বাদ আসর বায়তুল মোকাররমে কোকোর জানাজা

    0
    211

    আমারসিলেট24ডটকম,জানুয়ারী: রাজধানী  ঢাকায় এসে পৌঁছেছে আরাফাত রহমান কোকোর মরদেহ। আজ মঙ্গলবার বেলা সোয়া ১২টার দিকে মরদেহটি নিয়ে মালয়েশিয়ান এয়ারলাইন্সের ১২০ নম্বর ফ্লাইট ঢাকার হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে। মরদেহের সাথে কোকোর স্ত্রী, দুই মেয়েসহ মামা শামীম ইস্কান্দার রয়েছেন। এর আগে মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে কোকোর লাশ বহনকারী ফ্লাইটটি মালয়েশিয়ার কুয়ালালামপুর থেকে যাত্রা শুরু করে।
    এদিকে বিমানবন্দরে যেয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আবদুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, ভাইস চেয়ারম্যান চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফ, আবদুল্লা আল নোমান ও আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক গিয়াস উদ্দিন কাদের চৌধুরী কোকোর কফিন গ্রহণ করেন।
    এরপর তার মরদেহ নেয়া হবে গুলশানে বেগম জিয়ার রাজনৈতিক কার্যালয়ে। সেখানে কিছু সময় পরিবারের সদস্যদের সমবেদনা জানাতে তার মরদেহ রাখা হবে। পরে সেখান থেকে বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে জানাজার জন্য তার মরদেহ নেয়ার কথাও জানানো হয়েছে বিএনপির পক্ষ থেকে।
    অপরদিকে বনানীর সামরিক কবরস্থানে আরাফাত রহমান কোকোর দাফন সম্পন্ন হওয়ার কথা থাকলেও অনুমনি না পাওয়া বনানীর সাধারণ কবরস্থানে তার দাফন সম্পন্ন হবে বলে নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা গেছে। এরই মধ্যে এই কবরস্থানে পরিবারের পক্ষ থেকে জমি কেনা হয়েছে বলেও জানা গেছে।
    পারিবারিক সূত্র জানায়, আরাফাত রহমান কোকো মালয়েশিয়ার হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যাবার পর পরিবারের পক্ষ থেকে তাকে বনানীর সামরিক কবরস্থানে দাফনের অনুমতি চাওয়া হয়। কিন্তু সেনা সদর দফতর থেকে অনুমতি না মেলায় সাধারণ কবরস্থানেই দাফনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। আর সে অনুযায়ী কবরের জন্য জমি কেনা হয়। এর আগে গতকাল সোমবার রাতে এ বিষয়ে সন্দেহের কথা জানান বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান। সাংবাদিকদের কাছে তিনি বলেছিলেন, একজন সেনা কর্মকর্তার সন্তান হিসেবে সামরিক কবস্থাননে দাফন আরাফাত রহমান কোকোর প্রাপ্য। সেলক্ষ্যে লিখিতভাবে সেখানে দাফনের অনুমতি চাওয়া হয়েছে।
    প্রসঙ্গত শনিবার বাংলাদেশ সময় দুপুর সাড়ে ১২টায় হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে তার মৃত্যু হয়েছে। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৪৫ বছর। তিনি মা ও বড় ভাই ছাড়াও স্ত্রী ২ মেয়ে রেখে গেছেন।
    বেগম খালেদা জিয়ার  ছেলে আরাফাত রহমান কোকোকে বনানী সামরিক কবরস্থানে দাফন করার অনুমতি দেয়নি বাংলাদেশ সেনাবাহিনী। তাকে কোথায় দাফন করা হবে এখনো সিদ্ধান্ত হয়নি।বাদ আসর বায়তুল মোকাররমে কোকোর জানাজা অনুষ্ঠিত হবে।