নড়াইলে বস্তিতে বসবাস করে ঝিয়ের ছেলে আরমান পেল জিপিএ-৫

    0
    357

    নড়াইলে বস্তিতে বসবাস করে ঝিয়ের ছেলে আরমান পেল জিপিএ-৫
    নড়াইলে বস্তিতে বসবাস করে ঝিয়ের ছেলে আরমান পেল জিপিএ-৫
    নড়াইল প্রতিনিধি, ১২ মে: হতদরিদ্রতা স্বত্ত্বেও শুধু ইচ্ছা ও প্রচেষ্টা থাকলেই যে পরীক্ষায় ভাল ফলাফল করা যায়, তা প্রমান করেছে মেধাবী আরমান। সে এবছর এসএসসি পরিক্ষায় নড়াইল সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ব্যবসা শিক্ষা বিভাগে জিপিএ-৫ পেয়েছে। আরমানরা নড়াইল শহরের রুপগঞ্জ গো-হাটখোলা এলাকায় সরকারি জায়গায় বস্তিতে বসবাস করে। মা শাহানারা খাতুন বাসাবাড়িতে ঝিয়ের কাজ করে। আর ভ্যানচালক বাবা কামাল শেখ অসুস্থ্যতার জন্য প্রায়ই কাজে যেতে পারেনা। তাই আরমানকে পড়ালেখার পাশাপাশি বাবার ভ্যান নিয়ে বের হতে হয়। জিপিএ-৫ কি তা ঠিকমত না বুঝলেও ভাল রেজাল্ট হয়েছে এটা বুঝতে পেরে খুশি গোটা বস্তিবাসী। বস্তির অন্য অভিভাবকরাও তাদের ছেলেমেয়েদের নিয়ে লেখাপড়া করানোর স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছে।
    আরমানরা এক ভাই এক বোন। ছোটবেলা থেকেই লেখাপড়ার প্রতি মনোযোগি ছিল শান্ত স্বভাবের আরমান। লেখাপড়া আর পরিবারের কাজে সহযোগিতা ছাড়া আর কিছুই বোঝেনা সে। মা পরের বাড়িতে কাজে গেলে পরিবারের টুকিটাকি কাজ সে করে থাকে বলে জানায় আরমানের মা। প্রতিবেশীরা জানান, আরমানের ভাল ফলাফলে তারা খুব খুশি। তাদের নিজ নিজ সন্তানদেরকেও এখন থেকে নিয়মিত স্কুলে পাঠাবে। আরমান জানায়, বাবা-মায়ের উৎসাহ ও দোয়া এবং স্কুল শিক্ষকদের সহযোগিতায় তার এ ফলাফল হয়েছে। সে ভবিষ্যতে চার্টান্ড অ্যাকান্ট্যান্ট হতে ইচ্ছুক। কিন্তু তার বাবা-মায়ের পক্ষে ছেলের এ স্বপ্ন পূরন কোন ভাবেই সম্ভব না, তাই তার এ স্বপ্ন –স্বপ্নই থেকে যাবে কিনা, সে বিষয়ে সে চিন্তায় রয়েছে। আরমানের মা শাহানারা বলেন, ছেলের ভাল রেজাল্টে তিনি খুশি হলেও চিন্তা এবং মনের কষ্ট আরও বেড়ে গেছে। এখন কিভাবে কলেজে ভর্তি ও লেখাপড়ার খরচ জোগাবেন সে চিন্তায় মাথার ওপর আকাশ ভেঙ্গে পড়েছে। আরমানের বাবা কামাল শেখ বলেন, এতদিন স্কুলে পড়তো খরচ কম ছিল। কিন্তু এবার কলেজে পড়ানোর ক্ষমতা তার নেই। আরমানের স্কুলের প্রধান শিক্ষক মনিরা খানম বলেন, আরমান নিয়মিত স্কুলে আসতো। দরিদ্র হওয়ায় তার প্রতি শিক্ষকদের সহমর্মিতা ছিল। তিনি আরমানের আরও সাফল্য কামনা করেন। #

