আতঙ্ক জনপদের নাম শার্শার সাতমাইলঃনির্যাতিত আসমত পঙ্গু হতে চলেছে

    0
    211

    asmotaliআমারসিলেট24ডটকম,নভেম্বর,এম ওসমানআতঙ্কের জনপদের নাম শার্শার বাগআঁচড়ার সাতমাইল। এখানে কুখ্যাত সন্ত্রাসী মিঠু ধাবকের রাম রাজত্বে কারো প্রতিবাদ করার সাহস পর্যন্ত নেই। ১১টি মামলার আসামী হলেও আইন প্রয়োগকারী সংস্থ্যা তাকে আটক করতে পারেনি গডফাদারদের ভয়ে। যদি চাকরি যায়। প্রতিবাদি জনতা অস্ত্র সহ আটক করে দিলেও পুলিশের বিরুদ্ধে মিথ্যা অপবাদ দিতেও দিধাবোধ করেনি এ গডফাদাররা। ব্যবহার করছে মিঠুর স্ত্রী চায়নাকে। কুখ্যাত সন্ত্রাসী মিঠু ধাবকের আটকের খবরে নির্যাতিতরা নফল নামাজ আদায় করেছে বলে জানা গেছে।

    এদিকে মিঠু ধাবকের হাতে নির্যাতনের শিকার একই এলাকার আসমত আলী চিরতরে পঙ্গুত্ব বরন করতে চলেছে। কিছু দিনের মধ্যে আসমত আলীর কেটে ফেলার পরামর্শ দিয়েছে ডাক্তাররা। তার অত্যাচারের শিকার হয়ে এলাকায় ফিরতে পারছে না প্রায় এক ডজন পরিবারের কর্তা ব্যক্তিরা।

    মিঠু ধাবকের হাতে নির্যাতনের শিকার হাবিবুর রহমান জানান, তার উপর কয়েকবার হামলা চালিয়েছে চাদার দাবিতে এবং চাঁদা না দিলে হত্যা করা হবে বলে হুমকি দিয়ে আসছে দীর্ঘদিন ধরে।

    মিঠু ধাবকের হাতে অপর নির্যাতনের শিকার সাতমাইলের হাসান জানান, সে প্রায়ই তার কাছে মদের জোর করে আদায় করতো। না দিলে মারধর করতো। গত ২৯ অক্টোবর রাতে মিঠুর মদের টাকা দিতে না পারায় পিস্তলের বাট দিয়ে তার শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত করে।

    নাম না প্রকাশ করার শর্তে মিঠুর নিজ গোত্রীয় কয়েকজন সদস্য জানান, সে সর্ব সময় পিস্তল কোমরে গুজে রাখতো। তার ল্টোর দাতারা এতই প্রভাবশালী যে মিঠুর টিকিটিও ছোয়ার ক্ষমতা ছিলনা আইন প্রয়োগকারী সংস্থার। নিজেই বোমা তৈরি করার কারিগর। প্রায় প্রতিদিন এলাকায় বোমার বিস্ফোরন ঘটিয়ে এলাকাবাসীকে আতঙ্কে রাখতো। মিঠু এলাকার চিহ্নিত বোমবাজ। তার বিরুদ্ধে কথা বললেই নির্যাতনের শিকার হতে হয়।