নড়াইলে চেম্বার অব কমার্স সভাপতির বাসায় ডাকাতি! কোটি টাকার মালামাল লুটের অভিযোগ

0
192

সুজয় কুমার বকসী,নড়াইল প্রতিনিধি: নড়াইল চেম্বার অব কমার্স এর সভাপতি ও জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি মোঃ হাসানুজ্জামানের বাসায় দূধর্ষ ডাকাতির অভিযোগ পাওয়া গেছে।
আজ সোমবার (২০ ফেব্রুয়ারি) ভোর পৌনে ৪টা থেকে ৫টা পর্যন্ত ৮/১০ জনের ডাকাতদল শহরের পৌর এলাকার মাছিমদিয়া এলাকায় অবস্থিত মোঃ হাসানুজ্জামান এর ডুপ্লেক্স বাড়ীর গ্রীল কেটে এ দূর্ধর্ষ ডাকাতি করে করে। স্বর্নালংকার ও নগদ টাকা, বন্ধুক ও পিস্তলসহ আনুমানিক কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে।
মোঃ হাসানুজ্জামান জানান,ভোররাত পোনে ৪টার সময় ৮/১০ জনের ডাকাতদল আমার বাসায় ঢুকে আমার ও আমার স্ত্রীর হাত পা বেধে স্বর্নালংকার ও নগদ টাকা, বিদেশী ঘড়ি, লাইসেন্স করা ১ টি বন্ধুক ও ২৯ রাউন্ড গুলিসহ ১টি পিস্তল নিয়ে যায়। ডাকাতদের মুখোস ও মাস্ক পরা ছিলো। তাদের ভাষা আমাদের এলাকার আঞ্চলিক ভাষা। প্রশাসনের পদস্থ কর্মকর্তা এসে দেখেছেন ,আমি আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল, আইনের মাধ্যমের এর চিার হবে এটাই আশাকরি।
জেলা যুবলীগের আহবায়ক আলহাজ্জ্ব মোঃ ওয়াহিদুজ্জামান (মোঃ হাসানুজ্জামানের ভাই) বলেন,আমার বাসা পাশেই। আমার বড় ভাইয়ের বাসায় ডাকাতি করে চলে যাওয়ার পরপরই আমাকে জানালে আমার পাজেরো গাড়ি নিয়ে সিকিউরিটিসহ ডাকাতদলকে ধাওয়া করি। কিন্তু তাদের না পেলেও কিছু লোকের সাথে দেখা হয়েছে। আপাতত কিছু জানাবো না।
এ ঘটনার গত ২/৩ আগে বিশিষ্ঠ ব্যাবসায়ি মোঃ জাহাঙ্গির কবিরের বাসায় ডাকাতদল ডাকাতী করতে গেলে জাহাঙ্গির কবির টের পেয়ে ফাকা ফায়ার করলে ডাকাতরা পালিয়ে যায়।
ডাকাতি ও আইন শৃংখলা পরিস্থিতির বিষয়ে জাহাঙ্গির কবির বলেন,নড়াইলে দিনে ও রাতে প্রায়ই ডাকাতি হচ্ছে। আইন শৃংখলা পরিস্থিতি ভালো না। সত্য কথা বললে প্রশাসনের বিরুদ্ধে চলে যাবে। নিজেদের সাবধান নিজেদের হতে হবে। তাছাড়া কোন উপায় নাই।
এ বিষয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম) মোঃ কামরুজ্জামান বলেন,খবর পেয়ে আমি ও সদর থানার ওসি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। আমরা আশা করছি অচিরেই ডাকাতদের আইনের আওতায় আনতে পারবো।