আজ থেকে অবৈধদের ধরতে সৌদি আরবে অভিযান

    0
    249

    আমার সিলেট  24 ডটকম,০৪নভেম্বরঃ অবৈধ বিদেশি শ্রমিকদের বৈধ কাগজপত্র সংগ্রহের জন্য সৌদি আরবের সরকারের বেঁধে দেওয়া সাধারণ ক্ষমার সময়সীমা গতকাল রবিবার শেষ হয়েছে। সময়সীমা শেষ হওয়ায় অবৈধ প্রবাসীদের ধরতে সৌদি আরবে বিশেষ অভিযান চালাবে দেশটির আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা। আজ থেকে প্রায় এক হাজার ২০০ সদস্যের একাধিক টিম এ অভিযানে অংশ নেবে।
    উল্লেখ্য, দ্বিতীয় মেয়াদে বিশেষ ক্ষমার মেয়াদ গতকাল রবিবার পর্যন্ত বর্ধিত করা হয়েছিল। কোনো ধরনের শাস্তি ও জরিমানা ছাড়া অবৈধভাবে বসবাসকারী বিদেশি শ্রমিকদের বৈধ হওয়ার জন্য সৌদি বাদশাহের আদেশে এই বিশেষ সুযোগ দিয়েছিল সৌদি শ্রম মন্ত্রণালয়।
    সৌদি আরব সরকারের দেওয়া এক তথ্যে জানা যায়, সাধারণ ক্ষমার আওতায় এ পর্যন্ত ৪০ লাখ বিদেশি শ্রমিক তাঁদের কাগজপত্র সংশোধন করেছেন। এ ছাড়া ১০ লাখ শ্রমিক ইতিমধ্যেই সৌদি আরব ত্যাগ করেছেন বলেন জানা যায়।
    সৌদি আরবের শ্রম মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবর থেকে জানা যায়, অভিবাসী আইন অমান্যকারীদের তাৎক্ষণিক এক লাখ রিয়াল জরিমানা, দুই বছরের জেল অথবা উভয় দণ্ড দেওয়ার ক্ষমতা দিয়ে পুলিশ ও নিরাপত্তা সংস্থা থেকে কর্মীদের নিয়ে একটি টাস্কফোর্স গঠন করা হয়েছজা মার্কেট, মহাসড়কসহ জনসাধারণের চলাচল আছে এমন সম্ভাব্য সব স্থানেই এই অভিযান চালাবে। ফার্মেসি, সেলুন, হোটেল, রেস্টুরেন্ট, নিরাপত্তাকর্মী ও গাড়িচালকরাও অভিযানের আওতায় থাকবে। ইন্সপেকশন বিভাগের আন্ডার সেক্রেটারি আবদুল্লাহ তুহিন সাংবাদিকদের বলেন, বিশেষ টিম বিভিন্ন জায়গায় অভিযান চালিয়ে শ্রমিকদের ইকামা ও কর্মস্থলের বৈধতা আছে কি না, তা যাচাই করবে।
    সৌদি আরবে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত শহিদুল ইসলাম জানান, সাধারণ ক্ষমা চলাকালীন সৌদি আরবে বাংলাদেশ দূতাবাস এবং জেদ্দায় বাংলাদেশ কনস্যুলেট থেকে প্রায় সাত লাখ বাংলাদেশিকে কনস্যুলেট সেবা দেওয়া হয়েছে। তিনি বলেন, ‘সৌদিতে বাংলাদেশি কর্মীরা আইনকানুন মেনে চলার ব্যাপারে সতর্ক। তাই অবৈধ বাংলাদেশিরা বৈধ হওয়ার সুযোগ কাজে লাগিয়েছে। অবৈধ হিসেবে বসবাসকারী বাংলাদেশিদের প্রায় ৯৫ ভাগ কর্মীই এখন বৈধ হওয়ার দ্বারপ্রান্তে।দূতাবাস সূত্র জানায়, সাধারণ ক্ষমার সুযোগে প্রায় সাত লাখ বাংলাদেশি কর্মী বৈধ হলেও ১০ হাজারের বেশি এখনো অবৈধ রয়ে গেছেন। সুত্র মতে,শেষ সময়েও পাসপোর্ট বিভাগসহ সংশ্লিষ্ট দপ্তরে বৈধতা নেওয়ার জন্য তাঁরা ভিড় করছিলেন। সৌদি শ্রম মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বৈধতার জন্য অপেক্ষায় থাকা শ্রমিকদের গ্রেপ্তার করা হবে না বলা হলেও তাঁরা আশ্বস্ত হতে পারছেন না।