নির্বাচন স্বচ্ছ ও নিরপেক্ষ সম্পন্নের তাগিদঃইউরোপীয় পার্লামেন্ট

    0
    224

    আমারসিলেট24ডটকম,২২নভেম্বরঃ বাংলাদেশ পরিস্থিতি নিয়ে মার্কিন কংগ্রেস উদ্বেগ জানানোর একদিন পর গতকাল বৃহস্পতিবার ইউরোপীয় পার্লামেন্ট এ ব্যাপারে একটি প্রস্তাব পাস করেছে। প্রস্তাবে নির্বাচনের আগে ও পরে শান্ত থাকতেও সব দলের প্রতি আহ্বান জানানো হয়েছে। ইউরোপীয় পার্লামেন্টের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য প্রকাশ করা হয়।
    গত বৃহস্পতিবার স্থানীয় সময় রাত সাড়ে ৯টার দিকে ফ্রান্সের স্টুসবুর্গে ইউরোপীয় পার্লামেন্টের সদর দপ্তরে পাস হওয়া সর্বসম্মত প্রস্তাবে বাংলাদেশে আগামী নির্বাচন স্বচ্ছ ও নিরপেক্ষ উপায়ে সম্পন্ন করারও তাগিদ দেয়া হয়েছে। এতে বাংলাদেশের সব রাজনৈতিক দল ও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছে আস্থাশীল ও নিরপেক্ষ অন্তর্র্বতী সরকার গঠনের আহ্বান জানানো হয়েছে। এর আগে রাত ৮ টা থেকে শুনানি শুরু হয়ে প্রায় এক ঘণ্টা চলে।
    শুনানিতে রাজনৈতিক দলগুলোকে নির্বাচন বয়কট না করার পরামর্শ দিয়ে ইউরোপীয় পার্লামেন্ট বলেছে, এটা নাগরিকদের রাজনৈতিক মতামত প্রকাশের ক্ষেত্রে বাধা সৃষ্টি করবে এবং সামাজিক অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতার অবনতি হবে। উন্নয়ন অগ্রগতিকেও বাধাগ্রস্ত করবে। এতে বলা হয়, নির্বাচন ঘিরে প্রধান দুই রাজনৈতিক জোটে বিরোধ এবং জামায়াত ও বিএনপির সাধারণ ধর্মঘটে বাংলাদেশের দৈনন্দিন জীবনযাত্রা স্থবির করে ফেলার তীব্র নিন্দা জানাতে হবে।
    ”অধিকাংশ গণতান্ত্রিক দেশ তত্ত্বাবধায়ক সরকার ছাড়াই নির্বাচন করে”এ বিষয়টি মাথায় রেখে জাতীয় সংসদ সব দলের ঐকমত্যের ভিত্তিতে নির্বাচনকালীন সরকার ব্যবস্থার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিতে না পারায় দুঃখ প্রকাশ করতে হবে। বাংলাদেশের জনগণকে গণতান্ত্রিক উপায়ে তাদের মতপ্রকাশের সুযোগ দিতে বাংলাদেশের স্বার্থে সরকার ও বিরোধী দলকে অবিলম্বে সমঝোতার আহ্বান জানাতে হবে। সহিষ্ণু ও বহুমতের বাংলাদেশের সুনামের কথা স্মরণ রেখে কোনো দল বা গোষ্ঠীর সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টের চেষ্টার নিন্দা জানাতে হবে।
    ইউরোপীয় বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বাংলাদেশের আগামী নির্বাচনের আগে ও পরে সহনশীলতা প্রদর্শণ এবং শান্ত থাকার জন্য পার্লামেন্টের সদস্যরা সব পক্ষের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছে। এর আগে বাংলাদেশের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে একটি প্রস্তাবনায় সম্মত হন পার্লামেন্ট সদস্যরা। এছাড়া ইউরোপীয় পার্লামেন্ট এ ব্যাপারে মোট ১৫ দফা সুপারিশ করেছে। অপরদিকে বাংলাদেশের নির্বাচন কমিশন একটি স্বচ্ছ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠান করতে পারবে বলেও তারা আশা প্রকাশ করেন।
    ওয়েবসাইটে প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, পার্লামেন্টে ৩টি আলাদা প্রস্তাব অনুমোদন হয়েছে। এর মধ্যে একটি বাংলাদেশ নিয়ে। ওই প্রস্তাবে ইউরোপীয় পার্লামেন্টের সদস্যরা (এমইপি) সব ব্যক্তি ও দলকে সব সময় বিশেষ করে আগামী নির্বাচনের আগে, পরে ও নির্বাচনের সময় সংযত ও সহনশীল থাকার আহ্বান জানিয়েছেন। এতে নির্বাচন কমিশনের আগামী সাধারণ নির্বাচন পূর্ণ স্বচ্ছতার সঙ্গে আয়োজন ও তদারকি করা উচিত। এছাড়া নির্বাচনকে ঘিরে সব ধরনের সহিংসতা থেকে রাজনৈতিক দলগুলোর বিরত থাকা উচিত বলেও তারা মনে করেন।
    ইউরোপীয় পার্লামেন্টে জাতীয় নির্বাচন ছাড়াও বাংলাদেশের সার্বিক মানবাধিকার পরিস্থিতি, বিডিআর বিদ্রোহের বিচার ও আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের কার্যক্রম নিয়ে আলোচনা হয়। এর আগে একটি বিশ্বাসযোগ্য ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন সম্পন্ন করার জন্য উপযোগী পরিবেশ নিশ্চিতকল্পে সব রাজনৈতিক দল ও পক্ষকে সংলাপের দিকে এগিয়ে যেতে এবং আইনের শাসনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হওয়ার আহ্বান জানিয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন তাদের প্রকাশিত এক বিজ্ঞপ্তিতে।