কানাকে কানা বলিও না : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

    0
    287

    আমারসিলেট 24ডটকম,০৭অক্টোবর:বিশ্ব শিশু দিবস উপলক্ষে আয়োজিত উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন মারধর, বকাঝকা শিশুদের মেধা বিকাশে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে। তাই যারা অভিভাবক ও শিক্ষক তাদের প্রতি অনুরোধ শাসনের নামে শিশুদের অতিরিক্ত চাপ দেবেন না। আজ রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে বিশ্ব শিশু দিবস উপলক্ষে আয়োজিত উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন। মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন মন্ত্রণালয়ের সচিব তরিকুল ইসলাম।অভিভাবক ও শিক্ষকদের উদ্দেশে শেখ হাসিনা বলেন, সবার প্রতি অনুরোধ থাকবে; তাদের (শিশু) একটু বুঝিয়ে বললে তারা শোনে। তারা সবাই একই রেজাল্ট করবে তা তো নয়। তারা সবাই এক হবে তাও নয়। তাদেরও স্বকীয়তা আছে। শিশুদেরও ব্যক্তিত্ব আছে। তাদেরকে তাদের মতো করে পড়তে দিতে হবে।

    তিনি বলেন, বেয়াড়াপনা করলে তো শাসন করতেই হবে। তবে অনবরত শাসন করা ঠিক না।মিলনায়তনে উপস্থিত শিশুদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা ছোটবেলায় শিখেছি, ‘কানাকে কানা বলিও না, খোঁড়াদের খোঁড়া বলিও না’। তোমাদের মধ্যেও যারা একটু প্রতিবন্ধী রয়েছে, তাদের প্রতি তোমাদের সহানুভূতিশীল হওয়া উচিত। বন্ধুত্বের হাত বাড়িয়ে দেয়া উচিত। আগামী দিনের নেতৃত্ব দেয়ার জন্য শিশুদের প্রস্তুত হওয়ার কথা ও বলেন প্রধানমন্ত্রী।তিনি বলেন, আমি তো নানী-দাদী হয়ে গেছি। আগামী দিনে তোমরা যাতে মন্ত্রী, প্রধানমন্ত্রী, রাষ্ট্রপতি হতে পারো- সেভাবে নিজেদের গড়ে তুলবে। শেখ হাসিনা গৃহকর্মী

    শিশু-কিশোরীদের প্রতিও যত্নশীল হওয়ার জন্য অভিভাবকদের আহ্বান জানান। তিনি বলেন, তারা তো আসে একটু খাদ্যের জন্য। তারা আর কতোই খাবে? আর প্রত্যেকেই তো আপনাদের সন্তানের মতো। আমি আমার পরিচিতজনের মধ্যেও ছোটবেলা থেকে এ বিষয়টি দেখেছি। তখনই আমি বলতাম, এমন সুযোগ করে দেব; কাজের লোকই পাবে না।শেখ হাসিনা জানান, তার কাছেও একজন থাকে যে মাস্টার্স পাস করে বিসিএসের প্রস্তুতি নিচ্ছে। আরেকজন লালমাটিয়া কলেজ থেকে ডিগ্রি পাস করেছে। আর একজন উন্মুক্ত স্কুলে পড়ে। তার একটু অসুবিধা আছে। সে একটু ফাঁকিবাজ। যে মাস্টার্স করেছে- তাকে ওর পড়ালেখার দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। আমার কথা হলো, তারা কাজ করতে আসে। আমি তো সারাজীবন থাকব না। তাদের তো ভবিষ্যত করে দিতে হবে।প্রসঙ্গত, এবারের বিশ্ব শিশু দিবসের প্রতিপাদ্য নিশ্চিত হোক শিশুর অধিকার, কাটুক সকল অন্ধকার’। অনুষ্ঠানে শিশুদের উন্নয়নে সরকারের নেয়া বিভিন্ন পদক্ষেপের পাশাপাশি শিশুদের জন্য কি করণীয় তাও তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী। পরে শিশুদের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান উপভোগ করেন প্রধানমন্ত্রী ।