জকিগঞ্জ থেকে শ্রীমঙ্গলে বেড়াতে এসে বজ্রপাতে লাশ হয়ে ফিরছেন গাড়ি চালক রাসেল!

0
30
বজ্রপাতে নিহত রাসেল শিশু সন্তানের সাথে: ছবি সংগৃহীত

আমার সিলেট রিপোর্ট: মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলের সদর ইউনিয়নের শাহজী বাজার রেলগেট সংলগ্ন এলাকায় আজ সোমবার বিকাল সাড়ে তিনটার দিকে সিলেটের জকিগঞ্জ থেকে বেড়াতে আসা এক গাড়ি চাল বজ্রপাতে নিহত ও দুজন আহত হয়েছে।
জানা যায়,সিলেট জেলার জকিগঞ্জ উপজেলার কালাছড়া থেকে একটি নোহা গাড়ী যোগে ৮ জন যাত্রী নিয়ে তাদের এক আত্মীয়ের বাড়ি শ্রীমঙ্গল উপজেলার শাহজীবাজারের সালাম মিয়ার বাড়ীতে পৌছার পূর্বে নোহা গাড়ী থেকে নেমে পায়ে হেঁটে সালাম মিয়ার বাড়ীতে যাওয়ার পথে আকস্মিক বজ্রপাতে ঘটনাস্থলেই নোহা গাড়ীর চালক রাসেল মিয়া (৪০), পিতা-মৃত কবির মিয়া, সাং-কালাছড়া, থানা-জকিগঞ্জ, জেলা-সিলেট মৃত্যুবরণ করেন এ সময় অপর দুইজন- মোঃ সালাম (৫৫), পিতা-মৃত মোজাম্মেল আলী, সাং- শাহজী বাজার, থানা-শ্রীমঙ্গল, জেলা-মৌলভীবাজার, ও রিহান মিয়া (১৫), পিতা-মোস্তাক আহমেদ, সাং-কেছরি, থানা-জকিগঞ্জ, জেলা- সিলেট আহত হয়।
তাৎক্ষনিক উপস্থিত লোকজন আহতদের উদ্ধার করে শ্রীমঙ্গল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার পরীক্ষা নিরীক্ষার পর নোহা গাড়ীর চালক রাসেল মিয়াকে মৃত ঘোষণা করেন এবং মোঃ সালাম (যার বাড়িতে বেড়াতে আসছিল) ও রিহান মিয়াকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে রেফার্ড করেন।
খবর পেয়ে এসআই শ্যামল কুমার নন্দী, শ্রীমঙ্গল থানা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসেন।
এ ব্যাপারে শ্রীমঙ্গল থানার অফিসার ইনচার্জ বিনয় ভূষণ রায়ের সাথে কথা হলে তিনি আমার সিলেটকে জানান, বিষয়টি খুবই দুঃখজনক অন্য জেলা থেকে আমাদের এখানে বেড়াতে এসে প্রাকৃতিক দুর্ঘটনায় তিনি নিহত হয়েছেন বাকি আরো দুজন আহত হয়েছে। আহতরা আপাতত সুস্থ আছেন। তিনি আরো জানান, নিহত রাসেলের বৈধ স্বজনদের কোন অভিযোগ না থাকায় এবং তাদের অনুরোধে উপরস্থ কর্মকর্তাদের সাথে আলোচনা করে ময়নাতদন্ত ছাড়াই লাশ তাদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।
প্রসঙ্গত, জকিগঞ্জ থেকে আসা নিহত রাসেলের বড় ভাই রানা আহমেদ এর সাথে কথা হলে তিনি জানান, তার একটি শিশু ছেলে সন্তান রয়েছে। আমাদের কারো প্রতি কোন অভিযোগ নেই যেহেতু এটি প্রাকৃতিক ঘটনা আল্লাহ যেন আমার ভাইকে ক্ষমা করে দেন। সংবাদ লেখা পর্যন্ত লাশ হস্তান্তরের আইনি প্রক্রিয়া চলছিল।