নবীগঞ্জে সংঘর্ষে নিহত জয়নালের জানাযার নামাজ সম্পন্ন

    0
    231

     আটক ২ আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০৫মার্চ, মতিউর রহমান মুন্নাঃ হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার ইনাতগঞ্জ বাজারে জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জেরধরে সংঘটিত রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে নিহত জয়নাল আবেদীনের নামাজে জানাযা গতকাল বুধবার সকাল ১১টায় দীঘিরপাড় গ্রামের ঈদগাহ মাঠে অনুষ্টিত হয়েছে। উক্ত জানাযার নামাজে জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, সামাজিক ও নানা শ্রেনী পেশার হাজার হাজার মানুষের ঢল নামে। সদা হাস্যজ্জল জয়নালের মৃত্যুতে এলাকার সর্বত্র শোকের ছায়া নেমে আসে। জয়নালের লাশ জানাযার মাঠে নিয়ে আসলে এক হৃদয় বিদারক দৃশ্যের অবতারনার সৃষ্টি হয়।

    এদিকে বেলা ২টার দিকে জগন্নাথপুর থানার একদল পুলিশ এ ঘটনায় দায়েরী মামলায় এজাহার নামীয় ১ জন এবং সন্দেহভাজন ১ জনকে ইনাতগঞ্জ বাজার থেকে গ্রেফতার করেছে। উক্ত জানাযার নামাজে অন্যানের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল বাতেন, প্রাক্তন চেয়ারম্যান খালেদ আহমদ পাঠান, সাবেক চেয়ারম্যান মসুদ আহমদ জিহাদী, নবীগঞ্জ বাস মালিক সমিতির সভাপতি বিশিষ্ট সমাজ সেবক বজলুর রশিদ, নবীগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাধারন সম্পাদক মোঃ সরওয়ার শিকদার, বিশিষ্ট সাংবাদিক রাকিল হোসেন, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক মুজিবুর রহমান, জাতীয় পার্টির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সিরাজ উদ্দিন, সাধারন সম্পাদক আব্দুল কাইয়ুম, বিশিষ্ট সমাজ সেবক আজিজ কন্টেকটার, মহিবুর রহমান আপার, বয়েত উল্লাহ প্রমুখ।

     উল্লেখ্য, গত ২৮ ফের্রুয়ারী সকালে ইনাতগঞ্জ ইউনিয়নের দীঘিরপাড় গ্রামের লন্ডন প্রবাসী গিয়াস উদ্দিন ও তার চাচাতো ভাই আলিম উদ্দিন এর মধ্যে ভূমি ও ইনাতগঞ্জ বাজারে দোকান ঘর নিয়ে দীর্ঘ দিন ধরে বিরোধের জেরধরে এক রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

    এতে জয়নাল আবেদীনসহ উভয় পক্ষে অন্তত ১৫ জন আহত হয়। গুরুতর আহতদের সিলেট ওসমানী মেডিকেল হাসপাতাল ভর্তি করলে সন্ধ্যার পরপরই মাথায় আঘাতপ্রাপ্ত জয়নাল আবেদীনের অবস্থার অবনতি ঘটে। কর্তব্যরত চিকিৎসক রাতেই তাকে ঢাকা প্রেরন করেন। স্কয়ার হাসপাতালে দু’দিন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে গত ২ মার্চ সোমবার দিবাগত রাত ১২টায় হাসপাতালে সে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে। মঙ্গলবার রাতে ঢাকা থেকে জয়নাল আবেদীনের মৃতদেহ নিজ বাড়ি দীঘিরপাড় গ্রামে পৌছলে স্বজনরাসহ গ্রামবাসীর মধ্যে শুরু হয় শোকের মাতম। শত শত মানুষের ভীড় জমে তাকে এক নজর দেখার জন্য।

    অপর দিকে সুনামগঞ্জ জেলার জগন্নাথপুর থানার এসআই লুৎফুর রহমানের নেতৃত্বে একদল পুলিশ বুধবার বেলা ২টার দিকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে স্থানীয় ইনাতগঞ্জ বাজার থেকে এফআইআর ভুক্ত আসামী নবীগঞ্জের লালাপুর গ্রামের ইদ্দেক উল্লর ছেলে ইস্্রাক উল্লা (৫০) এবং ঘটনায় জড়িত থাকার সন্দেহভাজন জগন্নাথপুর থানার আলীপুর গ্রামের সুধীর রায়ের ছেলে সুরঞ্জিত রায় (৪৫ কে গ্রেফতার করেছে বলে পুলিশ সুত্রে জানাগেছে।

    এ ব্যাপারে জগন্নাথপুর থানার এসআই লুৎফুর রহমান জানান, গত ২রা মার্চ আবুল কালাম আজাদ বাদী হয়ে ২৭ জনের নাম উল্লেখ্য করে অজ্ঞাত নামা ১৫ জনকে আসামী করে দায়ের করা মামলাটি ফৌজদারী কার্যবিধির সর্বোচ্চ ৩২৬ ধারায় এফআইআর ভুক্ত হয়। পরে গুরুতর আহত জয়নাল আবেদীন চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু বরণ করলে ৩০২ ধারা সংযোক্ত করে তদন্ত অব্যাহত আছে। এছাড়া ঘটনার সাথে জড়িতদের গ্রেফতার অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলেও জানান তিনি।