চিকনাগুলে হামলার ঘটনায় ৩৪ জনের বিরুদ্ধে মামলা ঘটনাস্থলে পুলিশ

0
147
চিকনাগুলে হামলার ঘটনায় ৩৪ জনের বিরুদ্ধে মামলা ঘটনাস্থলে পুলিশ

আমার সিলেট জৈন্তাপুর সিলেট প্রতিনিধি:সিলেটের জৈন্তাপুরে শুক্রবার (৫ জুন) হামলার ঘটনায় ৩৪ জানের নাম উল্লেখ সহ অজ্ঞাত ১৫/২০ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন উমনপুর গ্রামের মো. সিদ্দেক আলীর ছেলে মো. তাহের আলী।

মামলা সূত্রে জানা যায়, সিলেট গ্যাস ফিল্ডের কর্মকর্তা মাঈনুল হোসেন হত্যার ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে বেআইনি জনতা ঐক্যবদ্ধ হয়ে জৈন্তাপুর উপজেলার চিকনাগুল ইউপির উমনপুর গ্রামে হামলা করে। এই ঘটনায় উমনপুর গ্রামের মো. সিদ্দেক আলীর ছেলে মো. তাহের আলী বাদী হয়ে ৩৪ ককককজনের নাম উল্লেখ করে মামলা দায়ের করেন।

আসামীরা হল- উমনপুর গ্রামের মৃত মোহাম্মদ আলীর ছেলে ফারুক আহমদ (৪৮), ছালেহ আহমদ (৩২) মৃত হাসন মিয়ার ছেলে লাল মিয়া (৫০), মৃত খলান মিয়ার ছেলে সায়েম আহমদ (৩০), মৃত সোনা উল্ল্যার ছেলে আয়ত উল্ল্যাহ (৩৫), ওলিউর রহমান (৪০), মৃত ময়না মিয়ার ছেলে নজমুল (৩৫), মৃত হারিছ মিয়ার ছেলে মনির মিয়া (৩০), মৃত হান্নান মিয়ার ছেলে পারভেজ (২৮), মৃত রহমত এর ছেলে লিটন (৩০), মৃত হারিছ মিয়ার ছেলে আফতাব (৩৫), হারুন মিয়া (২৫), বাবুল মিয়া (২২), মৃত হাসন মিয়ার ছেলে ইন্তাজ মিয়া (৩৫), মৃত মুসিম আলীর ছেলে সওকত (৫৫), মৃত লতিব এর ছেলে করিম (৩০), মৃত আব্দুর রহমানের ছেলে মাসুদ (২৫), মৃত হান্নান মেম্বার এর ছেলে কামরুল (২৫), বাবু মিয়া (২০), মৃত ইমান আলীর ছেলে রাশেদ (২০), রফিক আহমদের ছেলে খালেদ (৩৫), তোতা মিয়ার ছেলে তাজুল (৩৫), মৃত মজ্জমিল আলীর ছেলে ফয়জুল করিম (৬০), পেটলা মিয়ার ছেলে মোস্তাক (৪০), ছালেহ আহমদ (২৫), বটই মিয়ার ছেলে আলী আহমদ উল্ল্যাহ (৪৫), মৃত হাসান মিয়ার ছেলে ফারুক মিয়া (৩৫), পাখি মিয়া (৪৫), হেলাল মিয়া(৩০) তৈয়ব উল্ল্যার ছেলে মন্তাজ (৩০), মৃত মতিন মিয়ার ছেলে নিয়াজুর (৩০) মাহমুদ আলীর ছেলে রুহেল (৩৫), মৃত চাঁন মিয়ার ছেলে কয়েছ আহমদ (৩৫), খলিলুর রহমানের ছেলে সেলিম আহমদ (৩৫) সহ অজ্ঞাত ১৫/২০ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়।

অপরদিকে হামলা, অগ্নিসংযোগ এর ঘটনায় জৈন্তাপুর মডেল থানা পুলিশ একাধিক বার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে। বর্তমানে ঘটনাস্থলের সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে রাখতে পুলিশের একাধীক সদস্য মোতায়ন করা হয়েছে।

জৈন্তাপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তাজুল ইসলাম জানান, হামলার ঘটনার একটি মামলা রেকর্ড করা হয়েছে। হামলার ঘটনার রহস্য এবং ক্ষয়ক্ষতি জানতে পুলিশ বার বার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করছে। পাশাপাশি আসামীদের গ্রেফতার করতে অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে।