জৈন্তাপুরে “গুড টাচ্ বেড টাচ্” নিয়ে ওসির প্রচারাভিযান

    0
    247

    রেজওয়ান করিম সাব্বির, জৈন্তাপুর সিলেট প্রতিনিধিঃ সিলেটের জৈন্তাপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ শ্যামল বনিক স্কুল কলেজগামী শিক্ষার্থীদের চুলের বিভিন্ন ডিজাইনের কাটিং বন্দের লক্ষ্যে উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে গুড টাচ্ ও বেড টাচ্ নিয়ে জনসচেতনতা মূলক প্রচারাভিযান চালু করেন।
    পুলিশ সূত্রে জানা যায়, উপজেলা পরিষদের মাসিক সভায় দরবস্ত ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বাহারুল আলম বাহার প্রস্তাবনা করেন উপজেলা বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীরা প্রাতিষ্ঠানিক শৃঙ্খলা ভঙ্গ করে বিভিন্ন ধরনের ডিজাইনে চুল কার্টিং করে বিদ্যালয়ে ক্লাস করছে। এধরনের চুল কার্টিংয়ের কারনে সাধারণ শিক্ষার্থীদের মধ্যে নানা কৌতুহলের সৃষ্টি হয়। কৌতুহলের কারনে শিক্ষার্থীদের মধ্যে ঝগড়া ঝটির ঘটনা ঘটে থাক। বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সুশৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে প্রশাসনের সুদৃষ্টি কামনা করেন।
    এদিকে জৈন্তাপুর মডেল থানার নবাগত অফিসার ইনচার্জ শ্যমল বনিক যোগদানের পর হতে উপজেলা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা এরকম উদ্ভট ষ্টাইলের চুল কাটা বন্দ করতে মাধ্যমিক স্কুল ও কলেজ পর্যায়ে জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে গুড টাচ্ ও বেড টাচ্ নিয়ে জনসচেতনতা মূলক প্রচারাভিযান করে যাচ্ছেন। ইতোমধ্যে উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বেশ কয়েকটি সচেতনতা মূলক প্রচারাভিযান করেছেন। ধারাবাহিক ভাবে বাকী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলোতে সভা করে শিক্ষার্থীদের বুঝাবেন।

    পরবার্তীতে উপজেলা ইউনিয়ন পর্যায়ে অভিভাবকদের নিয়ে এই সভা করবেন শেষ পর্যায়ে উপজেলার প্রতিটি সেলুনের (নরসুন্দর) মালিকদের নিয়ে বৈঠক করবেন এবং উদ্ভট ষ্টাইলের চুল কাটা বন্দের আহবান করবেন। জনসচেতনাতা মূলক কার্যক্রম গুলো যদি কেন সেলুন মালিক না মেনে শিক্ষার্থীদের উদ্ভট ষ্টাইলে চুল কাটেন তাহলে সেলুন মালিকদের আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে। অপরদিকে অফিসার ইনচার্জের এই ধরনের প্রচারাভিযানকে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রধানগন সহ সহকারী শিক্ষকরা ইতিবাচক মনে করছে। শিক্ষকরাও পুলিশের এই কর্তাকে জানান আমরা প্রতিদিন পিটি টাইমে শিক্ষার্থীদের মধ্যে এই সর্তক বার্তাটি প্রচার করব।
    সচেতন মহল মনে করেন অফিসার ইনচার্জ শ্যামল বনিক যে উদ্যোগ গ্রহন করেছেন তা অবশ্যই প্রশংসার দাবী রাখে। সেলুন গুলো এমন উদ্ভট ষ্টাইলে চুল কাটার কারনে অভিভাবকরা অনেকটা নিরুপায় হয়ে পড়ছেন। সচেতন অভিভাবকরাও অফিসার ইনচার্জের সাথে ঐক্যমত পোষন করেন এবং তার সাথে থাকার অঙ্গীকার করেন।