গাজীপুরে মডেল টেস্ট নির্বাচনে নৌকার পরাজয়! ইসি বিজয়ী

0
200

আমার সিলেট ডেস্ক: সকল জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে অবশেষে স্বতন্ত্র প্রার্থী জায়েদা খাতুন গাজীপুর সিটি করপোরেশন (গাসিক) নির্বাচনে মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন। রাত ১টা ৩০ মিনিটে নির্বাচনের ফল ঘোষণা করা হয়। এতে জায়েদা খাতুন প্রতিদ্বন্দ্বী নৌকার প্রার্থী আজমত উল্লা খানকে ১৬ হাজার ১৯৭ ভোটের ব্যবধানে পরাজিত করে গাজীপুর সিটির নতুন মেয়র নির্বাচিত হন। বিএনপি সমর্থিত ভোটাররা ও বিদ্রোহী আওয়ামী লীগ এক সাথে একাট্টা হওয়ায় জায়েদা খাতুন এর নির্বাচনে জয় এর রাস্তা প্রশস্ত হয়। এতে নৌকা পরাজিত হলেও ইসি তার জয় নিশ্চিত করেছে।

টেবিল ঘড়ির প্রার্থী জায়েদা খাতুন পেয়েছেন ২ লাখ ৩৮ হাজার ৯৩৪ ভোট। তার প্রতিদ্বন্দ্বী আজমত উল্লা পেয়েছেন ২ লাখ ২২ হাজার ৭৩৭ ভোট। ফল ঘোষণার প্রতিটি পর্বেই দেখা গেছে বিজয়ী এবং পরাজিত প্রার্থীর মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হয়েছে। শেষ হাসি হেসেছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী জায়েদা খাতুন।
নির্বাচনে অন্য প্রার্থীদের মধ্যে ইসলামী আন্দোলনের আতাউর রহমান ৪৫,৩৫২ ভোট, জাতীয় পার্টির এম এম নিয়াজ উদ্দিন ১৬,৩৬২, মো: রাজু ৭,২০৬, মো: হারুন ২,৪২৬ ও শাহিনুল ইসলাম ২,২৬৫ ভোট পেয়েছেন। প্রদত্ত ভোটের শতকরা হার ৪৮.৭৫।
বৃহস্পতিবার ভোটারদের ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনায় স্মরণকালের সবচেয়ে আনন্দঘন ও উৎসবমুখর পরিবেশে শান্তিপূর্ণভাবে গাজীপুর সিটি করপোরেশনের (গাসিক) নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। দিনভর সুষ্ঠু ভোট অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে গাজীপুরে বর্তমান ইসির অধীনে এক মডেল নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত চলে ভোটগ্রহণ। তীব্র রোদ ও গরম উপেক্ষা করে সকাল থেকেই কেন্দ্রে কেন্দ্রে ভোটাররা স্বতঃস্ফূর্তভাবে লম্বা লাইনে দাঁড়িয়ে ভোট দেন। বেলা যত বাড়ে ভোটারদের উপস্থিতিও তত বাড়তে থাকে। নারী ভোটারদের উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মতো। আগারগাঁও নির্বাচন ভবনে বসে সিসি ক্যামেরায় সার্বক্ষণিক ভোট পর্যবেক্ষণ করে ইসি। ভোটগ্রহণকালে কোনো ধরনের সহিংস ঘটনা ঘটেনি। সব প্রার্থীই বলেছেন, সুষ্ঠু ভোট হয়েছে। শান্তিপূর্ণ ভোট হওয়ায় স্বস্তি প্রকাশ করেছে গাজীপুরবাসী। এর ফলে সুষ্ঠু নির্বাচনের অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করল ইসি।
এদিকে নির্বাচনের আগে বিভিন্ন মহল থেকে এই ভোট নিয়ে যে আশঙ্কার কথা বলা হয়েছিল তা উড়িয়ে দিয়ে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হওয়ায় সর্বমহলের প্রশংসা অর্জন করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। এর ফলে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে নিরপেক্ষ ভোটের উদাহরণ সৃষ্টি করে নিজেদের ইমেজ ও গ্রহণযোগ্যতা বৃদ্ধির পাশাপাশি সর্বমহলের কাছে নিরপেক্ষতার পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে সক্ষম হয় ইসি। আর এ নির্বাচন সুষ্ঠু হওয়ায় বর্তমান সরকারেরও ইমেজ বৃদ্ধি পায়। দলীয় সরকারের অধীনেও যে সুষ্ঠু নির্বাচন হতে পারে গাজীপুরের শান্তিপূর্ণ ভোট তা প্রমাণ করেছে বলে অভিজ্ঞ মহল মনে করছেন।
সূত্র জানায়, রাজপথের বিরোধী দল বিএনপি গাসিক নির্বাচনে অংশ না নিলেও গোপনে দলের নেতাকর্মীদের কাছে ম্যাসেজ দেয়া হয় আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থীর বিজয় ঠেকাতে সাবেক মেয়র জাহাঙ্গীর আলমের মা স্বতন্ত্র প্রার্থী জায়েদা খাতুনকে ভোট দিতে। তাই বিএনপি সমর্থিত ভোটাররা একাট্টা হয়ে জায়েদা খাতুনকে ভোট দেয়। আর এ কারণেই জায়েদা খাতুন প্রতিটি কেন্দ্রেই উল্লেখযোগ্য ভোট পান।