তালাক মেনে নিতে পারছেন না পাকিস্তানি নারী:অবশেষে হবিগঞ্জের চুনারুঘাটে!

0
620

এস এম সুলতান খান, চুনারুঘাটে: বাংলাদেশি স্বামীর খোঁজে হবিগঞ্জের চুনারুঘাটে ছেলের বাড়িতে এসে হাজির হয়েছেন ৩০ বছর বয়সী এক পাকিস্তানি নারী। তার নাম মাহা বাজোয়ার। দুবাইয়ের একটি নাইট ক্লাব থেকে পরিচয়,তারপরের বিয়ে, শেষ পরিণীতি বিচ্ছেদ! কিন্তু ওই নারী মানতে পারছেন না বিচ্ছেদ ! বিচ্ছেদ এড়াতে তিনি চলে এসেছেন বাংলাদেশে।
পাকিস্তানের লাহোরের বাসিন্দা মকসুদ আহমেদের মেয়ে তিনি। মাহার স্বামীর নাম সাজ্জাদ হোসেন মজুমদার (৩৫)।
চুনারুঘাট পৌরসভার ২ নম্বর ওয়ার্ডের উত্তর বড়াইল এলাকার শফিউল্লা মজুমদারের ছেলে তিনি।
শুক্রবার (১০ ডিসেম্বর) স্বামীর খোঁজে চুনারুঘাট এসেছেন মাহা।
সেখানে সাজ্জাদের বাড়িতে ৩ দিন যাবত অবস্থান নিয়েছেন।
এদিকে বিদেশি বধূ আসার খবরে আশপাশের এলাকা থেকে উৎসুক জনতার ভিড় জমে।
জানা গেছে, দশ বছর আগে দুবাইয়ে সাজ্জাদের পরিচয় হয় পাকিস্তানি নারী মাহার। পরে তারা বিয়েও করেন। কিন্তু এক পর্যায়ে মাহাকে ডিভোর্স দেন সাজ্জাদ। অথচ সেই ডিভোর্স মেনে নিতে পারেনি মাহা। স্বামীর সঙ্গে সংসার করতে চান। তাই তিনি চলে এসেছেন সদর বাংলাদেশ একেবারেই সাবেক স্বামীর বাড়িতে ।
জানা গেছে, গত ১৭ নভেম্বর পাকিস্তান থেকে বাংলাদেশে আসেন মাহা। শুক্রবার রাতে তিনি উত্তর বড়াইল গ্রামে সাজ্জাদের বাড়িতে গিয়ে ওঠেন।
সাজ্জাদের ভাই স্বপন মজুমদার জানান, ২০১৪ সালে পাকিস্তানের লাহোরে ওই পাকিস্তানি তরুণীকে বিয়ে করেন সাজ্জাদ। এরপর পর সাজ্জাদ তাকে বাংলাদেশে নিয়ে আসেন এবং পরে পুনরায় পাকিস্তান চলে যান। সাজ্জাদ ১৭ নভেম্বর পুনরায় দেশে ফেরেন; একই দিনে বাংলাদেশে ফেরেন মাহাও।
এ বিষয়ে সাজ্জাদের ভাই স্বপন বলেন, দুবাইয়ের একটি নাইট ক্লাবে সাজ্জাদ চাকরি করতেন। সেখানেই মাহার সঙ্গে তার পরিচয়। পরে তারা বিয়ে করেন। এক পর্যায়ে তাদের সংসারে ভাঙন ধরে। সাজ্জাদ দেশে ফিরলে মাহাও বাংলাদেশে এসে হাজির হয়েছেন। এ মুহূর্তে সাজ্জাদ উপস্থিত নেই বাড়িতে। সে এলে এলাকার গণ্যমান্যদের নিয়ে বসে বিষয়টির সুরাহা করা হবে।
পাকিস্তানের ওই নারী বর্তমানে তার আতিথেয়তায় রয়েছেন বলেও স্বপন জানান।
হবিগঞ্জ জেলা পুলিশের এক কর্মকর্তা জানান, ২০১৮ সালে মাহা ও সাজ্জাদের তালাক হয়। কিন্তু মাহা তা মেনে নিচ্ছেন না। তিনি স্বামীর সঙ্গে সংসার করতে চান।
এ বিষয়ে চুনারুঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ রাশেদুল হক জানান, মাহা ভিসা নিয়ে বাংলাদেশ এসেছেন। কিন্তু এদেশে অবস্থানের জন্য প্রয়োজনীয় নিয়মাবলি তিনি অনুসরণ করেননি। ওই নারী থানায় এসেছিলেন এবং পরবর্তীতে আবার আসবেন বলে চলে যান।
শনিবার সন্ধ্যায় একটি হোয়াটসঅ্যাপ নম্বরে যোগাযোগ করা হলে মাহা বলেন, ‘আমি আপনার সঙ্গে আগামীকাল দেখা করে কথা বলব। এখন আমি অসুস্থ। ’
এ বিষয়ে সাজ্জাদের বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি। এলাকাবাসী বলছেন সাজ্জাদ পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। ওই নারীর মুখোমুখি হতে চাচ্ছেন না তিনি।