বজ্রপাতে হবিগঞ্জে একজন ও মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে ২ জনের মৃত্যু

0
283

নূরুজ্জামান ফারুকী, বিশেষ প্রতিনিধিঃ হবিগঞ্জের আজমিরীগঞ্জে নদীতে মাছ শিকার করতে গিয়ে তাহুছ মিয়া (৫০) নামে একজন মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল উপজেলার কালীঘাট চা-বাগানে একজন এবং কালাপুর ইউনিয়নে একজন সহ দুই জেলায় তিনজনের মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। সোমবার (১০ অক্টোবর) সকাল সাড়ে সাত টায় আজমিরিগঞ্জ উপজেলার কাকাইলছেও ইউনিয়নের মাহতাবপুরে এই মর্মান্তিক দুর্ঘটনাটি ঘটে। নিহত তাহুছ মিয়া মাহতাবপুর গ্রামের মৃত জনাব আলীর পুত্র।

পুলিশ ও স্থানীয় সুত্রে জানাযায় সোমবার সকাল ৭ টার দিকে তাহুছ মিয়া বাড়ীর পার্শ্ববর্তী কালনী নদীতে মাছ শিকার করতে যায়। এসময় হঠাৎ করে বজ্রপাত শুরু হলে বজ্রপাতে গুরুতর আহত হন তিনি। স্হানীয়রা নদীর পাড় থেকে তাহুছ মিয়াকে উদ্ধার করে আজমিরীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্হ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাহুছ মিয়াকে মৃত ঘোষনা করেন।
এ বিষয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্য নজু মিয়া জানান-তাহুছ মিয়া পেশায় কৃষি কাজ করতেন।সোমবার সকালে নদীতে মাছ ধরতে যাওয়ার পর বজ্রপাত শুরু হলে বজ্রপাতে গুরুতর আহত হন তিনি।আমরা তাৎক্ষনিক তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্হ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাহুছ মিয়াকে মৃত ঘোষণা করেন।
এ বিষয়ে আজমিরীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাসুক আলী ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) এবং সহকারী কমিশনার (ভুমি) শফিকুল ইসলাম জানান- নিহতের পরিবারকে সরকারি কোষাগার থেকে ২০ হাজার টাকা আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হবে।
অপরদিকে একই দিনে পৃথক সময়ে শ্রীমঙ্গল উপজেলার বজ্রপাতে দুইজনের মৃত্যু হয়েছে। সোমবার ১০ অক্টোবরে পৃথক সময় ও পৃথক স্থান উপজেলার কালাপুর ইউনিয়নে ও কালাঘাট ইউনিয়নে বজ্রপাতে দুই জনের মৃত্যু হয়।
এ ব্যাপারে শ্রীমঙ্গল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আলী রাজিব মাহমুদ মিঠুন সূত্রে জানা যায় , সোমবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে কালীঘাট ইউনিয়নের ফুলছড়া চা বাগানের মেগা রায়ের ছেলে চা শ্রমিক নৃপেন রায় (৪৫) এবং কালাপুর ইউনিয়নের বরুনা এলাকার হামিদনগর গ্রামের ছিমাই মিয়ার ছেলে উম্মত আলী (৪৫) হাইল হাওরে কৃষিকাজ করাকালীন দুপুর ২ টায় বজ্রপাতে তাদের মৃত্যু হয়।
পৃথক দুটি ঘটনায় শ্রীমঙ্গল উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ভানুলাল রায়, শ্রীমঙ্গল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আলী রাজিব মাহমুদ মিঠুন ও প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা তরিকুল ইসলাম বজ্রাপাতে নিহত দুই পরিবারকে তাদের দাফন ও সৎকারের জন্য ১০ হাজার টাকা করে মোট ২০ হাজার প্রদান করেন।পরবর্তীতে তাদেরকে আরো সরকারি সহযোগিতা করা হবে বলে উপজেলা চেয়ারম্যান ভানু লাল রায় জানিয়েছেন।৫নং কালাপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মতলিব কালাপুর ইউনিয়নে একজনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছেন।