গার্মেন্টসে নাশকতা ঠেকাতে কঠোর নির্দেশ

    0
    236

    আমার সিলেট  24 ডটকম,১৯নভেম্বরঃ বেতন বৃদ্দির নামে দেশের গার্মেন্টস শিল্প খাতে চলমান ভাঙচুর ও নাশকতা ঠেকাতে জড়িতদের কঠোরভাবে দমনের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। আজ মঙ্গলবার দুপুরে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে পুলিশ প্রশাসনকে এ নির্দেশ দেয়া হয়। তবে এর আগে বাংলাদেশ পোশাক প্রস্তুতকারক ও রপ্তানিকারক সমিতির (বিজিএমই) নেতৃবৃন্দ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সাথে তার দফতরে বৈঠক করেন এবং সরকারের কাছে গার্মেন্ট কারখানার নিরাপত্তা দাবি করেন। তবে বৈঠক শেষে বিজিএমইএ নেতারা ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কেউই সাংবাকিদের কাছে মুখ খুলেনি।তবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী শামসুল হক টুকু তার দফতরে অনানুষ্ঠানিকভাবে গার্মেন্ট কারখানার নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে নির্দেশ দেয়ার কথা জানান।
    স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী টুকু বলেন, গার্মেন্ট কারখানার নিরাপত্তা নিশ্চিত করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। কারখানা ভাঙচুরের সাথে জড়িতদের ফৌজদারি আইনে বিচারের আওতায় আনার নির্দেশ দিয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। এমনকি কোনো রাজনৈতিক দল, শ্রমিক সংগঠনও যদি এর সাথে জড়িত থাকে তবে তাদের বিরুদ্ধেও আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে তিনি জানান ।এদিকে গাজীপুরে পোশাক শ্রমিক-পুলিশ সংঘর্ষে ২ শ্রমিক নিহতের ঘটনার সংবাদ ছড়িয়ে পড়ায় আজ মঙ্গলবার সকাল থেকেই আশুলিয়া ও এর আশপাশের গার্মেন্ট অধ্যুষিত এলাকাগুলোর সর্বত্র চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। এ অবস্থায় দুপুর সাড়ে ১২টায় বিজিএমইএর নেতারা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, শ্রম মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ ও গোয়েনআ সংস্থার কর্মকর্তাদের সাথে জরুরি বৈঠকে বসেন। ওই বৈঠকে বিজিএমইএর সাবেক সভাপতি ও বাংলাদেশ এক্সপোর্টার্স এসোসিয়েশনের সভাপতি আব্দুস সালাম মুর্শেদীসহ বেশ কয়েকজন নেতা উপস্থিত ছিলেন। মূলত তাজরীন ও রানা প্লাজা ট্র্যাজেডিতে সহস্রাধিক শ্রমিকের নিহত হওয়ার ঘটনার পর থেকেই ন্যূনতম মজুরি ইস্যুতে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে দেশের তৈরি পোশাক শিল্পের পরিবেশ।
    অন্যদিকে সরকার পোশাক শ্রমিককের মজুরি নির্ধারণে চলতি বছরের ৬ জুন একে রায়কে চেয়ারম্যান করে ন্যূনতম মজুরি বোর্ড গঠন করে। ওই বোর্ড ৪ নভেম্বর গার্মেন্ট শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি ৫ হাজার ৩শ টাকা করার বিষয়ে খসড়া অনুমোদন করে। তারপর আবারো উত্তপ্ত হয়ে ওঠে দেশের তৈরি পোশাক শিল্প খাত।