পদ্মা সেতু দুর্নীতি মামলায় এজাহারভুক্ত ৭আসামির অব্যাহতি

    0
    182

    আমারসিলেট24ডটকম,অক্টোবরঃ পদ্মা সেতু দুর্নীতি ষড়যন্ত্র মামলায় দুদকের দাখিল করা চূড়ান্ত প্রতিবেদন গৃহীত হওয়ার পর মামলার দায় থেকে অব্যাহতি পেলেন সাবেক সেতু সচিব মোশাররফ হোসেন ভুঁইয়াসহ এজাহারভুক্ত ৭আসামি পদ্মা সেতু দুর্নীতি ষড়যন্ত্র মামলায় দুদকের দাখিল করা চূড়ান্ত প্রতিবেদন গৃহীত হওয়ার পর মামলার দায় থেকে অব্যাহতি পেলেন সাবেক সেতু সচিব মোশাররফ হোসেন ভুঁইয়াসহ এজাহারভুক্ত ৭ আসামি। এছাড়া সাবেক যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আবুল হাসান চৌধুরীর বিরুদ্ধেও অভিযোগের সত্যতা পাওয়া যায়নি বলে জানিয়েছেন আদালত।

    আজ রোববার ঢাকার সিনিয়র বিশেষ জজ মোঃ জহুরুল হক দুদকের দাখিল করা চূড়ান্ত প্রতিবেদন গ্রহণ করায় এই দায় মুক্তি পান আসামিরা।

    দায়মুক্তি পাওয়া অপর আসামিরা হলেন কানাডিয়ান প্রতিষ্ঠান এসএনসি লাভালিনের ৩ কর্মকর্তা সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট কেভিন ওয়ালেস, সাবেক পরিচালক মোহাম্মদ ইসমাইল ও আন্তর্জাতিক প্রকল্প বিভাগের সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট রমেশ শাহা, সেতুর ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান নিয়োগে দরপত্র মূল্যায়নে গঠিত কমিটির সদস্য সচিব কাজী ফেরদৌস, সড়ক ও জনপথের (সওজ) নির্বাহী প্রকৌশলী রিয়াজ আহমেদ জাবের ও এসএনসি-লাভালিনের স্থানীয় পরামর্শক প্রতিষ্ঠান ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড প্লানিং কনসালট্যান্ট কোম্পানি লিমিটেডের উপ মহাব্যবস্থাপক মো. মোস্তফা।

    গত ২২ সেপ্টেম্বর অব্যাহতির শুনানির জন্য ২৬ অক্টোবর দিন ধার্য করেন। ওইদিনই প্রতিবেদনটি ঢাকা সিএমএম আদালত থেকে সিনিয়র বিশেষ জজ আদালতে পাঠানো হয়।

    এর আগে গত ১৬ সেপ্টেম্বর ঢাকা সিএমএম আদালতে ওই প্রতিবেদনটি দাখিল করেন মামলার তদন্ত কমকর্তা দুদকের উপ-পরিচালক মির্জা জাহিদুল আলম।

    প্রতিবেদনে এজাহারনামীয় আসামি সাবেক সেতু সচিব মোশাররফ হোসেন ভুঁইয়া, কানাডিয়ান প্রতিষ্ঠান এসএনসি লাভালিনের তিন কর্মকর্তা সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট কেভিন ওয়ালেস, সাবেক পরিচালক মোহাম্মদ ইসমাইল ও আন্তর্জাতিক প্রকল্প বিভাগের সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট রমেশ শাহ, সেতুর ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান নিয়োগে দরপত্র মূল্যায়নে গঠিত কমিটির সদস্য সচিব কাজী ফেরদৌস, সড়ক ও জনপথের (সওজ) নির্বাহী প্রকৌশলী রিয়াজ আহমেদ জাবের ও এসএনসি-লাভালিনের স্থানীয় পরামর্শক প্রতিষ্ঠান ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড প্লানিং কনসালট্যান্ট কোম্পানি লিমিটেডের উপ মহাব্যবস্থাপক মোঃ মোস্তফার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ প্রমাণ হয়নি মর্মে অব্যাহতি প্রদানের আবেদন করা হয়েছে।

    এছাড়া বিগত মহাজোট সরকারের সাবেক যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন এবং সাবেক পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আবুল হাসান চৌধুরীর বিরুদ্ধেও অভিযোগের সত্যতা পাওয়া যায়নি বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে।

    কানাডার প্রতিষ্ঠান এসএনসি-লাভালিনকে পদ্মা সেতুর পরামর্শকের কাজ পাইয়ে দিতে ঘুষ লেনদেন ষড়যন্ত্রের অভিযোগে ২০১২ সালের ১৭ ডিসেম্বর ৭জনের বিরুদ্ধে মামলা করে দুদক।