নবীগঞ্জে প্রবাসীর বাড়িতে হামলা-ভাংচুরের অভিযোগ ও অস্ত্র উদ্ধার

0
201

নূরুজ্জামান ফারুকী,বিশেষ প্রতিনিধি: নবীগঞ্জে লন্ডন প্রবাসীর বাড়িতে হামলা ভাংচুর ও লুটপাটের অভিযোগ উঠেছে। এ সময় হামলাকারীরা বাড়িতে থাকা নগদ ৩ লাখ টাকা ও ৬ ভরি স্বর্ণালংকার লুট করে নিয়ে যায়।
শনিবার (১০ জুুন) ভোর সাড়ে ৪ টায় উপজেলার বাঘাউড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

এদিকে, ৯৯৯-এ কল পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে নবীগঞ্জ থানা পুলিশ। এ সময় পুলিশ বিপুল পরিমান দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করে।
স্থানীয় সূত্র জানায়, উপজেলার বাঘাউড়া গ্রামে লন্ডন প্রবাসী আবু তাহেরের বাড়ীতে বসবাস করে আসছেন তার ভাগ্নে আবু জাফর সিদ্দিকী অপু। তার মামা লন্ডন প্রবাসী আবু তাহেরের সাথে অপর মামা নাজিমুল হক ওরফে তসুদ মিয়ার বিরোধ চলছিল। এ নিয়ে তাদের মধ্যে মামলা মোকদ্দমাও রয়েছে। কিছুদিন পূর্বে আবু তাহের তার স্ত্রীকে নিয়ে দেশে আসেন। বিষয়টি জানতে পেরে নাজিমুল হক ওরফে তসুদ মিয়া ও তার লোকজন দেশীয় অস্ত্র নিয়ে তার বাড়িতে টহল ও হুমকি-ধামকি দিয়ে আসছিলেন এবং সম্পত্তি জোরপূর্বক দখল ও জমিতে বাউন্ডারী নির্মাণের পায়তারা করেন। গত ১০ জুন আবু তাহের তার স্ত্রীকে নিয়ে দৌলতপুর গ্রামে অবস্থান করলে বিষয়টি জানতে পারে নাজিমুল হক। এ সুযোগে সে ওই দিন ভোর সাড়ে ৪ টায় লোকজন নিয়ে বাড়িটি ঘেরাও করে। এক পর্যায়ে তারা বাউন্ডারী ভেঙ্গে ও ঘরের গ্রীল কেটে বসত ঘরে প্রবেশ করে। এ সময় আবু জাফর সিদ্দিকী অপুসহ ঘরে থাকা লোকজনকে তারা অস্ত্র নিয়ে জিম্মি করে ভাংচুর ও লুটপাট চালায়।
এতে অপু বাধা দিলে একই গ্রামের মৃত এলাইছ মিয়ার ছেলে ফারছু মিয়া ও মৃত রেজ্জাক মিয়ার ছেলে সাঈদ মিয়া দেশীয় অস্ত্র দিয়ে তাকে আঘাত করে। এতে সে শোর চিৎকার দিলে তার মামাতো ভাই হোসাইন মিয়া এগিয়ে আসলে ইনছব উদ্দিন তাকে রামদা দিয়ে কুপিয়ে রক্তাক্ত জখম করেন। তাছাড়া মৃত সফাত উল্লার ছেলে আমিনুর রহমান তাকে লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে আহত করেন। শুধু তাই নয়, উল্লেখিতরা তার আরেক মামাতো রিয়াদ মিয়াকে বেধড়ক মারপিট করে’।
এ সময় হামলাকারীরা সিন্দুকে রাখা ৩ লাখ টাকা, ৬ ভরি স্বর্ণালংকারসহ মূল্যবান কাগজ লুট করে নিয়ে যায় এবং বাড়ির বাউন্ডারী ওয়াল, গ্রীল, দরজা ও জানালার থাই গøাস, ঘরের রেলিংসহ আসবাবপত্র ভাংচুর করে প্রায় ৭ লাখ টাকার ক্ষতি করে। বিষয়টি তাৎক্ষনিক অপু তার মামা আবু তাহেরকে অবগত করেন। এতে আবু তাহেরের স্ত্রী রুপা বক্স ৯৯৯-এ কল দিলে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে এবং বিপুল পরিমান দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করে। পরে পুলিশ ও স্থানীয় লোকজন আহত অপু, হোসাইন ও রিয়াদকে উদ্ধার করে হবিগঞ্জ জেলা সদর আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করেন। এর আগে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে হামলাকারীরা দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র রেখে পালিয়ে যায়।
এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ডালিম আহমেদ বলেন, ‘৯৯৯-এ কল পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। এ সময় পুলিশ কিছু দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করে এবং আহত কয়েকজনকে উদ্ধার করে হবিগঞ্জ জেলা সদর আধুনিক হাসপাতালে প্রেরণ করেন।