জুড়ীতে বিদ্যুৎপৃষ্টে সর্বশেষ বেঁচে থাকা সোনিয়ার মৃত্যুতে ৬ সদস্যের পরিবারের চির অবসান !

0
529
জুড়ীতে বিদ্যুৎপৃষ্টে সর্বশেষ বেঁচে থাকা সোনিয়ার মৃত্যুতে ৬ সদস্যের পরিবারের চির অবসান !

জুড়ী প্রতিনিধি : মৌলভীবাজার জেলার জুড়ী উপজেলার গোয়ালবাড়ী গ্রামে বৈদ্যুতিক তার থেকে বিদ্যুৎপৃষ্ট হয়ে একই পরিবারের ৫ জনের মৃত্যু হয়েছে এবং একজন ছিল গুরুতর আহতাবস্থায় সিলেটের চিকিৎসাধীন পরে সেখান থেকে ঢাকা পর্যন্ত উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে নেওয়া হয় কিন্তু পরিশেষে তাকে আর বাঁচানো সম্ভব হয়নি সেও চলে গেছে চিরতরে না ফেরার দেশে। এই চলে যাওয়ার মাধ্যমে একটি পরিবারের পারিবারিক জীবন ইতিহাস চিরকালের জন্য মুছে গেল মানব সৃষ্ট বিদ্যুতের আগ্রাসনে।
ওই পরিবারের একসাথে পাঁচজন মৃত্যুবরণকারীদের গতকাল দাফন করা হয়। আজ দাফন করা হবে পরিবারের সর্বশেষ গুরুতর আহত অবস্থায় বেঁচে থাকা সোনিয়ার মৃতদেহ। অনেক চেষ্টা করেও তাকে পৃথিবীতে সম্ভব হয়নি চিকিৎসকদের। এর মাধ্যমে শেষ হলো এই পরিবারের পারিবারিক ইতিহাস। এতে অঞ্চল জুড়ে মানুষের মধ্যে বইছে এক চাপা কান্না, সর্বস্থানে একই আলোচনা। পরিবারটি শেষ!

ঘটনার আংশিক বিবরণ হচ্ছে,ছবির বয়স্ক ব্যক্তি ফয়জু রহমানসহ (বাকপ্রতিবন্ধি) (৫৫) উনার স্ত্রী, এক ছেলে ও দুই মেয়ে সহ নিহত হয় পাঁচ জন।হাজী ইনজাদ আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের পাশেই তাদের বাড়ী।

ঘটনার দিন বৈদ্যুতিক তার ছিঁড়ে পড়ে। এতে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে ঘটনাস্থলেই তার বাবা বাক্‌প্রতিবন্ধী দিনমজুর ফয়জুর রহমান (৫০), মা শিরি বেগম (৪৫), বড় বোন সামিয়া সুলতানা (১৪), সাবিনা আক্তার (১১) ও ছোট ভাই সায়েম আহমদসহ (৭) ৫ জন মারা যায়।

গতকাল বিকেলে স্থানীয় হাজী ইনজাদ আলী উচ্চবিদ্যালয়ের মাঠে ওই পাঁচজনের জানাজা হয়। এতে জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তাসহ কয়েক হাজার লোক অংশ নেন। পরে স্থানীয় কবরস্থানে পাশাপাশি তাদের লাশ দাফন করা হয়।
ঘটনার দিন মুমূর্ষু অবস্থায় উনার এক মেয়েকে উদ্ধার করে জুড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে । অবস্থার অবনতি হলে পরে তাকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয় সর্বশেষ এখান থেকে ঢাকা পর্যন্ত চিকিৎসা চেষ্টা করা হয় অবশেষে সেই শিশু মেয়েটিও (সোনিয়া) মৃত্যুবরণ করেছেন।

নিহত শিশুর মামা আবদুল আজিজ জানিয়েছেন, সোনিয়াকে আজ জানাজা শেষে তাদের পাশে দাফন করা হবে।