ছাত্রীদের যৌন হেনস্তার অভিযোগে কুলাউড়ায় শিক্ষক আটক

    0
    246

    জুড়ী (মৌলভীবাজার) সংবাদদাতাঃ ছাত্রীদের যৌন হেনস্ত করে বার বার পার পেলেও এক নারীর শরীরে হাত দিয়ে জনতার হাতে গণপিঠুনি খেয়ে অবশেষে থানায় আটক হলেন এক মাদ্রাসা শিক্ষক ল¤পট হাশেম সরকার! ঘটনাটি কুলাউড়া পৌরসভার মিলি প্লাজা মার্কেটে ঘটেছে। জানা যায়, কুমিল্লার বাসিন্দা আবুল হাশেম সরকার (৫৫) মৌলভীবাজারের জুড়ী উপজেলার জায়ফরনগর ইউনিয়নের নয়াগ্রাম-শিমুলতলা দাখিল মাদ্রাসার সরকারী শিক্ষক (গণিত)। দীর্ঘ দিন থেকে এখানে চাকরীর সুবাধে একই ইউনিয়নের বেলাগাঁও গ্রামে বিয়ে করেন।

    অভিযোগ রয়েছে, ২ সন্তানের জনক হাশেম সরকার দীর্ঘ দিন থেকে মাদ্রাসা ও প্রাইভেট পড়ানোর সুবাদে ছাত্রীদেরও যৌন হয়রানি করে আসছেন। কিন্তু লোক লজ্জার ভয়ে কেউ মুখ খুলেনি। ২ জুলাই পরীক্ষা চলাকালে দশম শ্রেণির এক ছাত্রীর বুকে হাত দিলে তা যানাযানি হলে এলাকায় তোলপাড় শুরু হয় এবং সহ-সুপারের সাথে তার মারামারির ঘটনাও ঘটে।

    এ বিষয়ে জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের নিকট লিখিত অভিযোগ দিলে ৩ জুলাই থেকে হাশেম সরকারকে চাকরী থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। সেই সাথে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারকে প্রধান করে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। ল¤পট শিক্ষক হাশেম সরকার শনিবার কুলাউড়া শহরের মিলি প্লাজা মার্কেটে প্রকাশ্যে এক নারীর শরীরে হাত দিলে উত্তেজিত জনতা তাকে গণধোলাই দিয়ে কুলাউড়া থানায় সোপর্দ করে।

    তবে অভিযুক্ত শিক্ষক আবুল হাশেম সরকার তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ সম্পূর্ণ অস্বীকার করে এই গুলোকে সাজানো বলে দাবী করেছেন।

    অপরদিকে এ বিষয়ে নয়াগ্রাম-শিমুলতলা দাখিল মাদ্রাসার সুপার মাওঃ জিয়াউল হক বলেন, ছাত্রীদের যৌন হয়রানির অভিযোগে হাশেম সরকারকে প্রায় দেড় মাস পূর্বে মাদরাসা থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে ।