ইনজেকশন নিয়ে ঘুমে খালেদাঃফিরে গেলেন প্রধানমন্ত্রী

    0
    197

    আমারসিলেট24ডটকম,২৪জানুয়ারীঃ ছেলের মৃত্যুতে শোকাহত বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়াকে সমবেদনা জানাতে গিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তবে গুলশান বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ের মূল ফটক না খোলায় এবং কেউ এগিয়ে না আসায় কয়েক মিনিট সেখানে অপক্ষো করে ফিরে গেলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও তাঁর গাড়িবহর।

    শনিবার রাত ৮টা ৩৫ মিনিটে প্রধানমন্ত্রীর গাড়ি বহর বেগম জিয়ার গুলশান কার্যালয়ে পৌঁছান। এ সময় প্রধানমন্ত্রীর সাথে ছিলেন শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু, বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, সাবেক মন্ত্রী দীপু মনি, প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী মাহবুবুল হক শাকিল প্রমুখ।
    প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বেগম খালেদা জিয়ার গুলশান কার্যালয়ে যাবেন এ সংবাদে সন্ধ্যার কিছু পর থেকেই ওই এলাকা এবং কার্যালয়ের চারপাশে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়। প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত নিরাপত্তাকর্মীসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বিপুল সংখ্যক সদস্য সেখানে অবস্থান নেয়। বেগম খালেদা জিয়ার কার্যালয়ের প্রধান ফটকে প্রধানমন্ত্রী এসে পৌঁছানোর আগেই বেগম জিয়ার ঘুমিয়ে থাকার খবর জানিয়ে গুলশান কার্যালয়ের গেইট ভেতর থেকে বন্ধ করে দেয়া হয়। আর সে কারণেই সেখানে ২ মিনিট দাঁড়িয়ে থেকে প্রধানমন্ত্রীকে ফিরে যেতে হলো। আর এ ঘটনায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শুরু হয় সমালোচনার ঝড়।
    এদিকে বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়াকে সমবেদনা জানাতে আসা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বিএনপি চেয়ারপার্সনের গুলশান কার্যালয়ে প্রবেশ করতে না দেয়া রাজনৈতিক শিষ্টাচার বহির্ভূত এবং অমানবিক বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী।

    তিনি সাংবাদিকদের বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী একজন মা হিসেবে এখানে এসেছিলেন। কোন রাজনৈতিক নেত্রী হিসেবে তিনি এখানে আসেননি। তিনি এখানে একজন মা হিসেবে আরেকজন মাকে সান্ত্বনা জানাতে এসেছিলেন। কিন্তু তাকে এভাবে ফিরিয়ে দেয়ার ঘটনাটি শিষ্টাচার বহির্ভূত ও অমানবিক।
    প্রধানমন্ত্রী গুলশানের উদ্দেশ্যে রওয়ানা দেয়ার পর বিএনপি চেয়ারপার্সনের বিশেষ সহকারী শিমূল বিশ্বাস জানিয়েছিলেন, সন্তানের শোকে কাতর বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়াকে ইনজেকশন দিয়ে ঘুম পাড়িয়ে রাখা হয়েছে। সাংবাদিকদের কাছে এ তথ্য জানিয়ে তিনি বলেন, বেগম জিয়ার এখন কারো সাথে দেখা করার মতো পরিস্থিতিতে নেই। তাই প্রধানমন্ত্রীকে পরে আসতে বলেন তিনি।
    শিমুল বিশ্বাস বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আজকে সমবেদনা জানাতে আসতে চেয়েছিলেন কিন্তু বেগম জিয়া পুত্র শোকে অসুস্থ হয়ে পড়ায় তাকে ইনজেকশন দিয়ে ঘুম পাড়িয়ে রাখা হয়েছে। আমরা পরবর্তীতে তার সুস্থতা সাপেক্ষে প্রধানমন্ত্রীকে দেখা করার সময় জানিয়ে দিবো। এখন তিনি কারও সাথেই দেখা করার অবস্থায় নেই।