পল্লবী থেকে ৩ ছাত্রী নিখোঁজের অভিযোগ বিদেশে নারী পাচার চক্রের প্রতি

0
581
পল্লবী থেকে ৩ ছাত্রী নিখোঁজের অভিযোগ বিদেশে নারী পাচার চক্রের প্রতি

নূরুজ্জামান ফারুকী, বিশেষ প্রতিনিধি:  রাজধানীর পল্লবী থেকে একসঙ্গে তিন কলেজ পড়ুয়া শিক্ষার্থী নিখোঁজ হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার ৩০ সেপ্টেম্বর বাসা থেকে বের হয়ে তারা নিখোঁজ হয় বলে পরিবার অভিযোগ করেছে। তারা নগদ টাকা, স্বর্ণালংকার ও মুঠোফোন নিয়ে গেছে।

এ ঘটনায় আজ শুক্রবার  ১অক্টোবর পল্লবী থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন নিখোঁজ তিন ছাত্রীর একজনের মা। এ সময় ওই তিন শিক্ষার্থীর পরিবার অভিযোগ করেন, একটি সংঘবদ্ধ নারী পাচার চক্রের প্রলোভনে তারা বাসা থেকে বের হয়ে গেছে।

পল্লবী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) পারভেজ ইসলাম বিষয়টি সংবাদ মাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, “ভুক্তভোগী পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ পেয়েছি। প্রাথমিক অভিযোগের ভিত্তিতে ইতিমধ্যে তরিকুল নামের এক ব্যক্তিসহ দুজনকে আটক করা হয়েছে।“

নিখোঁজ হওয়া শিক্ষার্থীদের স্বজনদের বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, বৃহস্পতিবার থেকে মিরপুর গার্লস আইডিয়াল ল্যাবরেটরি ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থী কাজী দিলখুশ জান্নাত নিসা, পল্লবী ডিগ্রি কলেজ শিক্ষার্থী কানিজ ফাতেমা ও দুয়ারীপাড়া কলেজের শিক্ষার্থী স্নেহা আক্তারকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। কলেজ ড্রেস পরে তারা বাসা থেকে বের হয়। যাওয়ার সময় প্রত্যেকে বাসা থেকে নগদ অর্থ ও স্বর্ণালংকার নিয়ে গেছে।

নিসার মা মাহমুদা আক্তার অভিযোগ করে বলেন, “আমার মেয়ে ও তার দুই বান্ধবীকে বিদেশে যাওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে ঘরছাড়া করেছে একটি নারী পাচার চক্র। যারা একই এলাকায় বসবাস করে। তাদের বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছি।“

এ ঘটনায় একই এলাকার তরিকুল, রকিবুল ও জিনিয়াকে সন্দেহভাজন হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। এদের মধ্যে জিনিয়া টিকটকের পরিচিত মুখ। তরিকুল-রকিবুল পরস্পর দুই ভাই। এ তিন জনের প্ররোচনায় ওই তিন শিক্ষার্থী নিজ নিজ বাসা থেকে বের হয়। এরপর থেকে তাদের খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না বলে অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে।

অভিযোগে আরও উল্লেখ করা হয়েছে, সন্দেহভাজন ওই তিন ব্যক্তি বিভিন্ন সময় তিন শিক্ষার্থীকে আমেরিকাসহ বিভিন্ন দেশে নিয়ে যাওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে আসছিল। একই এলাকায় বসবাস করার সুবাদে বিভিন্ন সময় নিসা ও তার বান্ধবীদের আমেরিকায় বড় কোম্পানিতে চাকরি দেওয়ার প্রলোভন দেখায় তরিকুল। বিষয়টি নিসা তার স্বজনদের জানিয়েছিল।