পাথর উত্তোলন নিয়ে দু’দেশের মধ্যে উত্তেজনার সম্ভাবনা

0
873
পাথর উত্তোলন নিয়ে দু’দেশের মধ্যে উত্তেজনার সম্ভাবনা
পাথর উত্তোলন নিয়ে দু’দেশের মধ্যে উত্তেজনার সম্ভাবনা

রেজওয়ান করিম সাব্বির, জৈন্তাপুর সিলেট প্রতিনিধিঃ জৈন্তাপুর উপজেলার মোকামবাড়ী মৌজার খাসি হাওর ও খাসি নদীর উপরিংশ ১২৭৮ নং আন্তর্জাতিক সীমান্ত পিলার এলাকার পাহাড়, টিলা, সমতল ভূমি খনন করে পাথর উত্তোলন করছে একটি পাথর খেকু প্রভাবশালী চক্র। সীমান্তের সংলগ্ন এলাকা হওয়ায় পাথর উত্তোলনকে কোন সময় উত্তেজনার সৃষ্টি হতে পারে। এনিয়ে সংশ্লিষ্ট প্রশাসন ও উপজেলা প্রশাসন নিরব ভূমিকা পালন করছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, জৈন্তাপুর উপজেলার ভারত সীমান্তবর্তী মোকামবাড়ী মৌজার খাসি হাওর ও খাসি নদীর উপরিংশ ১২৭৮নং আন্তর্জাতিক সীমান্ত পিলার এলাকার পাহাড়, টিলা, সমতল ভূমি খনন করে পাথর উত্তোলন করছে মোকামবাড়ী গ্রামের প্রভাবশালী আব্দুল হান্নানের ছেলে নোবেল আহমদ। দেখা যায় একদল শ্রমিক নিয়ে উচু নিচু টিলা শ্রেনীর ভূমি ও সমতল ভূমি খনন করে পাথর উত্তোলন করে যাচ্ছে। এলাকাবাসী জানান ভূমি মালিক না হয়েও প্রভাব খাটিয়ে সে পাথর উত্তোলন করছে। এদিকে কয়েক দফা পাথর উত্তোলন না করা জন্য ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফ মৌখিক বাঁধা দিয়েছে।

অবৈধ পন্থায় এবং সম্পূন্ন বেআইনি ভাবে টিলা পাহাড় ও ভূমি খনন করে পাথর উত্তোলন বিক্রয় নিষিদ্ধ থাকার পরেও সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের নিরবতায় একটি প্রভাবশালী চক্র দিন রাত সমান ভাবে পাথর উত্তোলন করছে। এলাকাবাসী আরও জানান, অবৈধ ভাবে ভূমি ও টিলা শ্রেনীর জমি খনন করে পরিবেশের বির্পযয় সৃষ্টি করা হচ্ছে। এভাবে পাথর উত্তোলন করা হলে অচিরেই বড় গর্তের সৃষ্টি হবে এবং এলাকার ফসলী জমি ভূগর্ভে বিলিন হবে। দ্রুত সময়ের মধ্যে পাথর উত্তোলন বন্দ না করা হয় তাহলে পরিবেশের মারাত্বক ক্ষতি সাধিত হবে।

এবিষয়ে জৈন্তাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নূসরাত আজমেরী হক, এ প্রতিবেদককে জানান, বিষয়টি আমাদের জানা নেই। তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করুন আমরা আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করছি।