ইহুদি সমর্থনপুষ্ট বিদ্রূপাত্মক পত্রিকায় আবারও বিতর্কিত কার্টুন

    0
    198
    আমারসিলেট24ডটকম,১৪জানুয়ারী: মহানবী (দঃ)-কে নিয়ে অবমাননাকর কার্টুন প্রকাশের কারণে (?) হামলার শিকার হওয়া ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে শার্লি হেবদো ম্যাগাজিনের প্রচ্ছদে আবারো ঠাঁই পাচ্ছে সেই ছবিই। ইহুদি সমর্থনপুষ্ট  বিদ্রূপাত্মক পত্রিকাটির প্রকাশিতব্য সংখ্যার প্রচ্ছদে বিতর্কিত ওই কার্টুনই থাকছে বলে নিশ্চিত করেছে ফ্রেঞ্চ দৈনিক ‘লিবারেসিঁও’। অপরদিকে পত্রিকাটিতে হামলাকারী দুই ভাইয়ের একজনের সঙ্গে যোগাযোগ ছিল, এমন অভিযোগে বুলগেরিয়া থেকে ফ্রান্সের এক নাগরিককে আটক করা হয়েছে। বুলগেরিয়া সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, আটককৃত ব্যক্তির নাম ফ্রিৎজ জোলি জোয়াচিন (২৯)। তিনি হাইতির বংশোদ্ভূত ফরাসি নাগরিক। গত ৩০ ডিসেম্বর ফ্রান্স ছাড়ার আগে হামলাকারী দুই ভাইয়ের একজনের সঙ্গে তার একাধিকবার যোগাযোগ হয়েছিল। তবে এখনো তার সংশ্লিষ্টতা সম্পর্কে নিশ্চিত করে কিছু বলা যাচ্ছে না।সূত্র : বিবিসি, আল-জাজিরা

    বার্তা সংস্থাগুলো জানিয়েছে, হামলার শিকার হওয়ার পর আজ বুধবার থেকে আবার সাপ্তাহিক ম্যাগাজিনটির প্রকাশ শুরু হবে। ফ্রান্সের গণমাধ্যমগুলোতে ওই সংখ্যার প্রচ্ছদের ছবিটি প্রকাশ করা হয়েছে। এতে অবমাননা করে দেখানো হয়েছে, মহানবী কাঁদছেন( নাউজুবিল্লাহ) আর তার হাতে ধরা একটি প্রতীকী চিহ্ন। তাতে ফরাসি ভাষায় ‘জে সুই শার্লি’ (আমিই শার্লি) কথাটি লেখা। শার্লি হেবদোর যেসব সাংবাদিক ওই হামলায় প্রাণে বেঁচে গেছেন, তারা দৈনিক লিবারেসিঁও পত্রিকার অফিসে বসে তাদের কাজকর্ম করছেন। ম্যাগাজিনটি প্রতি সপ্তাহে গড়ে ৩৫ থেকে ৬০ হাজার কপি বিক্রি হয়। কিন্তু এই সংখ্যাটির জন্য এরই মধ্যে বিশ্বের বিভিন্ন স্থান থেকে অনুরোধ আসছে বলে জানানো হয়েছে শার্লি হেবদোর পক্ষ থেকে। পাঠক চাহিদার কথা বিবেচনা করে এবার ছাপা হচ্ছে ৩০ লাখ কপি। সবমিলিয়ে স্বাভাবিকের তুলনায় পত্রিকাটির চাহিদা ৫০ গুণ বাড়তে পারে বলে জানিয়েছে ডেইলি মেইল। আগামি কাল বৃহস্পতিবার আরেকটি সংস্করণ প্রকাশের ব্যবস্থাও রাখা হয়েছে। পত্রিকাটির আইনজীবী রিচার্ড মালকা জানান, ‘বিশেষ সংখ্যায় মহানবী (দঃ)-এর কার্টুন পুনঃপ্রকাশ করবেন তারা। এছাড়া রাজনীতি ও ধর্ম নিয়ে শার্লি হেবদোর ‘কৌতুক’ও বিশেষ সংখ্যায় ঠাঁই পাবে।’
