বাহুবলে শিশু ধর্ষণ মামলার আসামী ফরিদ ৬ দিন ধরে পলাতক

0
591
বাহুবলে শিশু ধর্ষণ মামলার আসামী ফরিদ ৬ দিন ধরে পলাতক

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ হবিগঞ্জের বাহুবল উপজেলার ৬ নং মিরপুর ইউনিয়নের দাসপাড়া গ্রামের আকরাম উল্লাহর ছেলে ফরিদ মিয়া (২২) নামে এক ইমামের বিরুদ্ধে শিশু ধর্ষণের অভিযোগে স্থানীয় মডেল থানায় গত রোববার ২২ আগস্ট ২০২১ ইং রাতে মামলা হলেও এখনো আসামী ফরিদ পালিয়ে থাকতে সক্ষম রয়েছে। এর মধ্যে ধর্ষিতা শিশুকে বাহুবল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

নির্যাতিত শিশুর পিতা ও স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, আসামী ফরিদ একই উপজেলার ৬ নং মিরপুর ইউপির দাশপাড়া গ্রামের আকরম মিয়ার পুত্র ফরিদ মিয়া (২২) পার্শ্ববর্তী ৭ নং ভাদেস্বর ইউনিয়নের চিচিরকোর্ট গ্রামের পূর্ব পাড়া জামে মসজিদে গত ৪ মাস ধরে ইমামতির দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন। পাশাপাশি মক্তবেও শিক্ষকতা করতেন ফরিদ মিয়া।
তিনি বলেন, গত শনিবার রাতে গ্রামের ঐ মসজিদে মহররম উপলক্ষে অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানের এক পর্যায়ে গ্রামের অন্যান্যদের সাথে ১০/১৫ জন শিশু কিশোরী কন্যাও উপস্থিত হয়। শিশুদের অজু গোসল পবিত্রতা পালনের নিয়ম শিক্ষা দেওয়ায় প্রস্রাব শেষে পানি খরচ করার অজুহাতের কথা বলে আসামী ফরিদ মিয়া পাশেই একটি নির্জন স্থানে নিয়ে যায় মেয়েটিকে। সেখানে শিশুটিকে ফুসলিয়ে ধর্ষণ করে।পরে রক্তাক্ত অবস্থায় শিশু টি তার মায়ের কাছে বিষয়টি প্রকাশ করলে তাৎক্ষণিক স্থানীয় মুরুব্বিদের বিষয়টি জানানো হয়।
মামলার সুত্রে জানা যায়, শিশুটির চিৎকারে আশপাশ থেকে আসা লোকজন তাকে উদ্ধার করেন। পরে স্থানীয় মাতব্বররা দিনভর বিষয়টি রফাদফার চেষ্টা চালিয়ে ব্যর্থ হন। পরে ঘটনার দিন রাতে ধর্ষিতা শিশুর পিতা বাদী হয়ে বাহুবল মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন।

বাহুবল মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ কামরুজ্জামান বলেন, চিচিরকোট গ্রামের শিশু কন্যাকে জোরপূর্বক ধর্ষণের অভিযোগে একটি মামলা দায়ের হয়েছে আসামী পলাতক আমরা দ্রুত গ্রেপ্তারের চেস্টা করছি। ধর্ষিত শিশু কন্যাকে মেডিকেল পরীক্ষার জন্য হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।