বেনাপোলে বিজিবি-বিএসএফ সীমান্ত সম্মেলন অনুষ্ঠিত

    0
    244

    আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,২৩ফেব্রুয়ারী,এম ওসমান বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) ও ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) সেক্টর কমান্ডার পর্যায়ে সীমান্ত সম্মেলন সোমবার বেলা ১১টায় বেনাপোল বিজিবি সদর দফতরে অনুষ্ঠিত হয়।

    এর আগে সকাল সাড়ে ১০টায় বেনাপোল চেকপোস্টের নোম্যান্সল্যান্ডে ভারতীয় বিএসএফ কর্মকর্তাদের ফুল দিয়ে বিজিবি কর্মকর্তারা অভ্যর্থনা জানান। পরে বিজিবি চেকপোস্ট ক্যাম্পে গার্ড অব অনার দেওয়া হয়।

    যশোর ২৬ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, সীমান্তে বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে উভয় পক্ষের আলোচনা হয়েছে। বিএসএফ বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে সৌহার্দ এবং সম্প্রীতি বজায় রাখতে অনুপ্রবেশ, সীমান্ত হত্যা, নির্যাতন, চোরাচালান, মাদক পাচার ও নারী-শিশু পাচার বন্ধে একমত পোষণ করে।

    সীমান্ত সম্মেলনে বিজিবির পক্ষে নেতৃত্ব দেন খুলনা বিজিবি সেক্টর কমান্ডার কর্নেল খলিলুর রহমান। প্রতিনিধি দলে ছিলেন, নীলডুমুর ৩৪ বিজিবি’র ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক লে. কর্নেল আজিজুল ইসলাম, খুলনা ২৩ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল আব্দুর রহিম, যশোর ২৬ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল জাহাঙ্গীর হোসেন, খুলনা বিজিবি’র স্টাফ অফিসার লে. কর্নেল সাহিদুর রহমান, সাতক্ষীরা ৩৮ বিজিবি ব্যাটালিয়নের ভারপ্রাপ্ত মেজর নাজির আহম্মেদ বকশী, বিজিবি’র স্টাফ অফিসার মেজর এ টি এম আহসান হাবিব ও স্টাফ অফিসার লে. কমান্ডার শাহ কামরুজ্জামান।

    বিএসএফে’র পক্ষে নেতৃত্ব দেন কলকাতা বিএসএফের ভারপ্রাপ্ত সেক্টর কমান্ডার অরবিন্দু সিনহা। প্রতিনিধি দলে ছিলেন, ১৪৪ বিএসএফ ব্যাটালিয়নের কমান্ডিং অফিসার অজিত কুমার ভা, ৩ বিএসএফ ব্যাটালিয়নের কমান্ডিং অফিসার কে এম প্রসাদ, ৪০ বিএসএফ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক এম কে ঝা, সিনিয়র স্টাফ অফিসার শ্রীদাস রাজ, ১৫২ বিএসএফ ব্যাটালিয়নের কমান্ডিং অফিসার মনোজ কুমার, স্টাফ অফিসার দিনেশ কুমার, আর কে গোস্বামী ও হরিদাসপুর কোম্পানি কমান্ডার জিতেন্দ্র কুমার।

    বৈঠাক শেষে উভয় দলের প্রতিনিধিরা সাংবাদিকদের জানান, বাংলাদেশ-ভারতের সাথে সুদৃঢ় সম্পর্ক স্থাপনের লক্ষ্যে বিজিবি-বিএসএফ’র মধ্যে এ সম্মেলন । এ সম্মেলন এর মাধ্যমে বিজিবি ও বিএসএফ এর মধ্যে যেমন দুরত্ব কমবে। তেমনি উভয়ের সহযোগীতার ফলে সীমান্তে চোরাচালান, মাদক পাঁচার, নিরহ বাংলাদেশী হত্যা ও নারী-শিশু পাঁচারসহ সব ধরনের সীমান্ত সমস্যা শুণ্যের কোঠায় নামিয়ে আনা সম্ভাব হবে বলেও মত প্রকাশ করেন বক্তরা।