একমাসের জন্য মিশরে জরুরি অবস্থা জারি

    0
    231

    ঢাকা, ১৫ আগস্ট : আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের অনলাইন সংস্করণে প্রকাশিত খবরে জানা যায়,আগামী একমাসের জন্য মিশরের জরুরি অবস্থা জারি করেছে অন্তর্র্বতী সরকার। আজ বুধবার স্থানীয় সময় বিকেল চারটায় এ জরুরি অবস্থা জারি করা হয়। বিভিন্ন অনলাইন সংস্করণে প্রকাশিত খবরে জানা যায়, বুধবার দেশটিতে মুরসির সমর্থকদের হঠাতে বিশেষ অভিযান চালানোর পর জরুরি অবস্থা জারির ঘোষণা দেয়া হয়। ক্যাম্প আন নাহদা এবং ক্যাম্প রাবায় চালানো এ বিশেষ অভিযানে অন্তত ৯৫ জন নিহত হয়েছে। তবে ব্রাদারহুডের পক্ষ থেকে শতাধিক নিহতের দাবি করা হয়েছে।
    এর আগে মিশরে ক্ষমতাচ্যুত প্রেসিডেন্ট মুরসির মুক্তি ও তাকে স্বপদে বহালের দাবিতে কায়রোতে অবস্থান নেয়া তার সমর্থকদের হটিয়ে দিতে রক্তক্ষয়ী অভিযান শুরু করে দেশটির বর্তমান সেনা সমর্থিত সরকারের নিরাপত্তা বাহিনী। দেশটির মুসলিম ব্রাদারহুডের পক্ষ থেকে দাবি করা হয় উচ্ছেদ অভিযানে দেশটির নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে ১২০ জন মুরসি সমর্থক নিহত হয়েছেন। তবে ওই অভিযানে ৯৫

    জন নিহত হয়েছেন বলে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমের প্রতিবেদনে জানা গেছে। পক্ষান্তরে এ অভিযানে দুই সেনা সদস্যও নিহত হয়েছে বলে দাবি করেছে সেনাবাহিনী। পুলিশ সেখানকার রাস্তা আটকে রেখেছে। ঘটনাস্থল থেকে পুলিশের গুলির শব্দ শোনা যাচ্ছে বলে বিভিন্ন প্রতিবেদনে জানা গেছে। এছাড়া পুলিশ সেখানে টিয়ারগ্যাস নিক্ষেপ করেছে। ঘটনাস্থলের  ওপর দিয়ে হেলিকপ্টার উড়তে দেখা গেছে।
    আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের অনলাইন সংস্করণে প্রকাশিত খবরে জানা যায়,স্থানীয় সময় বুধবার ভোর ছয়টার কিছু পরে কায়রোর পূর্বাঞ্চলীয় নাহদা স্কয়ারে অবস্থিত মুরসি সমর্থকদের অস্থায়ী ক্যাম্পে অভিযান শুরু করে নিরাপত্তা বাহিনী। একই সঙ্গে নাসর সিটিতে অবস্থিত রাবা আল আদাইয়া স্কয়ারে মুরসি সমর্থকদের ক্যাম্পেও অভিযান চালায় নিরাপত্তা বাহিনী। টেলিভিশন ও সামাজিক যোগাযোগ সাইটে প্রকাশিত লাইভ ফুটেজে নাহদা স্কয়ার ও রাবা আল আদাইয়া স্কয়ার থেকে ধোঁয়া উঠতে দেখা যায়।

    সেখানে অবস্থানরত সাংবাদিকরাও মুরসি সমর্থকদের জমায়েত লক্ষ্য করে গুলি ও টিয়ার গ্যাস ছোঁড়ার  খবর নিশ্চিত করেছেন। নাহদা স্কয়ারের ওপর দিয়ে সামরিক হেলিকপ্টারকে চক্কর দিতে দেখা গেছে। নাহদা স্কয়ারে অবস্থানরত মুরসিপন্থি গণতান্ত্রিক জোট এন্টি ক্যু এলায়েন্সের সদস্য লায়লা একটি আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমকে জানান, ইতিমধ্যেই অনেক লোককে হত্যা করা হয়েছে। এখানে যা ঘটছে তা মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ।

    অন্যদিকে অভিযানের সত্যতা নিশ্চিত করে সেনা নিয়ন্ত্রিত রাস্ট্রীয় টেলিভিশন জানিয়েছে, নিরাপত্তা বাহিনী প্রতিবাদকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে পরিকল্পনা অনুযায়ী কাজ শুরু করেছে। অপরদিকে দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে জারি করা একটি বিবৃতিতে রাবা আল-আদাবিয়া ও নাহদা স্কয়ারে অবস্থিত মুরসি সমর্থকদের বিক্ষোভ ক্যাম্প সরিয়ে দেয়ার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়ার কথা বলা হয়েছে।

    তবে ওই বিবৃতিতে অভিযুক্ত ছাড়া অন্য বিক্ষোভকারীদের  নিরাপদে সরিয়ে দেয়ার কথা বলা হয়েছে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় কোনো মিশরীয়র রক্ত ঝরাতে চান না বলেও ওই বিবৃতিতে বলা হয়েছে। নিরপেক্ষ সূত্র থেকে নিহতের সংখ্যা নিশ্চিত করা যায়নি। তবে কাতারভিত্তিক চ্যানেল আল জাজিরার ওয়েবসাইটে নিহতের সংখ্যা ৯৫  বলে জানানো হলেও ব্রাদারহুড দাবি করেছে এ পর্যন্ত ১২০ জনেরও অধিক লোক মারা গেছে।