জাতীয়ভাবে সেরা ১২ শিক্ষার্থীর হাতে পুরস্কার তুলে দিলেন প্রধানমন্ত্রী

    0
    471

    ঢাকা, ২৩ এপ্রিল : দেশে প্রথমবারের মত সৃজনশীল মেধা অন্বেষণ প্রতিযোগিতার মাধ্যমে জাতীয়ভাবে সেরা ১২ শিক্ষার্থীর হাতে জাতীয় পুরস্কার তুলে দিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ মঙ্গলবার সকালে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে প্রধানমন্ত্রী তাদের হাতে এক লাখ টাকার চেক ও সনদ তুলে দেন।

    জাতীয়ভাবে সেরা ১২ শিক্ষার্থীর হাতে পুরস্কার তুলে দিলেন প্রধানমন্ত্রী
    জাতীয়ভাবে সেরা ১২ শিক্ষার্থীর হাতে পুরস্কার তুলে দিলেন প্রধানমন্ত্রী

    এ সময় জাতীয় পর্যায়ে প্রতিযোগিতায় নির্বাচিত ৮৪ শিক্ষার্থীর হাতেও পুরস্কার তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী। শিক্ষা মন্ত্রণালয় প্রথমবারের মত সৃজনশীল মেধা অন্বেষণ প্রতিযোগিতার মাধ্যমে জাতীয়ভাবে সেরা ১২ মেধাবীকে নির্বাচিত করে। প্রতিযোগিতায় এক লাখের মত শিক্ষার্থী অংশ নিয়েছিল। এর মধ্যে বিভিন্ন পর্যায়ে সাত হাজার সেরা মেধাবীকে সনদ ও পুরস্কার দেওয়া হয়েছে।
    ১২ সেরা শিক্ষার্থীর মধ্যে ‘ভাষা ও সাহিত্য’ বিভাগে ষষ্ঠ থেকে অষ্টম গ্রুপে এ পুরস্কার পেযেছে ঢাকার ওয়াইডব্লিউসিএ গার্লস স্কুলের অষ্টম শ্রেণীর হুমায়রা আদিবা। নবম-দশম গ্রুপে রাজশাহীর সরকারি পিএন বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর আনিকা বুশরা এবং একাদশ-দ্বাদশ গ্রুপে সুনামগঞ্জ সরকারি কলেজের একাদশ শ্রেণীর মধুরিমা সাহা এ পুরস্কার পেয়েছে।
    ‘দৈনন্দিন বিজ্ঞান’ বিভাগে নীলফামারী সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণীর শিক্ষার্থী বুশরা আদিব, সিলেট সরকারি জুবিলী উচ্চবিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর সুপান্থ জয় এবং চট্টগ্রাম কলেজের একাদশ শ্রেণীর মোহাম্মদ আজমাঈন ইকতিদারের হাতে পুরস্কার তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী।
    ‘গণিত ও কম্পিউটার’ বিভাগে পুরস্কার পেয়েছে চট্টগ্রাম সরকারি উচ্চবিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণীর তাহনিক নূর সামীন, রাঙামাটি সরকারি উচ্চবিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর ভুবন দে এবং সিলেট এমসি কলেজের একাদশ শ্রেণীর আজওয়াদ আনজুম ইসলাম।
    ‘বাংলাদেশ স্টাডিজ’ বিভাগে কুষ্টিয়া সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণীর আফিয়া আনজুম জামান জেবা, রাজশাহী সরকারি পিএন বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের নবম শ্রেণীর মোসা. মোসাররত মেহজাবীন এবং বরগুনার আমতলী ডিগ্রি কলেজের একাদশ শ্রেণীর আ. বাছিত মোল্লা  দেশ সেরার পুরস্কার পেয়েছে।
    গত ১৩ মার্চ সারা দেশে শুরু হয় এই প্রতিযোগিতা। উপজেলা, জেলা, বিভাগীয় পর্যায়ে নির্বাচিত  ৯৬ জন শিক্ষার্থীকে নিয়ে গত ১৩ এপ্রিল ঢাকায় শুরু হয় জাতীয় পর্যায়ের প্রতিযোগিতা।
    তাদের মধ্যে থেকেই চার বিভাগে তিন গ্রুপে বিজয়ী ১২ জনকে দেয়া হলো সেরা মেধাবীর পুরস্কার।
    মন্ত্রণালয়ের কর্মকতারা জানান, এক লাখের মত শিক্ষার্থী অংশ নিয়েছিল এই প্রতিযোগিতায়। এর মধ্যে বিভিন্ন পর্যায়ে সাত হাজার সেরা মেধাবীকে সনদ ও পুরস্কার দেয়া হয়েছে।