কুষ্ঠ রোগ সচেতনতায় সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়

    0
    218

    আমারসিলেট24ডটকম,২৪মে,শাব্বির এলাহীঃ মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে চা বাগান এলাকা রয়েছে কুষ্ঠ রোগের ঝুকিতে। ইতিমধ্যে সরকারের এক জরীপে উঠে এসেছে জেলার প্রতি হাজারে ১০ থেকে ১৫জন কুষ্ঠ রোগী সনাক্ত হয়েছে। বৃহষ্পতিবার সকাল ১১টায় মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে হীড বাংলাদেশ এর কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সাথে এক ওরিয়েন্টেশনের মাধ্যমে এ তথ্য দেন কুষ্ঠ সমন্বয় কার্যক্রম প্রকল্পের কর্মকর্তারা। এ সময় তারা বলেন, এ রোগের জন্ম আমাদের প্রতিবেশি রাষ্ট্র ভারতে। আর চা শ্রমিকদের আগমন ঘটেছে ভারত থেকে এবং এরা বসবাসও করছে ভারতীয় সীমান্ত এলাকায়। তাই বেশি ঝুঁকি বহন করছে চা শ্রমিকরাই। তারা জানান, এ বিবেচনায় ১৯৭৬ সাল থেকে এলাকায় কুষ্ঠ রোগ নিয়ে হীড বাংলাদেশ কাজ শুরু করলে ১৯৯৮ সালে এটি সহনীয় পর্যায়ে চলে আসায় কমলগঞ্জ এলাকাকে কুষ্ঠ মুক্ত ঘোষনা করে কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়া হয়।

    কিন্তু এর বর্তমান অবস্থা যাচাই করতে গিয়ে দেখা যায়, সম্প্রতি এর পরিমান শতকার দেড় থেকে দুই ভাগ বেড়ে গেছে। এ জন্য বিদেশী অর্থায়নে আবারও এ এলাকায় দুই বছর মেয়াদে শুরু হচ্ছে কুষ্ঠ সমন্বয় কার্যক্রম প্রকল্প। এ সময় কুষ্ঠ রোগ এর উপর প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন কুষ্ঠ রোগের প্রকল্প সমন্বয়কারী পরেশ দেবনাথ। অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ডা.আজাদুর রহমান, ডা. ফয়সল আলম ও জেলা সমন্বয়কারী মো: মোস্তাফিজুর রহমান। ওরিয়েন্টেশনে তারা বলেন, কুষ্ঠ রোগ ৬ মাসে ভালো হয় এবং জন্য ব্যয় হয় ১৩ থেকে ১৫ হাজার টাকা। যার পুরোটাই বিনামুল্যে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে দিয়ে থাকে।

    সংস্থাটির প্রকল্প সমন্বয়কারী পরেশ দেবনাথ এক তথ্যে জানান, বর্তমানে সিলেট বিভাগে হীড বাংলাদেশের অধীনে চিকিৎসাধীন ১০৩ জন কুষ্ঠ রোগীর মধ্যে ১৭ জনই সম্পূর্ণরূপে সুস্থ্য হয়ে উঠেছেন। কুষ্ঠ রোগ নিয়ন্ত্রণে সবাইকে সচেতন হওয়ার জন্য আহ্বান জানানো হয়। মতবিনিময় সভায় বিভিন্ন জাতীয় দৈনিক ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার স্থানীয় সাংবাদিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।