    উল্লেখ্য, শার্লি হেবদো মূলত একটি স্যাটায়ারধর্মী (ব্যঙ্গাত্মক) ম্যাগাজিন। ২০১১ সালে এই পত্রিকায় হজরত মুহম্মদ (দঃ)-কে নিয়ে একটি অবমাননাকর কার্টুন ছাপা হয়। সে সময় ওই পত্রিকা অফিসে বোমা হামলা চালানো হয়েছিল। এরপর গত সপ্তাহের বুধবার প্যারিসে অবস্থিত শার্লি হেবদো পত্রিকার অফিসে বন্দুকধারীদের হামলায় ১২ জন নিহত হন। এর মধ্যে পত্রিকাটির সম্পাদক ও চার কার্টুনিস্ট রয়েছেন। ওই হামলার কিছু আগে শার্লি হেবদো পত্রিকার টুইটার পেজ থেকে করা সবশেষ টুইটটি ছিল জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেটের প্রধান আবু বকর আল-বাগদাদির একটি ব্যঙ্গচিত্র। ওই ঘটনার দুই দিন পর গত শুক্রবার প্যারিসের এক ইহুদি পণ্য বিক্রয়কারী সুপার মার্কেটে কট্টরপন্থ্থী বন্দুকধারীর হামলায় আরো পাঁচজন নিহত হন। রোববার দেশটিতে শার্লি হেবদো হত্যা কাণ্ডের  প্রতিবাদে কমপক্ষে ৩৭ লাখ মানুষ রাস্তায় নেমে সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করে। এর মধ্যে প্যারিসের রাস্তায়ই ছিল ১৫ লাখ মানুষ। সঙ্গে ছিলেন কমপক্ষে ৪৪টি দেশের রাষ্ট্র ও সরকার প্রধান।
    সম্প্রতি ফ্রান্স ও জার্মানির কয়েকটি পত্রিকাও শার্লি হেবদোতে হামলার প্রতিবাদে মহানবী (দঃ)-কে নিয়ে অাঁকা ব্যঙ্গাত্মক ছবিগুলো ছাপে। এর জেরে জার্মান এক পত্রিকা অফিসে অগি্নসংযোগের ঘটনাও ঘটে। এদিকে শার্লি হেবদোর ঘটনার পর নিরাপত্তা জোরদার করতে নজিরবিহীন পদক্ষেপ নিয়েছে দেশটির সরকার। ঝুঁকিপূর্ণ ও অরক্ষিত জায়গাগুলোতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ১০ হাজার সদস্য মোতায়েনের ঘোষণা দিয়েছে ফরাসি সরকার।
    তদন্তকারী কর্মকর্তার আত্মহত্যা
    প্যারিসের শার্লি হেবদো হামলার তদন্তে নিযুক্ত এক পুলিশ কর্মকর্তা আত্মহত্যা করেছেন। এ বিষয়ে ফ্রান্সের একটি সংবাদমাধ্যম জানায়, লিমোজেসে নিজ অফিসে গুলি করে আত্মহত্যা করেন কমিশনার হেলরিক। দেশটির দি ইউনিয়ন অব কমিশনারস অব ন্যাশনাল পুলিশ হেলরিকের আত্মহত্যার বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। ইউনিয়নের এক মুখপাত্র সংবাদমাধ্যমকে জানান, ‘সহকর্মীর মৃত্যুতে আমরা গভীরভাবে শোকাহত। তার পরিবারের সদস্যদের প্রতি আমরা গভীর সমবেদনা জানাই।’ ইউনিয়ন আরো জানায়, অতিরিক্ত কাজের চাপে হেলরিক অনেকদিন ধরেই বিষণ্নতায় ভুগছিলেন।
    এদিকে মঙ্গলবার শার্লি হেবদোর হামলা ও এরপরের দুটি চরমপন্থী হামলার ঘটনায় নিহত পুলিশ সদস্যদের দেশটির সর্বোচ্চ রাষ্ট্রীয় খেতাব ‘লিজিওন ডি অনার’-এ ভূষিত করেছে বলে জানিয়েছে বিবিসি। নিহতদের মধ্যে আহমেদ মাবরেত নামে এক মুসলিম পুলিশ অফিসারও রয়েছেন। এছাড়া ইহুদি সুপারমার্কেটে হামলায় নিহতদের লাশ মঙ্গলবার শেষকৃত্যের জন্য ইসরাইলে নেয়া হয়েছে।সুত্রঃ ইন্টারনেট।