ওহাবী সালাফীদের মতে যৌন জিহাদ স্বল্প সময়ের বিয়ে!

    1
    582

    আমারসিলেট 24ডটকম,০১অক্টোবর:বিদ্রোহীদের হামলায় অস্তির  সিরিয়ায় “যৌন জিহাদে” অংশ নেওয়ার পর জিহাদী নারীদের এইডস ও নিপীড়নের শিকার হওয়া নিয়ে অনেকে সন্দেহ প্রকাশ করলেও একের পর এক তথ্য বেরিয়ে আসছে । মধ্যপ্রাচ্যের অন্যতম আরবি পত্রিকা আল-আরাবিয়াতে ও প্রকাশ পেয়েছে যৌন নিপীড়নের শিকার মধ্যপ্রাচ্যের কথিত জিহাদী নারীদের স্বীকারোক্তি। সিরিয়ার রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে ও প্রচার হয়েছে যৌন নিপীড়নের  নানা খবর। এছাড়া যৌন জিহাদের সত্যতা নিয়ে কথা বলেছেন সৌদি আরবের আল আরাবিয়া নিউজ চ্যানেলের জেনারেল ম্যানেজার আব্দুল রহমান আল রশিদ।

    সিরিয়ার রাষ্ট্রীয় চ্যানেলে একটি ভিডিও চিত্রে দেখা যায়, রোয়ান কুয়াদা নামের এক তরুণী যৌন জিহাদের অভিজ্ঞতা বর্ণনা করছেন। ১৮ বছর বয়ষ্কা এই তরুণীকে আসাদ সরকার বিরোধী বিদ্রোহীরা ধর্ষণ করে ও জোর করে যৌন জিহাদে অংশ নিতে বাধ্য করে।আসাদ বিরোধী যুদ্ধ শুরু হওয়ার পরে রোয়ানকে তার বাবা বিদ্রোহীদের হাতে তুলে দেয় (?) রোয়ান যৌন জিহাদের বর্ণনায় বলেন, একদিন আমার বাবা আমাকে গোসল করতে বলেন। গোসলের সময় ৫০ বছর বয়সী একজন লোক কেবল আন্ডারওয়্যার পরে গোসলখানায় প্রবেশ করে। সে আমার চুল ধরে, ঘরে নিয়ে যায়। আমি চিৎকার করলেও আমার বাবা কিছুই করেননি।’ পরে তার বাবা তাকে বিদ্রোহীদের সম্মানার্থে বিদ্রোহীদের হাতে তুলে দেয়!
    যদিও রোয়ান এর বাবা অভিযোগ করেন যে, ২০১২ সালের নভেম্বরে সিরিয়ার রাষ্ট্রীয় নিরাপত্তা বাহিনী তার মেয়েকে অপহরণ করেছে।ভিডিওতে যৌন জিহাদে অংশ নেওয়া আরো একজনের সাক্ষাৎকার প্রচারিত হয়েছে। খালেদ আল আলাওয়া নামের এই তরুণী আল কায়েদার বিদ্রোহীদের যৌন সঙ্গী হিসেবে তার অভিজ্ঞতা বর্ণনা করেছেন। তিনি আল কায়েদার যৌন জিহাদী বাহিনী আল নুসরাত ফ্রন্টের সদস্য ছিলেন।অথচ আল-আলাওয়ার পরিবারের দাবি, আসাদ বিরোধী আন্দোলনে সমর্থনের ঘোষণা দেওয়ায় দামেস্ক বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস থেকে আল-আলাওয়াকে আটক করে নিরাপত্তা বাহিনী। কিন্তু ভিডিও চিত্র অনুযায়ী, আলাওয়া নিজেই যৌন জিহাদে অংশ নিয়েছিলেন বলে জানা যায়।এর আগে আল আরাবিয়াত চ্যানেলে প্রচারিত এক ভিডিও চিত্রে, আঠারো বছর বয়সী এক নারীকে বিদ্রোহীদের দ্বারা ধর্ষণের চিত্র ফুটে উঠেছিল।যৌন জিহাদকে ধর্ম যুদ্ধের নামে বৈধতা দিচ্ছেন,  ওহাবী ও কট্টরপন্থী সালাফীরা। তাদের মতে, ‘যৌন জিহাদ স্বল্প সময়ের বিয়ে, যা একাধিক পুরুষের সাথে নারীর যৌন সম্পর্ককে বৈধতা প্রদান করে(নাউজুবিল্লাহ)।

    গত ১৯ সেপ্টেম্বর তিউনেশিয়ার মন্ত্রী লতিফ বিন জেদ্দু ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলীতে তার এক বক্তব্যে বলেন, তিউনেশিয়ার নারীরা যৌন জিহাদের নামে সিরিয়াতে যাচ্ছে, সেখানে তারা ২০, ৩০ ও ১০০ পুরুষের সাথে যৌন সম্পর্ক করছে। ফিরে আসার সময় তারা নিয়ে আসছে গর্ভে করে সন্তান ও শরীরে করে ঘাতক ব্যাধি  এইডস।আল আরাবিয়া চ্যানেলে প্রচারিত যৌন জিহাদের সংবাদের সত্যতা নিয়ে প্রশ্ন দেখা দেওয়ার পরে যৌন জিহাদের সংবাদের বস্তুনিষ্ঠতা নিয়ে কথা বলেছেন চ্যানেলটির জেনারেল ম্যানেজার আব্দুর রহমান আল রশিদ। তিনি বলেন, আরব দেশগুলোর ধর্মভীরু (অসচেতন) নারীদের যৌন জীবনের এমন সংবাদ অনেকেই বিশ্বাস করেননি, কিন্তু বাস্তবে এটাই ঘটছে। অনেক সৌদি নারীর কট্টর ধর্ম বিশ্বাসের কারণে যৌন জিহাদে অংশ নিচ্ছেন। আল আরাবিয়া চ্যানেলে প্রচারিত সব সংবাদই সত্য ও বস্তুনিষ্ঠ বলে কেউ কেউ ধারনা করছে । কেবল পশ্চিমা প্রচারণা বলে এই সংবাদ বিশ্বাস না করলে ভুল করা হবে বলেও দাবি করেন চ্যানেলটির জেনারেল ম্যানেজার।