আগামী ৫ বছরের মধ্যে উচ্চ প্রবৃদ্ধিতে পৌঁছাবে বাংলাদেশ

    0
    233

    আমারসিলেট24ডটকম,২২অক্টোবরঃ রাজনৈতিক ও সামাজিক স্থিতিশীলতা বজায় থাকলে বিপুল বিনিয়োগ আকর্ষণের মাধ্যমে আগামী বাংলাদেশ ৫ বছরের মধ্যে উচ্চ প্রবৃদ্ধিতে পৌঁছাবে। বিশ্বব্যাংকের প্রধান অর্থনীতিবিদ জাহিদ হোসেন বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতি বিষয় নিয়মিত প্রতিবেদন ‘বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট আপডেট’ প্রকাশ উপলক্ষে বিশ্বব্যাংক ঢাকা অফিসে আয়োজিত অনুষ্ঠানে মঙ্গলবারে এ কথা বলেন।

    বিশ্বব্যাংকের আবাসিক পরিচালক জনাথন জুট অনুষ্ঠানে সূচনা বক্তব্য রাখেন ব্যাংকের অন্যতম প্রধান অর্থনীতিবিদ সালমান জাইদী। এ সময় ডব্লিউবি’র কমিউনিকেশন অফিসার মেহরিন এ মাহবুব উপস্থিত ছিলেন।
    প্রতিবেদনে বলা হয়, জনসংখ্যার ৪০ শতাংশ নিম্নআয়ের লোকের আয় বৃদ্ধি করে মধ্যম আয়ের গ্রুপে নিয়ে আসতে সরকার গত ৫ বছরে উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন এনেছে। প্রতিবেদন তৈরিতে জাহিদ হোসেনের সহলেখক ছিলেন বিশ্বব্যাংকের রিসার্চ এনালিস্ট নাদিম রিজওয়ান। রিজওয়ান বলেন, গার্মেন্টস খাতের বিষয় শর্তসমূহ পূরণে সরকারকে অবশ্যই কার্যকর ব্যবস্থা নিতে হবে।
    জাহিদ হোসেন গত জাতীয় নির্বাচনের প্রতি ইঙ্গিত করে বলেন, চলতি বছরের জানুয়ারির পর থেকে অর্থনীতি ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে শুরু করেছে। রাজনৈতিক ও সামষ্টিক অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা এ ক্ষেত্রে সহায়ক হয়েছে।

    তিনি বলেন, বাংলাদেশ প্রমাণ করেছে, অন্যান্য দেশ যখন প্রবৃদ্ধির নিম্নহার নিয়ে লড়াই করছে তখন বাংলাদেশ ৬ শতাংশের বেশি প্রবৃদ্ধি অর্জন করতে পারে। তিনি পাওয়ার পয়েন্টের মাধ্যমে গত ৫ বছরে বাংলাদেশের অগ্রগতি ও উন্নয়নের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন এবং তিনি আশা করেন, এ পরিবর্তন ও অগ্রগতি বাংলাদেশকে উচ্চ প্রবৃদ্ধিতেই পৌঁছে দেবে।
    বিশ্বব্যাংক ইতোমধ্যেই জানিয়েছে, চলতি ২০১৪-১৫ অর্থবছরে বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৬.২ শতাংশ হতে পারে উল্লেখ করে এ অর্থনীতিবিদ বলেন, সাম্প্রতিক মাসগুলোতে বিশ্ব অর্থনীতিতে মন্দা অবস্থা বিবেচনায় বাংলাদেশের এ প্রবৃদ্ধি ‘সন্তোষজনক’। তবে হাসান তার উপস্থাপনায় অর্থনীতির অন্তর্নিহিত শক্তি সম্পর্কে বলেন, দারিদ্র্য দূরীকরণ, কর্মসংস্থান সৃষ্টি, আয় বৃদ্ধি, উৎপাদন বৃদ্ধি বিশেষ করে কৃষি খাতে উৎপাদন বৃদ্ধিকে এ অর্থনীতির ভিত্তি হিসেবে কাজ করছে।
    হোসেন বলেন, জাতিসংঘ উন্নয়ন কর্মসূচির (ইউএনডিপি) মানব উন্নয়ন সূচক লেটেস্ট হিউম্যান ডেভেলপমেন্ট ইনডেস্ক (এইডডিআই) থেকে মিডিয়াম হিউম্যান ডেভেলপমেন্ট (এমএইচডি) ধাপে উন্নয়নে গত ৫ বছরে অভ্যন্তরীণ কর্মসংস্থান, কৃষি মজুরি এবং মাথাপিছু আয় উল্লেখযোগ্য পরিমাণ বৃদ্ধি পেয়েছে।
    জাহিদ হোসেন বলেন, উচ্চ প্রবৃদ্ধি ও ব্যাপক বিনিয়োগ একই সূত্রে বাঁধা। কিছু বড় প্রকল্প বাস্তবায়নের মাধ্যমে সফলভাবে ব্যাপক বিনিয়োগ আকর্ষণের পরেই এটি সম্ভব হবে। সরকার গত জাতীয় বাজেটে চলতি অর্থবছর শেষে জিডিপি লক্ষ্যমাত্রা ৭.২ শতাংশ নির্ধারণ করেছে এবং বিনিয়োগ বৃদ্ধি আশা করছে ২৮ শতাংশ।

    তিনি বলেন, ৬ শতাংশ প্রবৃদ্ধি বৃত্তে পৌঁছতে দেশে ৩৩ থেকে ৩৫ শতাংশ বিনিয়োগ প্রবৃদ্ধি প্রয়োজন। ব্যাপক বিনিয়োগ আকর্ষণে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে সরকারকে অন্তত ৪টি খাতে উন্নয়ন ঘটাতে হবে। এ ৪টি ক্ষেত্র হলো তৈরি পোশাক খাত, সড়ক অবকাঠামো, সরকারি-বেসরকারি অংশীদারিত্ব (পিপিপি) এবং বিশেষ অর্থনৈতিক এলাকার (এসইজেড) উন্নয়ন।