ফিলিস্তিনকে একা ছেড়ে দেয়া ধর্মীয় কারণেই সম্ভব নয়:ইয়েমেনের প্রতিরক্ষামন্ত্রী

0
19

আমারসিলেট ডেস্ক: বহিঃশক্তির সামরিক বাহিনীগুলোকে ইহুদিবাদী ইসরাইলের সমর্থনে মধ্যপ্রাচ্যে যুদ্ধজাহাজ পাঠানোর ব্যাপারে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন ইয়েমেনের প্রতিরক্ষামন্ত্রী মেজর জেনারেল মোহাম্মাদ আল-আতিফি। তিনি গতকাল ইয়েমেনের হুদায়দা বন্দরে সামরিক ক্যাডেটদের এক পাস-আউট অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে এ মন্তব্য করেন।

তিনি বলেন, ইয়েমেনের সশস্ত্র বাহিনী আরব সাগর ও লোহিত সাগরে আমেরিকা, ব্রিটেন ও ফ্রান্সের সামরিক বাহিনীর গতিবিধি গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করছে। গাজা উপত্যকার ফিলিস্তিনি যোদ্ধাদের প্রতি সমর্থন দেয়ার স্বার্থে ইয়েমেন পশ্চিমা বাহিনীর উপস্থিতি সত্ত্বেও ইসরাইলগামী জাহাজে হামলা চালিয়ে যাবে বলে তিনি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন।

ইয়েমেনের প্রতিরক্ষামন্ত্রী বলেন, হুথি আনসারুল্লাহ আন্দোলন, সানা-ভিত্তিক জাতীয় ঐক্যমত্যের সরকার, ইয়েমেনের জনগণ এবং নিরাপত্তা বাহিনী চলমান গাজা যুদ্ধে ফিলিস্তিনিদের পক্ষে অবস্থান নিয়েছে। তিনি বলেন, ইসরাইলের দখলদারিত্ব থেকে সকল ফিলিস্তিনি ভূখণ্ডের মুক্তি এবং জেরুজালেম আল-কুদসকে রাজধানী করে একটি স্বাধীন ফিলিস্তিন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠিত না হওয়া পর্যন্ত এ সমর্থন অব্যাহত থাকবে।

গাজায় ইহুদিবাদী ইসরাইলের অব্যাহত আগ্রাসন, গণহত্যা ও মানবতাবিরোধী অপরাধের প্রতিবাদে ইয়েমেনের হুথি আনসারুল্লাহ আন্দোলন সমর্থিত সামরিক বাহিনী লোহিত সাগরে ইসরাইলি জাহাজে হামলা চালিয়ে আসছে। এছাড়া, হুথি যোদ্ধারা ঘোষণা করেছে- ইসরাইল অভিমুখী যেকোন দেশের জাহাজ আটক করবে ইয়েমেনের সামরিক বাহিনী। এই ঘোষণার পর আমেরিকা লোহিত সাগরে একটি টাস্ক ফোর্স গঠন করেছে।

ওই টাস্ক ফোর্স প্রত্যাখ্যান করে ইয়েমেন বলেছে, দেশটির স্বার্থে কোনো ধরনের আঘাত আসলে সরাসরি মার্কিন রণতরীতে হামলা করা হবে।

এর আগে বৃহস্পতিবার ইয়েমেনের হুথি মুখপাত্র আব্দুস সালাম বলেছিলেন, তার দেশ ধর্মীয় ও নৈতিক অবস্থান থেকে গাজায় ইসরাইলি গণহত্যার বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে এবং এই অবস্থান সকল আন্তর্জাতিক ও মানবিক আইনে সিদ্ধ। তিনি বলেন, এই কঠিন সিদ্ধান্তের পরিণতি কী হতে পারে তা আমাদের জানা আছে। কিন্তু এই সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসার অর্থ হবে ফিলিস্তিনকে ইসরাইলি আগ্রাসনের সামনে একা ছেড়ে দেয়া যা ধর্মীয় কারণেই সম্ভব নয়। সুত্র: পার্সর্টুডে