ভারতকে মুসলিম বিরোধীতা উসকে দেওয়া বন্ধের আহ্বান

0
453
ভারতকে মুসলিম বিরোধীতা উসকে দেওয়া বন্ধের আহ্বান
ভারতকে মুসলিম বিরোধীতা উসকে দেওয়া বন্ধের আহ্বান

“সম্প্রতি বিজেপি শাসিত মধ্য প্রদেশ ও গুজরাটে মুসলমানদের বাড়িঘর, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, মসজিদ এবং ধর্মীয় স্থানে হামলা ও ভাঙচুর করা হয়েছে। মধ্য প্রদেশের খারগোন শহর সহিংসতার কেন্দ্রস্থল, যেখানে স্থানীয় প্রশাসন মুসলমানদের বাড়িঘর এবং দোকানগুলো ভেঙে দিয়েছে।“

আমারসিলেট ডেস্কঃ ইন্ডিয়ান আমেরিকান মুসলিম কাউন্সিল রমজানের সময় ভারতের বেশ কয়েকটি রাজ্যে মুসলমানদের বিরুদ্ধে সহিংসতার নিন্দা করেছে। ইন্ডিয়ান আমেরিকান মুসলিম কাউন্সিল ভারতের সংবিধান রক্ষার জন্য নিবেদিত একটি অ্যাডভোকেসি গ্রুপ।

ইন্ডিয়ান আমেরিকান মুসলিম কাউন্সিল দ্বারা প্রকাশিত একটি প্রতিবেদনে তারা বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মে প্রচারিত সংবাদ প্রতিবেদন এবং ভিডিওকে উদ্ধৃত করে, যা স্পষ্টভাবে নির্দেশ করে যে রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘ (আরএসএস), হিন্দু আধিপত্যবাদী আধাসামরিক সংগঠন এবং বিশ্ব হিন্দু পরিষদের মতো তার সহযোগীদের দ্বারা সহিংসতা শুরু করেছিল। ‘আরএসএস’ হল প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) আদর্শগত অভিভাবক।

এ ছাড়া এপ্রিল মাসে ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে যে সহিংসতা হয়েছে তাও প্রতিবেদনে দেখানো হয়েছে।  

আজ বুধবার ২০ এপ্রিল ২০২২ ইং তারিখে হিন্দি গণমাধ্যম ‘সিয়াসাত’ সূত্রে প্রকাশ, সম্প্রতি বিজেপি শাসিত মধ্য প্রদেশ ও গুজরাটে মুসলমানদের বাড়িঘর, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, মসজিদ এবং ধর্মীয় স্থানে হামলা ও ভাঙচুর করা হয়েছে। মধ্য প্রদেশের খারগোন শহর সহিংসতার কেন্দ্রস্থল, যেখানে স্থানীয় প্রশাসন মুসলমানদের বাড়িঘর এবং দোকানগুলো ভেঙে দিয়েছে।

গুজরাটের হিম্মতনগরে একটি মুসলিম দরগাহে অগ্নিসংযোগ করে উগ্রহিন্দুত্ববাদীরা। দিল্লির জাহাঙ্গীরপুরীতে, বিশ্ব হিন্দু পরিষদ এবং বজরং দলের চরমপন্থিরা তলোয়ার, ত্রিশূল এবং বন্দুক সজ্জিত হনুমান জয়ন্তীতে একটি মিছিল করে এবং গেরুয়া পতাকা উত্তোলনের চেষ্টা করাসহ একটি মসজিদে পাথর নিক্ষেপ করে। দিল্লির ক্ষমতাসীন আম আদমি পার্টি (আপ) সরকার সহিংসতার জন্য বিজেপিকে দোষারোপ করেছে। 

উত্তরাখণ্ডের রুড়কিতে মুসলমানরা বলেছে, হিন্দু চরমপন্থি জনতা শহরের মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ এলাকায় হামলা চালিয়েছে, পাথর নিক্ষেপ করেছে,  ভাঙচুরের চেষ্টা করেছে এবং ঘৃণ্য স্লোগান দিয়েছে। তারা মুসলিম  মালিকানাধীন বাড়িঘর গুঁড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দেয় এবং অনেক মুসলিম পরিবারকে পালিয়ে যেতে বাধ্য করে।  

তেলেঙ্গানাতে রাজা সিং নামে এক বিজেপি নেতার বিরুদ্ধে হিন্দু চরমপন্থি সমাবেশে নেতৃত্ব দেওয়ার জন্য এবং মুসলিম বিরোধী বিদ্বেষমূলক বক্তৃতা দেওয়ার জন্য হায়দরাবাদ পুলিশ মামলা করেছে। তিনি দাবি করেছিলেন যে তিনি উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ, প্রধানমন্ত্রী মোদির ঘনিষ্ঠ সহযোগী, ‘দেশকে পরিষ্কার করার জন্য একটি বুলডোজার ব্যবহার করবেন এবং শিগগিরি এটিকে একটি হিন্দু রাষ্ট্রে পরিণত করবেন।পার্সটুডে

গণমাধ্যমে প্রকাশ, হিন্দু চরমপন্থিদের জবাবদিহি করার পরিবর্তে, বিজেপি শাসিত রাজ্যে সহিংসতার মিথ্যা ও বানোয়াট অভিযোগে পুলিশ মুসলমানদের গ্রেফতার করেছে।

ইন্ডিয়ান আমেরিকান মুসলিম কাউন্সিল বলেছে, প্রতিটি ধর্মীয় সম্প্রদায়ের তাদের উৎসব পালনের অধিকার রয়েছে। যদিও এটা লজ্জাজনক এবং ঘৃণ্য যে ভারতে হিন্দু চরমপন্থিরা তাদের উৎসবগুলোকে ব্যবহার করে ভারতীয় মুসলমানদের শারীরিক আক্রমণ, ভাঙচুর এবং অগ্নিসংযোগের মাধ্যমে আতঙ্কিত করছে। এটা উদ্বেগজনক যে, পুলিশের উপস্থিতিতে এই ধরনের সহিংসতা বৃহৎ পরিসরে পরিচালিত হচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন ইন্ডিয়ান আমেরিকান মুসলিম কাউন্সিলের নির্বাহী পরিচালক রাশেদ আহমেদ।   

সংগঠনটি আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা এবং সুশীল সমাজের গোষ্ঠীগুলোকে ভারতের অবনতিশীল পরিস্থিতির দিকে মনোযোগ দেওয়ার জন্য আহ্বান জানিয়েছে, যা আগামী মাসগুলোতে সম্পূর্ণ মুসলিম এবং  খ্রিস্টান গণহত্যায় পরিণত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে৷ 

ইন্ডিয়ান আমেরিকান মুসলিম কাউন্সিল মার্কিন স্টেট ডিপার্টমেন্টকে ভারত সরকারকে মুসলিম বিরোধী আবেগ উসকে দেওয়া বন্ধ করতে, মুসলিম বিরোধী সহিংসতায় জড়িত হিন্দু চরমপন্থিদের শাস্তি দিতে এবং ইউনাইটেড স্টেটস কমিশন অন ইন্টারন্যাশনাল রিলিজিয়াস ফ্রিডম-এর সুপারিশ মেনে নিতে বলেছে।