পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষে কচুয়া ওয়েলফেয়ার ট্রাষ্টের ইফতার সামগ্রী বিতরণ

0
129

কাওছার ইকবাল,মৌলভীবাজার থেকে ফিরেঃ আসন্ন পবিত্র মাহে রমজান ২০২৩ উপলক্ষে মৌলভীবাজার সদর উপজেলার একাটুনা ইউনিয়নের কচুয়া লম্বা-বাড়ী গোষ্ঠি ওয়েলফেয়ার ট্রাষ্টের উদ্যোগে নগদ অর্থ, ইফতার সামগ্রী ও বিভিন্ন মাদ্রাসায় অনুদান বিতরণ করা হয়।

শুক্রবার (১৮ মার্চ) দুপুরে মোট ১১৫টি পরিবারের মধ্যে ইফতার সামগ্রী, ২৫ টি পরিবারের মধ্যে নগদ ৮,০০০ টাকা করে এবং কচুয়া মদিনাতুল উলুম ফুরকানিয়া ক্বারিয়ানা মাদ্রাসায় নগদ ১০,০০০টাকা ও কচুয়া সুন্নি এতিমখানা হাফিজি মাদ্রাসায় নগদ ১০,০০০টাকা প্রদান করা হয়।

ইফতার সামগ্রী ও অনুদান বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান মেহমান হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মওলানা ফকরুউদ্দিন চৌধুরী সাহেবজাদা ফুলতলী। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ফয়জুল হক তরফদার, ছায়ফুউদ্দিন, শাহ গিয়াস উদ্দীন, কচুয়া জামে মসজিদের ইমাম মাওলানা শফিকুর রহমান, আব্দুল মতলিব, কচুয়া সুন্নি এতিমখানার হাফিজ আব্দুল কাইয়ুম, জুনায়েল উদ্দিন প্রমূখ।
এ ছাড়া আর উপস্থিত ছিলেন, হাসান আহমদ, জাকারিয়া আহমদ, ইয়াকুব হোসেন রকি, উজ্জ্বল আহমদ, হাফিজ জাবেদ আহমেদ প্রমুখ।
রুমন আহমদ ও খালেদুল হক তরফদারের উপস্থাপনায় অনুষ্ঠানের শুরুতে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।

উল্লেখ্য, মৌলভীবাজারের একাটুনা ইউনিয়নের কচুয়া ‘লম্বা-বাড়ী গুষ্টি ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট’ ২০২১ সালে কোভিড-১৯ মহামারী চলাকালীন সময়ে প্রতিষ্টা করা হয়। এই ট্রাস্টের প্রথম প্রকল্পটি ছিল কচুয়ায় পারিবারিক কবরস্থানের সংস্কার। পুরো গুষ্টি প্রকল্পটির সাথে একাত্ম হয়েছিল। ট্রাস্টের তহবিলে কবরস্থানের সংস্কার কাজটি তত্ত্বাবধান করেন যুক্তরাজ্যে বসবাসকারী মো: শফিক মিয়া। তিনি সে সময়ে কচুয়া নিজ বাড়ীতে অবস্থান করছিলেন।

পরবর্তীতে ২০২৩ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে ট্রাস্টের উদ্যোগে কচুয়া প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার ১২৭তম বার্ষিকীর আয়োজন করে। এই স্কুলটি ১৮৯৬ সালে লম্বা-বাড়ী গুষ্টির প্রবীণদের উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। লম্বা-বাড়ী গুষ্টির পরিবারের সদস্যরা শুধু কচুয়ার লম্বা-বাড়ীতেই নয়, নয়া বাড়ি ও পীরের বাড়িতেও বসবাস করেন। কেউ কেউ বড়কাপনসহ অন্য এলাকায়ও অবস্থান করছেন। এছাড় অনেকেই আমেরিকা, ইউরোপসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে অবস্থান করছেন।

উল্লেখ্য যে, লম্বা-বাড়ী গুষ্টির সদস্যদের অনেকেই দেশে বিদেশে ডাক্তার, প্রকৌশলী ও বিজ্ঞানীসহ ব্যবসা ও পেশাগত চাকরিতে নিয়োজিত রয়েছেন। এর মধ্যে রয়েছে প্রফেসর ডঃ পারভেজ হারিস যিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের স্ট্যানফোর্ড ইউনিভার্সিটির গবেষণা অনুসারে বিশ্বের শীর্ষ বিজ্ঞানীদের একজন হিসাবে তালিকাভুক্ত হয়েছেন।