এলাকা নয় পরিচয় আমরা বাংলাদেশী : লূৎফুর রহমান

    0
    241

    আমারসিলেট 24ডটকম , ১৮সেপ্টেম্বর ,আবু তাহির : অপ্রয়োজনীয় খাতে বাংলাদেশে টাকা না পাঠিয়ে এখানে ছেলেমেয়েদের শিক্ষাদানে পর্যাপ্ত খরচ করার পরামর্শ দিলেন ফ্রান্সে বসবাসরত বাংলাদেশীদেরকে। সিলেটের আঞ্চলিক ভাষায় লন্ডন বূরো অফ টাওয়ার হ্যামলেটস ইউকে’র এক্সিকিউটিভ মেয়র লুৎফুর রহমান তাঁর বক্তৃতায় আরো বলেন, আমরা বাংলাদেশের কে কোন এলাকা থেকে এসেছি এটা ব্যাপার নয়, আমরা বাংলাদেশী, আমরা বাংলাদেশী প্রবাসী। এটাই আমাদের পরিচয়। আমাদের একসাথে কাজ করে যেতে হবে। একজন বাংলাদেশী হিসেবে বিদেশের মাটিতে কোন উন্নয়ন সাধন করতে পারলে সেটা সমগ্র বাংলাদেশের গর্ব। লন্ডনে আমাদের বাংলাদেশীরা এখন এমপি , মেয়র, কাউন্সিলর ই শুধু নয় আমরা বৃটেনের অর্থনিতির এক বিরাট অংশ। ভবিষ্যতে ব্রিটেনে আমরা আরো বেশি বাংলাদেশী প্রতিনিধি পাব যারা বৃটেন কে পরিচালনা করবে আশা করি।

    লন্ডনে আমাদের এই বর্তমান অবস্হায় আসতে অনেক সংগ্রাম, ত্যাগ তিতিক্ষা করতে হয়েছে। এটা আমাদের মুরব্বীদের (পূর্ব পুরুষের) অবদান। এভাবে সমগ্র ইউরোপে আমাদের অর্জনকে ব্যাপ্তি করতে হবে। লন্ডনে বাংলাদেশী কমিউনিটির ছেলে মেয়েরা ভাল ফলাফলের মাধ্যমে সুনাম অর্জন করতেছে। আমি চাই ফ্রান্সেও বাংলাদেশী ছেলে মেয়েরা প্রতিটি ক্লাশে প্রতিযোগিতা করে সর্বোচ্চ ফলাফল করুক। এবং এভাবে তাঁরা সেরা ডাক্তার, সেরা ইঞ্জিনিয়ার অর্থাৎ সেরা সাফল্য বয়ে আনুক। তাই আমাদের ছেলে মেয়েদের শিক্ষার ব্যাপারে বিশেষ গুরুত্বারোপ করতে হবে। এ সময়ে লন্ডনের মত ফ্রান্সেও বাংলাদেশীদের সুদৃঢ় অবস্থা গড়ে তুলতে তিনি সকল ধরনের সহযোগীতা করার প্রতিশ্রুতিও ব্যক্ত করেন।তিনি তার বক্তব্যে বাংলাদেশীদেরকে ফ্রান্সেও বৃটেনের মত মুল ধারার রাজনিতিতে জড়িত হওয়ার আহবান জানান।তিনি আরো বলেন হাজী হাবীবের আমন্ত্রনে আমি যদি না আসতাম তাহলে আমার ধারনা থাকতনা যে বৃটেনের মত ইউরোপে বাংলাদেশী কমিউনিটি এতটা শক্তিশালী।তিনি তার বক্তব্যে গ্রেটার সিলেটের ভুয়সী প্রশংসা করে বলেন আন্চলিকতার বাহিরে এসে গ্রেটার সিলেট সমগ্র বাংলাদেশী কমিউনিটি নিয়ে যে কাজ করে যাচ্ছে তার জন্য হাজী হাবীব কে অসংখ্য ধন্যবাদ জানান।

    ২০০৬ সাল থেকে শুরু হওয়া গ্রেটার সিলেট ডেভেলপমেন্ট এ্যান্ড ওয়েলফেয়ার কাউন্সিল বাংলাদেশ (জি এস সি) কমিউনিটির উন্নয়নমুলক বিভিন্ন অবদানের চলমান প্রক্রিয়া হিসেবে ২য় বারের মত ফ্রান্সে বাংলাদেশী কৃতি শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

    ফ্রান্সস্হ বাংলাদেশ দুতাবাসের প্রথম সচিব ওয়ালিউর রহমান গ্রেটার সিলেটের এ উদ্যোগকে ফ্রান্সের বাংলাদেশী কমিউনিটির জন্য মডেল হিসাবে আখ্যা করেন।

    বাংলাদেশের জনপ্রিয় টেলিভিশন এনটিভি’র সিইও মিসেস সাবরিনা হোসাইন শিক্ষার্থীদের উৎসাহ ও অনুপ্রেরনা মুলক এই ধরনের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের প্রশংসা করে তাঁর বক্তব্যে বলেন বিভিন্ন আয়োজনের দ্বারা আমাদের কমিউনিটিকে এগিয়ে নিতে হবে। তিনি ফ্রান্সে শীঘ্রই এনটিভি’র একটি স্টুডিও করার ঘোষনা দেন।

