নবীগঞ্জে ব্রেন টিউমারে আক্রান্ত স্বামীকে বাঁচাতে অসহায় স্ত্রীর আকুতি

0
134

নূরুজ্জামান ফারুকী,বিশেষ প্রতিনিধি: নবীগঞ্জ উপজেলার বাউসা ইউনিয়নের দৌলতপুর গ্রামের মোঃ আব্দুল মজিদ ব্রেইন টিউমারে আক্রান্ত হয়ে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে বিছানায় পড়ে আছেন। দুই মেয়ে ও এক পুত্র সন্তানকে নিয়ে স্ত্রী সুরমা বেগম মানবেতর জীবনযাপন করছেন। সংসার চালিয়ে যাওয়া এবং স্বামীর চিকিৎসার খরচ জোগানো হতদরিদ্র সুরমা বেগমের পক্ষে কেনোভাবেই সম্ভব হচ্ছে না। পরিবারের একমাত্র উপার্জনশীল ব্যক্তি ব্রেইন টিউমারে আক্রান্ত হওয়ায় তারা খেয়ে নেয়ে কোনরকম বেঁচে আছেন।
বিগত ৩ মাস পূর্বে মোঃ আব্দুল মজিদের শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে স্ত্রী সুরমা বেগম তাকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকগণ উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মহাখালী বক্ষব্যাধি হাসপাতাল নেওয়ার পরামর্শ দেন। সহায় সম্বল বিক্রি করে ঢাকা নিয়ে গেলে সেখানে উন্নত পরীক্ষা-নীরিক্ষার মাধ্যমে ব্রেন টিউমারের বিষয়টিই ধরা পড়ে। টাকার অভাবে ঢাকায় চিকিৎসা করাতে না পাড়ায় আব্দুল মজিদকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
ডাক্তার বলেছেন মজিদের ব্রেন টিউমার, উন্নত চিকিৎসা করাতে অনেক টাকার প্রয়োজন। আব্দুল মজিদের স্ত্রী সুরমা বেগম বলেন, আমরা গরিব অসহায় মানুষ এত টাকা কোথায় পাব। আমার স্বামীকে বাঁচাতে সকলের সহযোগিতা কামনা করছি। আব্দুল মজিদকে দ্রুত ঢাকা মহাখালী ক্যান্সার হাসপাতালে ভর্তি করার জন্য পরামর্শ দিয়েছেন চিকিৎসকগণ। সেখানে নিয়ে যেতে হলে প্রায় ৫/৬ লক্ষ টাকার প্রয়োজন। এত টাকা খরচ করার মত সামর্থ আমাদের নেই। তিনি সমাজের, দানবীর ও বিত্তশালীদের সকলের কাছে স্বামীকে বাঁচাতে সাহায্য কামনা করেন।
এলাকাবাসী বলেন, পরিবারের একমাত্র উপার্জনশীল ব্যক্তি আব্দুল মজিদ চিকিৎসায় অনেক টাকা লাগে। তার পরিবারের পক্ষে চিকিৎসার খরচ বহন করা সম্ভব নয়। তার কিছু হলে তার পরিবার পথে বসবে। তাই আপনাদের কাছে আমাদের আবেদন যে যা পারেন তাকে বাঁচাতে সাহায্য করেন। সবাই সহযোগিতা করলে উন্নত চিকিৎসাসেবার মাধ্যমে বেঁচে উঠবে মজিদ। তার চিকিৎসার জন্য সরকার ও সমাজের বিত্তবান দানশীল মানুষের সহযোগিতা চাই। যারা সহায়তা করতে চান তাদের জন্য। বিকাশ নম্বর- আব্দুল মজিদের স্ত্রী, সুরমা বেগম ০১৭২৬২২২২৫১ এই নাম্বারে সরাসরি যোগাযোগ করে সবাইকে সাহায্য পাঠানোর আবেদন জানাচ্ছি।

এই আবেদনমূলক নিউজ এর দায়িত্ব আমার সিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম কর্তৃপক্ষ বহন করে না।