প্রধানমন্ত্রীর আশা ডিসেম্বরের মধ্যেই জিএসপি পুনর্বহাল

    0
    251

    “সরকার কারখানাগুলোর নিরাপত্তা উন্নয়নে প্রায় দুই শতাধিক শ্রমিক নিয়োগ এবং ৭টি অগ্নিনির্বাপক কেন্দ্র স্থাপনের উদ্যোগ নিয়েছে। এছাড়া কারখানা ও শ্রমিকদের সম্পর্কে তথ্য যোগান দিতে ওয়েবসাইট চালু করা হবে”

    আমার সিলেট ডেস্ক,২০ আগস্ট : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আশা প্রকাশ করে বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের ট্রেড রেজিস্ট্রারার (ইউএসটিআর) চলতি বছরের ডিসেম্বরের মধ্যেই জিএসপি সুবিধা পুনর্বহাল করবে। বাংলাদেশে সফররত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেসম্যান সেনডের লেভিন আজ মঙ্গলবার শেখ হাসিনার সঙ্গে তার কার্যালয়ে সাক্ষাৎ করতে এলে তিনি এ আশাবাদ ব্যক্ত করেন। এ সময় মার্কিন কংগ্রেসম্যান জানান, জিএসপি সুবিধা স্থগিত করা বাংলাদেশের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্র সরকারের কোন অবস্থান নয়।

    তিনিও আশাবাদ ব্যক্ত করেন যে, ক্রেতা-বিক্রেতাসহ সংশ্লিষ্ট সকলের সমন্বিত উদ্যোগে বাংলাদেশের তৈরি পোশাক খাত আরও উন্নত হবে। তিনি বলেন, এ খাতের উন্নয়নে ক্রেতা ও বিক্রেতাদের যথাযথ ভূমিকা পালন করতে হবে এবং এ লক্ষ্যে সমন্বিত উদ্যোগ প্রয়োজন।
    পরে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব আবুল কালাম আজাদ এ বিষয়ে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন।এ সময় এম্বাসেডর এট লার্জ এম জিয়াউদ্দিন, প্রধানমন্ত্রীর মিডিয়া উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব মোল্লা ওয়াহিদুজ্জামান ও মার্কিন রাষ্ট্রদূত ড্যান ডব্লিউ মজিনাও উপস্থিত ছিলেন।
    প্রদানমন্ত্রী বিশেষ করে গরীব মানুষের জন্য বড় ধরনের সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীসহ জনগণের কল্যাণে নেয়া বর্তমান সরকারের বিভিন্ন পদক্ষেপের কথা উল্লেখ করেন। তিনি বলেন, বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন, জিডিপি প্রবৃদ্ধি, নারীর ক্ষমতায়ন, শিক্ষা ও স্বাস্থ্য খাতে অনেক উন্নতি করেছে। তিনি পর্যটন খাতে অগ্রগতি, প্রতিবেশী দেশগুলোর সঙ্গে সম্পর্ক উন্নয়ন এবং জাতিসংঘ শান্তি রক্ষীবাহিনীতে অবদান বৃদ্ধির কথাও উল্লেখ করেন।
    রানা প্লাজায় ভবন ধস ও প্রাণহানির মর্মান্তিক ঘটনার উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ঘটনার পর পরই দ্রুততম সময়ে উদ্ধার অভিযান শুরু করতে সম্ভাব্য সব ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ এবং আহতদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছে। তিনি বলেন, শ্রমিক শ্রেণীর স্বার্থ রক্ষায় শ্রম আইন-২০১৩ প্রণয়ন করা হয়েছে। সরকার কারখানাগুলোর নিরাপত্তা উন্নয়নে প্রায় দুই শতাধিক শ্রমিক নিয়োগ এবং ৭টি অগ্নিনির্বাপক কেন্দ্র স্থাপনের উদ্যোগ নিয়েছে। এছাড়া কারখানা ও শ্রমিকদের সম্পর্কে তথ্য যোগান দিতে ওয়েবসাইট চালু করা হবে।