    গ্রেটার সিলেট ডেভেলপমেন্ট এ্যান্ড ওয়েলফেয়ার কাউন্সিল বাংলাদেশ সভাপতি হাজী হাবীব তার সমাপনি বক্তব্যে উপস্হিত অতিথিবৃন্দ ও সুধিবৃন্দকে আন্তরিক শুভেচ্ছা প্রদান করে বলেন প্যারিসে আমরা বাংলাদেশীরা ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করে একটি শক্তিশালী প্রবাসি কমিউনিটি গঠন করা সময়ের গুরুত্বপুর্ন দাবী।প্যারিসে অতিবাহিত তার দীর্ঘ সময়ের স্মৃতীচারন করে বলেন গ্রেটার সিলেটের মত অন্যান্য সংগঠনগুলো যদি এরকম উদ্যোগ গ্রহন করে তাহলে আমাদের নতুন প্রজন্ম উৎসাহের সাথে সামনে এগিয়ে যেতে পারবে।

    গত শনিবার প্যারিসের মেরি দু সেন্ট থোয়ায় গ্রেটার সিলেট ডেভেলপমেন্ট এ্যান্ড ওয়েলফেয়ার কাউন্সিল বাংলাদেশ (জি এস সি) ফ্রান্স এর উদ্যোগে আয়োজিত কৃতি শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনার অনুষ্ঠানে গ্রেটার সিলেট ডেভেলপমেন্ট এ্যান্ড ওয়েলফেয়ার কাউন্সিল বাংলাদেশ (জিএস সি)’র সভাপতি হাজী হাবিব এর সভাপতিত্বে সংগঠনের সাধারন সম্পাদক নিজাম উদ্দীন ও মহিলা সম্পাদিকা সোমা দাস এর পরিচালনায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে আরো বক্তব্য রাখেন টাওয়ার হ্যামলেটস ইউকে’র সম্মানিত তিন কাউন্সিলর গোলাম রাব্বানী, আমিনুর রহমান ও মাইয়ুম মিয়া, ইউরোপ বিএনপি’র সাবেক সভাপতি এম এ মালিক, ফ্রান্স আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি আব্দুস শহীদ তাহের,বিএনপি নেতা সাহেদ আলী,বঙ্গবন্ধু রিচার্স এসোসিয়েশন এর সভাপতি আশরাফুল ইসলাম, ফ্রান্স আওয়ামীলীগের সিনিয়র উপদেষ্টা মিজান চৌধুরী মিন্টু, জি এস সি’র সিনিয়র সহ সভাপতি নুরুল আবেদীন,সাংবাদিক ইউনিয়ন ফ্রান্স সভাপতি ও প্যারিস ভিশন পত্রিকার সম্পাদক এম এ মান্নান আযাদ, ফ্রান্স বিএনপি নেতা খান জালাল,ফ্রান্স বিকশিত নারী সংঘের সভাপতি তৌফিকা সাহেদ,জিএস সি’র সহ সাধারন সম্পাদক জোনেদ আহমদ,কোষাধক্ষ্য মাওলানা আব্দুল হামিদ,আহমেদ মালেক,জাহিদুল ইসলাম শিপার,কবি রুবেল হোসেইন,জালাছুজ্জামান,প্রমুখ।

    এর আগে সম্মানিত অতিথিবৃন্দকে ফুলের শুভেচ্ছা জানান কুলাউড়া এসোসিয়েশন,বালাগঞ্জ,বিশ্বনাথ কল্যান সমিতি, সারসেল যুব কল্যান সমিতি, মেট্রো হোস যুব কল্যান সমিতি , সিলেট শাহ-জালাল স্পোর্টিং ক্লাব।
    অনুষ্টানের শুরুতে কোরান তেলাওয়াত করেন আব্দুস শহিদ।
    যে সব কৃতি শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সনদ প্রদান করা হয়: শাহ জালাল নাবিদ সাদমান, আব্দুল হাকিম মুকিম, বর্মন আলী, আব্দুল মানিবা, খাঁন হাবিব, খাঁন সুলতান,খাঁন লাজিম, খাঁন লাবির, খাঁন আব্রার, খাঁন নওশিন, আশরাফ ইফতেখার, শাহেদ জেসমিন, মোঃ শাহরিয়ার, বর্মন জয়ারানী, সাইফ ফাহমিদা, সাইফ সানজিদা, শেখ রকি, হামিদা নাবিদ খাতুন, আছলাম, কামাল সুরভি, রোমান জামিলা, আশরাফুল দানিয়াল, হামিদ শাহিদা খাতুন, রহমান নিশা ও ,মোশতাক আহমদ টিপু।সাংস্কৃতীক অনুষ্টান পরিচালনা করে প্যারিসের বিখ্যাত সারগাম শিল্পি গোষ্টি।