াস করিমের স্ত্রী  আমেনা মহসিন বলেন, “তিনি ডাক্তারের প্রেসক্রিপশন অনুযায়ীই খেতেন। তবে এসব ওষুধের সাইড ইফেক্ট থেকে মৃত্যু হয়ে থাকতে পারে। তিনি ফাইজার -এর রেভাটিও ২০এমজি ভায়াগ্রা খেতেন।”

     ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ও বিতর্কিত টিভি আলোচক অধ্যাপক পিয়াস করিম গত ১৩ অক্টোবর, সোমবার হৃদরোগে যান। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৫৬ বছর। 

    পিয়াস করিমের স্ত্রী আমেনা মহসিন জানান  তিনি ফাইজার -এর বিরুদ্ধে মামলা করবেন। তিনি বলেন, “আমার স্বামীর হৃদরোগ ছিলনা। তিনি ইরেকটাইল ডিসফাংশানের জন্য ভায়াগ্রা খেতেন। আর ভায়াগ্রা মূলত হৃদরোগেরই ওষুধ। তাই এই ওষুধের সাইড ইফেক্ট থেকেই তিনি হার্ট এ্যাটাক করে থাকতে পারেন। ময়না তদন্ত করলেই সেটা বের হয়ে আসবে। সেজন্য আগে ফাইজারের বিরুদ্ধে মামলা করব আমি।”

    উল্লেখ্য, ফাইজার -এর বিরুদ্ধে ভায়াগ্রা তৈরিতে প্যাটেন্ট আইন লংঘনের অভিযোগ রয়েছে কানাডায়। এছাড়াও ভায়াগ্রার কার্যকারিতা সম্পর্কে নানা অভিযোগ রয়েছে এবং এর কারণে হার্ট এ্যাটাকের ঘটনারও অসংখ্য নজির রয়েছে বলে অভিমত দেন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকগণ। তাই এধরনের ঔষধ পরীক্ষা-নিরীক্ষা না করেই বাজারজাত করাটা জনস্বাস্থ্যের জন্য হুমকিস্বরূপ।
    সুত্রঃসাপ্তাহিক বাংলাদেশ মেইল।