    নড়াইলের লোহাগড়া পাইলট স্কুল জেলার সেরা

    নড়াইল প্রতিনিধি, ১২ মে : এবারের এসএসসির ফলাফলে জেলার মধ্যে লোহাগড়া পাইলট স্কুল সবার শীর্ষে। এ স্কুলে বিজ্ঞান বিভাগে ৫৮জন ও ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগে ৯জন জিপিএ-৫ পেয়েছে। স্কুল থেকে ২০১ জন পরীক্ষা দিয়ে সবাই পাশ করেছে। দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা নড়াইল সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৫২ জন শিক্ষার্থী। এর মধ্যে বিজ্ঞান বিভাগে ৩৬ ও ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগে পেয়েছে ১৬ জন। তৃতীয় অবস্থানে থাকা নড়াইল সরকারী উচ্চ বালিকা বিদ্যালয় জিপিএ-৫ পেয়েছে ৪১ জন। এর মধ্যে বিজ্ঞান বিভাগে ৩০, ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগে ৭ এবং মানবিকে ৪ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে। এ স্কুল থেকে ১০৮ জন পরীক্ষা দিয়ে সবাই পাশ করেছে।
    এ ছাড়া জেলার নড়াইল সদরে বরাশুলা শিশু সদন ক্যাডেট আলিম মাদরাসার ১২ জন, শাহবাদ মাজিদীয়া কামিল মাদরাসার ৭ জন, মাইজপাড়া ইউ পি দুর্গাপুর মাদরাসার ৫ জন, জুডালিয়া আলিম মাদরাসার ৩ জন, চাচড়া আলিম মাদরাসার ১ জন, পেড়োলী দাখিল মাদরাসার ১ জন লোহাগড়া উপজেলার আল জামিয়াতুল ইসলামিয়া দাখিল মাদরাসা ১১ জন, লাহুড়িয়া সিনিয়র ফাজিল মাদরাসা ২,কুমড়ি তালবাড়িয়া ৩ জন, এস এইচ বি আর ২ জন, শরশুনা দাখিল মাদরাসা-১ জন,চাপুলিয়া দাখিল মাদরাসা১ জন, , সোনাদাহ পাচুরিয়া দাখিল মাদরাসা ২ জন।
    কালিয়া উপজেলার এল আর মোহাম্মদীয়া দাখিল মাদরাসা ২ জন, বরনাল দাখিল মাদরাসা ১ জন, যাদবপুর দাখিল মাদরাসা ২ জন,টোনা ইসলামিয়া আলিম মাদরাসা ১ জন, ছালামিয়া ইমানিয়া দাখিল মাদরাসা-২ জন,কালিয়া আলিম মাদরাসা-১ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে।
    বিশ্ব রেডক্রস-রেডক্রিসেন্ট দিবস উপলক্ষে নড়াইলে র্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

    Narail Photo-1 (08[1].05.13)নড়াইল প্রতিনিধি
    বিশ্ব রেডক্রস-রেডক্রিসেন্ট দিবস উপলক্ষে নড়াইলে র্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার সকাল ১০টায় নড়াইল চৌরাস্তাস্থ জেলা রেডক্রিসেন্ট কার্যালয়ের সামনে থেকে র্যালী শুরু হয়। র্যালিটি শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে একইস্থানে গিয়ে শেষ হয়। পরে আলোচনা সভায় অনষ্ঠিত হয়। এ সময় রেডক্রিসেন্ট সোসাইটি নড়াইল ইউনিটের সভাপতি ফকির আব্দুল আলীম,সাধারন সম্পাদক কাজী ইসমাইল হোসেন লিটন, নড়াইল সরকারি ভিক্টোরিয়া কলেজের সহকারী অধ্যাপক ড. কালিদাস বিশ্বাস, জেলা শিক্ষা অফিসার নরেশ চন্দ্র দাস, অবসরপ্রাপ্ত জেলা শিক্ষা অফিসার ইউসুফ আলী, সদর উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সালমা রহমান কবিতা, রেডক্রিসেন্ট সোসাইটি নড়াইল ইউনিটের সদস্য মুক্তিযোদ্ধা সাইফুর রহমান হিলু, রওশনারা কবির লিলি, লেবেল অফিসার কাজী আছাদুজ্জামান, বিভিন্ন স্কুল ও কলেজের শিক্ষার্থীসহ রেডক্রিসেন্টের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। #

    রক্ত পরিসঞ্চালনের মাধ্যমে হেপাটাইটিস ও অন্যান্য রক্তবাহিত সংক্রামক রোগ প্রতিরোধে নড়াইলে স্বাস্থ্য শিক্ষা বিষয়ক উদ্বুদ্ধকরণ সভা অনুষ্ঠিত
    Narail Photo-5 (08[1].05.13)নড়াইল প্রতিনিধি, ১২ মে :
    রক্ত পরিসঞ্চালনের মাধ্যমে হেপাটাইটিস ও অন্যান্য রক্তবাহিত সংক্রামক রোগ প্রতিরোধে নড়াইলে স্বাস্থ্য শিক্ষা বিষয়ক উদ্বুদ্ধকরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার সকাল ১০টায় নড়াইল সিভিল সার্জনের সভাকক্ষে আয়োজিত সভায় নড়াইলের সিভিল সার্জন ডাঃ আব্দুস সামাদের সভাপতিত্বে বক্তৃতা করেন নড়াইল সরকারি ভিক্টোরিয়া কলেজের অবসরপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ প্রফেসর মুন্সী হাফিজুর রহমান, সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ সঞ্জিত কুমার সাহা, জেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা আনিচুর রহমান, সিভিল সার্জন অফিসের সিনিয়র স্বাস্থ্য শিক্ষা অফিসার মোল্যা ফোরকান আলী, ডাঃ স্বপন কুমার রায়, নড়াইল প্রেসক্লাবের সভাপতি আলমগীর সিদ্দিকী, সাধারণ সম্পাদক এনামুল কবীর টুকু, জেলা ক্লিনিক মালিক সমিতির সভাপতি তরিকুল ইসলাম প্রমুখ।
    সোসিও-ইকোনমিক এন্ড রুরাল এ্যাডভান্সমেন্ট এসোসিয়েশনের (সেরা) সহযোগিতায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের স্বাস্থ্য শিক্ষা ব্যুরো, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রনালয়ের আয়োজনে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় বিভিন্ন পর্যায়ের সরকারি কর্মকর্তা, সহযোগি এনজিও কর্মকর্তা, সাংবাদিকসহ সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।