বালি উত্তোলনে চাঁদাবাজিকে কেন্দ্র করে হামলায় আহত-১০! গুরুত্বরা সিলেট হাসপাতালে

0
278

জৈন্তাপুর (সিলেট) প্রতিনিধি: সিলেটের জৈন্তাপুরে বালি পাথর ও ভারতীয় গরু মহিষ চালান সহ বিভিন্ন অপরাধে প্রতিনিয়ত আইনশৃঙ্খলার বিঘ্নতা ঘটছে। এরই প্রেক্ষিতে আবারও সারী নদী হতে বালু উত্তোলনে চাঁদাবাজীকে কেন্দ্র করে হামলার ঘটনা ঘটেছে ৷
এঘটনায় অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন ৷ তাদের মধ্যে আশংঙ্কা জনক ৩ জনকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে ৷ এত একজনের কোমরে দাঁড়ালো অস্ত্রের আঘাতে মারাত্মক ক্ষতি সৃষ্টি হয়েছে। অপরজনের মাথায় মারাত্মক যখন সহ বিভিন্ন জনের বিভিন্ন ধরনের মারাত্মক যখন সৃষ্টি হয়েছে।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, ১৯ ফেব্রুয়ারী সোমবার সকাল ৭টায় লালাখাল সারী নদীর উৎসমূখ হতে শ্রমিকরা বালু উত্তোলন করে আসছে৷ এদিকে চাঁদাবাজ চক্র ডালিম, সরওয়ার, তাজউদ্দিন, জসিম, বাবুল, নিচপাট ইউনিয়নের সদস্য সাইফুল ইসলাম মেম্বারের নেতৃত্বে দীর্ঘ দিন হতে অবৈধ বালুর নৌকা প্রতি ৫শত টাকা হারে চাঁদা আদায় করছে চক্রটি ৷ অযৌতিক চাঁদা আদায়কে কেন্দ্র করে শ্রমিক ও চাঁদাবাজদের মধ্যে উত্তোজনা চলছে৷ তারই ধারাবাহিকতায় গতকাল ভোর ৭টায় সারী নদীর উৎস মূখ হতে বালু উত্তোলন করে নিয়ে আশার প্রক্কালে চাঁদা না দেওয়ায় শ্রমিকদের সাথে চাঁদাবাজদের হামলার ঘটনা ঘটে ৷ এই হামলার ঘটনায় অন্তত ১০ জন শ্রমিক আহত হয়েছেন ৷ তাদের মধ্যে তিনজনকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে ৷ গুরুত্বর আহতরা হলেন চারিকাটা ইউপির বাউরভাগ উত্তর গ্রামের মুছা মিয়ার ছেলে শাহিন মিয়া (৪৮), কামরাঙ্গীখেল দক্ষিণ গ্রামের সুরুজ আলী ছেলে সেলিম আহমদ (৩৫) এবং কামরাঙ্গীখেল উত্তর গ্রামের ফুরকান আলীর ছেলে আব্দুল মালিক (৫০) ৷ অন্যান্য আহতরা সাময়িক চিকিৎসা নিয়ে বাড়ী ফিরে যান ৷ তাদের নাম ঠিকানা পাওয়া যায়নি ৷

এবিষয়ে চারিকাটা ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান সামসুজ্জামান সেলিম বলেন, দীর্ঘদিন হতে প্রশাসনের সহায়তায় চাঁদাবাজ চক্রটি শ্রমিকের নিকট হতে নৌকা প্রতি ৫শত টাকা হারে চাঁদা আদায় করে আসছে ৷ তারা চাঁদা আদায়ের বৈধ কোন কাগজপত্র দেখাতে পারেনি ৷ শ্রমিকরা চাঁদা না দেওয়াতে চক্রটি তাদের উপর হামলা চালায় ৷

জৈন্তাপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তাজুল ইসলাম বলেন, শুনেছি বালু উত্তোলনকে কেন্দ্র করে সারী নদীর মূখে হামলার ঘটনা ঘটেছে ৷ এবিষয়ে কোন অভিযোগ আসেনি, অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে ৷