নড়াইলে ফেরী ঘাট এলাকায় সন্ত্রাসীদের হাতে একজন নিহত

0
717
নড়াইলে ফেরী ঘাট এলাকায় সন্ত্রাসীদের হাতে একজন নিহত

সুজয় বকসী,নড়াইল প্রতিনিধি: নড়াইলের সীমাখালী ফেরীঘাট এলাকার বাসিন্দা বাস চালক লিয়াকত সিকদার (৫২) সন্ত্রাসীদের হাতে নিহত হয়েছে। শনিবার ২৮ আগস্ট রাত ৮টার দিকে নড়াইল-লোহাগড়া সড়কের পার্শ্বে সীমাখালী এলাকা থেকে তার ক্ষত বিক্ষত মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। লিয়াকত সীমাখালী গ্রামের সোহরাব সিকদারের ছেলে। রোববার ২৯ আগস্ট দুপুরে সদর হাসপাতালে লাশের ময়না তদন্ত সম্পন্ন হয়েছে। এ ঘটনায় এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। এ নিউজ লেখা পর্যন্ত মামলা প্রক্রিয়াধীন ছিল।
জানা গেছে, ঘটনার দিন সন্ধ্যার দিকে লিয়াকত সিকদার লোহাগড়ায় একটি অনুষ্ঠান থেকে ফিরে স্থানীয় নাকসি মাদ্রাসায় একই এলাকার ১০-১২ জনের সাথে বসে চা খাচ্ছিলেন। পরে এখান থেকে বাড়ি সীমাখালী আসার পথে এ হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটে।
স্থানীয়রা জানান, নড়াইল ফেরী ঘাটের নেতৃত্ব ও আধিপত্য নিয়ে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান পলাশ মোল্যা ও লিয়াকত সিকদার গ্রুপের মধ্যে দীর্ঘ বছর ধরে দ্বন্দ্ব চলে আসছিল। এর জের ধরে এ হত্যাকান্ড ঘটতে পারে তাদের ধারনা।
নিহতের ছেলে পাভেল সিকদার (১৮) জানিয়েছে, স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান পলাশ মোল্যা ও তার ভাই শিমুলসহ আরও কয়েকজন তার বাবাকে কুপিয়ে হত্যা করেছে। তিনি তার পিতার হত্যাকান্ডের সাথে জড়িতদের দ্রুত গ্রেফতার ও সুষ্ঠু তদন্ত দাবি করেন। প্রথম দিকে তার বাবা নড়াইল-কালিয়া সড়কে যাত্রীবাহী বাসের চালক ছিলেন। বর্তমানে ঢাকা রুটে পরিবহন চালাতেন বলে জানিয়েছেন পাভেল সিকদার।
এ ব্যাপারে আউড়িয়া ইউপি চেয়ারম্যান পলাশ মোল্যার সাথে কথা বলার জন্য তার দুটি মোবাইলে ফোন দিলে বন্ধ পাওয়া যায়।
নড়াইল সদর থানার ওসি শওকত কবির জানান, “নিহতের শরীরে অসংখ্য আঘাতের চিহৃ রয়েছে। প্রাথমিকভাবে মনে হয়েছে অন্য কোথাও হত্যা করে লাশ রাস্তার পার্শ্বে ফেলে রাখা হয়েছে। এ ঘটনায় এখনও মামলা হয়নি। এলাকার পরিবেশ শান্ত রয়েছে। এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে এবং পুলিশ সতর্ক রয়েছে।“