অবরোধের তাণ্ডবঃনিহত৭ আহত ২শতাধিক

    0
    336

    আমার সিলেট24ডটকম,২৬নভেম্বরঃ বিএনপির ১৮দলীয় জোটের ডাকা টানা ৪৮ ঘন্টা অবরোধের প্রথম দিন সন্ধ্যা পর্যন্ত দেশের বিভিন্ন স্থানে ভয়াবহ তাণ্ডব চালিয়েছে জামায়াত শিবির কর্মীরা। দেশের বিভিন্ন এলাকায় পুলিশের সাথে বিক্ষোভকারীদের সংঘর্ষে বিজিবি সদস্যসহএ পর্যন্ত ৭ জন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। সোমবার সন্ধ্যায় প্রধান নির্বাচন  কমিশনার জাতির উদ্দেশে দেয়া ভাষণে ১০ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর পরই দেশের বিভিন্ন স্থানে নির্বাচন অফিসে আগুন, গাড়িতে আগুন ও ভাঙচুর এবং সারাদেশের বিভিন্ন জেলায় পুলিশ-সাংবাদিকসহ দুই শতাধিক আহতের ঘটনা ঘটেছে। এর মধ্যে বিরোধী জোটের নেতাকর্মীদের সাথে সংঘর্ষে কুমিল্লায় রিপন (৩৮) নামে এক বিজিবি সদস্য নিহত হয়েছে। মারাত্মকভাবে আহত হয়েছে মাহমুদুল নামে এক পুলিশ সদস্যও। কুমিল্লার চরথায় এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। আজ মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে ৫টার দিকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়।

    জানা যায়, গতকাল সোমবার রাতে পুলিশের সাথে বিএনপির কর্মীদের সংঘর্ষে দেলোয়ার হোসাইন নামে এক ছাত্রদল কর্মী নিহত হয়। আজ দুপুরে নিহতের লাশ নগরীর চরথায় তার বাড়িতে নিয়ে আসা হয়। এ সময় পুলিশ দাফনের জন্য তার স্বজনদের তাগিদ দেয়। দাফনের সময় নির্ধারণ নিয়ে পুলিশ ও স্থানীয়দের মধ্যে বাগবিন্ডার একপর্যায়ে সংঘর্ষ বাধে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ বেশ কয়েক রাউন্ড রাবার বুলেট ও টিয়ার সেল নিক্ষেপ করে। এতে বিক্ষুব্ধ হয়ে স্থানীয় এলাকাবাসীসহ বিএনপি কর্মীরা জোটবদ্ধ হয়ে পুলিশকে ধাওয়া দিলে পুলিশ পিছু হটে। এ সময় তারা পুলিশের একটি পিকআপ ভ্যানে আগুন ধরিয়ে দেয়।
    খবর পেয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ওই এলাকায় বিজিবি মোতায়েন করা হয়। পরে বিরোধীদলীয় জোটের নেতাকর্মীরা দলবদ্ধভাবে পুলিশ-বিজিবি সদস্যদের সাথে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। এসময় রিপন গুরুতর আহত হয়। তাকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয়। একই ঘটনায় আহত হয়েছে মাহমুদুল নামে এক পুলিশ সদস্য। তার অবস্থাও আশঙ্কাজনক। অন্যদিকে বগুড়ায় পুলিশের সাথে যুবদল নেতাকর্মীদের সংঘর্ষে এক যুবদল নেতা নিহত ও গুলিবিদ্ধসহ আরো অন্তত ২০ জন আহত হয়েছে। আজ মঙ্গলবার বিকালে শহরের বনানী মোড়ে সমাবেশ করা নিয়ে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। নিহত যুবদল কর্মী ইউছুফ (২৬) বগুড়া শহরের ২১ ওয়ার্ড যুবদলের সাংগঠনিক সম্পাদক এবং শহরের ঢাকন্তা এলাকার মুকুল হোসেনের ছেলে।
    অপরদিকে সাতক্ষীরা জেলার কলারোয়া উপজেলার দেয়াড়া ইউনিয়ন ওলামা লীগের সাধারণ সম্পাদক রবিউল ইসলামকে দুর্বৃত্তরা কুপিয়ে হত্যা করেছে। দুর্বৃত্তরা রবিউল ইসলামের ওপর অতর্কিত হামলা চালায়। তারা লোহার রড ও লাঠি দিয়ে আঘাত করলে ঘটনাস্থলেই মারা যান রবিউল। অবরোধের প্রথম দিনে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে লাকসামেও। সেখানে পুলিশ, আওয়ামী লীগ ও বিরোধী জোটের নেতাকর্মীদের মধ্যে সশস্ত্র সংঘর্ষ হয়। এসময় পুলিশের গুলিতে বাবুল মিয়া (৪৫) নামে শ্রমিক দলের এক কর্মী নিহত হয়। এ ঘটনায় ২০ জন গুলিবিদ্ধসহ অর্ধশতাধিক আহত হয়। নিহত বাবুল মিয়া কান্দিরপাড় ইউনিয়ন ৪নং ওয়ার্ড শ্রমিক দলের কর্মী বলে বিএনপি সুত্র থেকে জানা যায়।
    বরিশালে পিকেটারের ছোঁড়া ইটের আঘাতে আহত হয়ে মারা যায় কাঁচামাল ব্যবসায়ী রফিকুল ইসলাম (২৬) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়। এর আগে আজ ভোরে গৌরনদীর সীমান্তবর্তী ভুরঘাটা মজিদবাড়ি বাসস্ট্যান্ডে বাসে পিকেটারদের ছোঁড়া ইটের আঘাতে রফিকুল গুরুতর আহত হয়। পরে তাকে বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সিরাজগঞ্জেও আজ সকাল সোয়া ৮টায় বিরোধী জোটের নেতাকর্মীদের সাথে পুলিশের সাথে সংঘর্ষ হয়। তাতে ছাকমান হোসেন (৩৫) নামে এক পথচারী নিহত হয়। এতে আহত হয় অন্তত ১০ জন। তাছাড়া সাতক্ষীরার কলারোয়ায় দুর্বৃত্তদের হামলায় মাহবুবুর রহমান বাবু নামে এক যুবলীগ নেতা নিহত হয়েছে। আজ সকালে মাহবুব কলারোয়া বাজার থেকে বাড়ি ফেরার পথে আলাইপুর এলাকায় পৌঁছলে দুর্বৃত্তরা তাকে ধরে বেদম প্রহার করে। পরে তাকে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে নেয়ার পথে মারা যায়। নিহত বাবু সেলিমপুর গ্রামের গোলাম মোড়লের ছেলে। সে দেয়াড়া ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক বলে কেন্দ্রীয় যুবলীগ সুত্রে জানা যায়।