জামায়াত-হেফাজত ত্যাগ করার পরামর্শ বিএনপিকে ইউরোপীয়দের

    0
    285

    আমারসিলেট24ডটকম,১৭জানুয়ারীঃ  এবার জামায়াতে ইসলামী ও হেফাজতে ইসলাম ত্যাগ করে তাদের চেয়ে দূরে থাকতে বিএনপিকে পরামর্শ দিয়েছে ইউরোপীয়  পার্লামেন্ট। বাংলাদেশের ১০ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে সৃষ্ট রাজনৈতিক সহিংসতায় উদ্বেগ প্রকাশ করে সব পক্ষকে সমঝোতার তাগিদ দিতে আলোচনার পর এ প্রস্তাব গৃহীত হয়। বৃহস্পতিবার রাতে ফ্রান্সের স্ট্যাসবুর্গের ইউরোপীয় পার্লামেন্টের এক প্রস্তাবে বাংলাদেশে বিবাদমান দুই পক্ষকে সমঝোতায় এসে সঙ্কট সমাধানের আহ্বানও জানানো হয়েছে। এ প্রস্তাবে বিরোধী দল দমনের পথ থেকে সরে আসতে সরকারকেও আহ্বান জানিয়েছে। একই সাথে আগাম নির্বাচনের বিষয়ে ভাবতেও বাংলাদেশের রাজনৈতিক দলগুলোর প্রতি আহ্বান জানিয়েছে ইইউ।
    ইউরোপীয় পার্লামেন্টের আহ্বানে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে জড়িত দলকে নিষিদ্ধ করার পক্ষেও অবস্থান জানিয়েছে তারা। দুই প্রধান দলের রাজনৈতিক সমঝোতা না হওয়ায় হতাশা প্রকাশ করে প্রস্তাবে বলা হয়েছে, দেশের স্বার্থে দুই পক্ষকে এক হতে হবে এবং এটা খুবই জরুরি, যাতে বাংলাদেশের মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার প্রয়োগের সুযোগ তৈরি হয়। এক্ষেত্রে সব রাজনৈতিক দল সম্মত হলে আগাম নির্বাচনসহ সব বিষয়ই বিবেচনা করা যায়। পারস্পরিক শ্রদ্ধাবোধ গড়ে তোলার সংস্কৃতি বিনির্মাণেও বাংলাদেশের রাজনৈতিক দলগুলোর প্রতি আহ্বান জানিয়েছে ইউরোপীয় পার্লামেন্ট।
    সরকারকে বিরোধী দল দমনের পথ বন্ধ করার আহ্বান জানিয়ে প্রস্তাবে বলা হয়, নিরাপত্তা বাহিনীর অতিরিক্ত শক্তিপ্রয়োগ বন্ধ করতে হবে, বিরোধী দলের নেতাদের মুক্তি দিতে হবে, সাম্প্রতিক সহিংসতায় হতাহতের বিষয়ে একটি নিরপেক্ষ তদন্ত করতে হবে। প্রস্তাবে একাত্তরের যুদ্ধাপরাধের বিচারের প্রশংসা করে বলা হয়, সীমাবদ্ধতা সত্ত্বেও তারা স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় নির্যাতিতদের ক্ষত প্রশমনে ট্রাইব্যুনাল গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে।
    বাংলাদেশে ৫ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বার বার সহিংস ঘটনা এবং জনজীবনে চরম দুর্ভোগ ও অচল হয়ে পড়ায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছে ইইউ। গ্রেপ্তারকৃত বিরোধী দলীয় নেতাদের মুক্তি দাবি করা হয়েছে। এ ছাড়াও বাংলাদেশের রাজনৈতিক দলগুলোকে পারস্পরিক শ্রদ্ধাবোধের গণতান্ত্রিক সংস্কৃতির প্রতি দৃষ্টি দেয়ার আহ্বান এবং সহিংস রাজনীতি নিষিদ্ধেরও প্রস্তাব করা হয়। বাংলাদেশের মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকারের প্রতি সম্মান জানিয়ে যে কোনো উপায়ে পারস্পরিক আলোচনার উপায় খুঁজে বের করারও জন্য আহ্বান জানিয়েছে ওই পার্লামেন্ট।
    ১০ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বাংলাদেশের রাজনৈতিক সংঘাত-সহিংসতার মধ্যে চার্লস ট্যানক, পাওয়েল রবার্ট কোয়ালের তোলা এ প্রস্তাবের ওপর ইউরোপীয় পার্লামেন্টে আলোচনা হয়। এর আগে গত ৭ জানুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রের সিনেটেও একই ধরনের একটি প্রস্তাব গৃহীত হয়। ওই প্রস্তাবেও বাংলাদেশের চলমান রাজনৈতিক সহিংসতায় উদ্বেগ প্রকাশ করে সংলাপ শুরুর আহ্বান জানায় যুক্তরাষ্ট্র।
    প্রসঙ্গত, বিএনপিবিহীন ১০ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নিরঙ্কুশ জয় নিয়ে আওয়ামী লীগ এরই মধ্যে টানা দ্বিতীয়বার সরকার গঠন করেছে। অন্যদিকে বিএনপি এ ভোট বাতিল চেয়ে নতুন নির্বাচনের দাবি জানিয়ে আসছে। আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, বিএনপি যদি জামায়াতের সঙ্গ এবং ধ্বংসাত্মক কর্মসূচি ছাড়ে তাহলে সংলাপে সমঝোতা হলে মধ্যবর্তী নির্বাচন দেয়া হতে পারে।