জাতীয় নির্বাচনের গেজেট প্রকাশঃসরকারদলীয় ২এমপি বাদ

    0
    226

    আমারসিলেট24ডটকম,০৮জানুয়ারীঃ ১০ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের গেজেট প্রকাশ করা হয়েছে আজ। যশোরের ১ ও ২ আসনের নবনির্বাচিত সরকারদলীয় দুই সংসদ সদস্যকে বাদ দিয়ে এ গেজেট প্রকাশ হয়েছে। এর আগে গতকালের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী এ দুই সংসদ সদস্যকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। দুপুরে গেজেট প্রকাশের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়ার পূর্বে ইসি এ সিদ্ধান্ত নেয়। সেই হিসেবে মোট ২৯০ জন সংসদ সদস্যের ফলাফল গেজেট আকারে প্রকাশিত হলো।

    মঙ্গলবার রাতে কমিশন সভায় তাদেরকে শোকজ করার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আজ বুধবার এ নোটিশ দেয়া হয়। তাদের বিরুদ্ধে নির্বাচনে কারচুপির ষড়যন্ত্রের প্রমাণও পেয়েছে নির্বাচন কমিশন। কমিশন কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, অভিযোগ প্রমাণিত হলে তাদের সংসদ সদস্য বাতিল এবং কারাদণ্ড দেয়ার বিধান রয়েছে। ভোটগ্রহণের আগে যশোর-১ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান সংসদ সদস্য শেখ আফিল উদ্দিন ও তার বেয়াই উপজেলা চেয়ারম্যানের পদ ছেড়ে যশোর-২ আসনে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতকারী মনিরুল ইসলাম নির্বাচন নিয়ে বেফাঁস মন্তব্য করেন। গেজেট প্রকাশের আগে নবনির্বাচিতদের নাম-ঠিকানাসহ গেজেট প্রকাশের প্রস্তুতি চলে নির্বাচন কমিশনে। এ নির্বাচনে ২৯২ আসনে বিজয়ী প্রার্থীদের তালিকা গেজেট আকারে প্রকাশের জন্য বাংলাদেশ গভর্ণমেন্ট (বিজি) প্রেস পাঠানো হয়য়।

    আজ বুধবার ভোর ৫টা পর্যন্ত ইসি সচিব ড. মোঃ সাদিকসহ অন্যান্য কর্মকর্তারা এ তালিকা চূড়ান্ত করেন বলে জানা গেছে। এই গেজেটে ৫ জানুয়ারি ভোটে নির্বাচিত ১৩৯ সংসদ সদস্যসহ বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ১৫৩ জনের তালিকাও রয়েছে।
    ইসি”তে গেজেট প্রকাশের প্রস্তুতির মধ্যে রাত ৯টায় কমিশনারদের নিয়ে বৈঠক করেন করেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী রকিবউদ্দীন আহমদ। এদিকে নির্বাচনের পর মঙ্গলবার সন্ধ্যায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বঙ্গভবনে গিয়ে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের সঙ্গে দেখা করেন। নির্বাচন এবং এর পরবর্তী পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করেন তারা।
    চলতি নবম জাতীয় সংসদ কবে ভাঙ্গবে বা নতুন সরকার গঠনের প্রক্রিয়া কবে শুরু হবে- জানতে চাইলে রাষ্ট্রপতির প্রেসসচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের বলেন, সরকার গঠনের প্রক্রিয়া শুরু হয় নির্বাচন কমিশনের গেজেট প্রকাশের পর। সংসদ নির্বাচনের ফল গেজেট আকারে প্রকাশের তিন দিনের মধ্যে শপথের সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা রয়েছে। এরপর ৩০ দিনের মধ্যে অধিবেশন ডাকতে হবে। তবে ভোটের কত দিন পর গেজেট হবে, সেই বিষয়ে কোনো বাধ্যবাধকতা নেই।