ভারত পেলো কোয়ার্টার ফাইনালের টিকিট

    0
    233

    আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,০৬মার্চঃ ম্যাচের আবেদন নষ্ট হয়েছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজের ব্যাটিংয়ের সময়ই। তারপরও স্বল্প রানের পুঁজিতে ভারতকে ভালোই ভুগিয়েছে ক্যারিবিয়ানরা। এক পর্যায়ে ম্যাচে নাটকীয়তা তৈরির চেষ্টা করেছিল উইন্ডিজরা। কিন্তু মহেন্দ্র সিং ধোনি একাই হতাশ করলেন জেসন হোল্ডারের দলকে। তার ব্যাটিং দৃঢ়তায় পার্থে শুক্রবার ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ৪ উইকেটে হারিয়েছে ভারত।

    আর এই জয় ভারতকে পাইয়ে দিল কোয়ার্টার ফাইনালের টিকিট। ম্যাচটি হেরে যাওয়ায় ওয়েস্ট ইন্ডিজের শেষ আটে খেলাও তিমিরে ঢেকে গেল। কিছুটা সম্ভাবনা তারপরও থাকবে তাদের। শেষ ম্যাচে জিততে হবে আরব আমিরাতের বিরুদ্ধে। তবে সেখানে জিতলেও হাজির হবে রান-রেটের সমীকরণ। যার ফলে বাদ পড়তে পারে উইন্ডিজরা। তাই বলা চলে, ভারতের কাছে এই হারই গেইলদের বিশ্বকাপের বিদায় ঘণ্টা বাজিয়ে দিল।

    প্রথমে ব্যাট করে ৪৪.২ ওভারে ১৮২ রানে অলআউট হয় উইন্ডিজরা। জবাবে ধোনির দায়িত্বশীল ব্যাটিংয়ে ৩৯.১ ওভারে ৬ উইকেটে ১৮৫ রান করে ম্যাচ জিতে নেয় ভারত। ৬৫ বল হাতে রেখে পাওয়া জয়ে ভারতীয় পেসার শামি ম্যাচ সেরা হন।

    ১৮৩ রানের টার্গেটটা ভারতের শক্তিশালী ব্যাটিং লাইনের কাছে আহামরি কিছু ছিল না। কিন্তু ক্যারিবিয়ানদের ‘মরার আগে শেষ কামড়’র মতো লড়াইয়ে চাপে পড়ে গিয়েছিল ভারত। ২০ রানে দুই ওপেনার শেখর ধাওয়ান ও রোহিত শর্মাকে ফেরত পাঠান জেরমি টেলর। কোহলি-রাহানের ৪৩ রানের তৃতীয় উইকেট জুটি ভাঙেন আন্দ্রে রাসেল। কোহলি ৩৩ রান করে আউট হন।

    ১৪ রান করা রাহানেকে ফেরান রোচ। দলীয় ১০৫ রানে রায়না (২২) ডোয়াইন স্মিথের শিকার হলে পঞ্চম উইকেট হারায় ভারত। ম্যাচটা তখনই জমে উঠার আভাস দিয়েছিল। জাদেজাকে নিয়ে সেই চাপ কাটিয়ে উঠেন ধোনি। তারা ধীরগতিতে দলকে এগিয়ে নেন জয়ের পথে। তবে জাদেজাও থিতু হননি উইকেটে।

    ১৩ রান করে তিনি রাসেলের দ্বিতীয় শিকার হন। ৭ম উইকেটে অশ্বিনের সঙ্গে ধোনি ৫১ রানের জুটি গড়েন। অধিনায়ককে যোগ্য সঙ্গ দিয়েছেন অশ্বিন। স্যামুয়েলসের বলে চার মেরে জয় নিশ্চিত করেন ধোনি। ৫৬ বলে অমূল্য ৪৫ রান করে অপরাজিত ছিলেন ভারতীয় অধিনায়ক। অশ্বিনও মূল্যবান ১৬ রান করে অপরাজিত থাকেন। ওয়েস্ট ইন্ডিজের জেরমি টেলর, রাসেল ২টি করে উইকেট নেন।

    এর আগে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে রান তুলতে না পারার চাপে পঞ্চম ওভারে ডোয়াইন স্মিথ (৮) শামির বলে ক্যাচ দিলেন ধোনির হাতে। অষ্টম ওভারে মোহিত শর্মার বলে গেইলের তোলা ক্যাচ ফেলে দেন উমেষ যাদব। কিন্তু গেইল দাঁড়িয়ে থাকলেও রানের জন্য দৌড়ে রান আউট হয়ে যান স্যামুয়েলস। স্বভাববিরুদ্ধ অবস্থায় অনেকক্ষণ টিকে থাকলেও তিনবার জীবন পাওয়া গেইল ২১ রান করে শামির শিকার হন।

    রামদিন, সিমন্স, কার্টার ও আন্দ্রে রাসেল কেউই ব্যাট হাতে দলের বিপদে হাল ধরতে পারেননি। ৮৫ রানে ৭ উইকেট হারিয়ে বসে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। স্যামি-হোল্ডারের অষ্টম উইকেট জুটি ৩৯ রান যোগ করে। স্যামি ২৬ রান করে প্যাভিলিয়নে ফিরলে ভাঙে সেই জুটি। নবম উইকেটে জেরমি টেলরের সঙ্গেও ৫১ রানের জুটি গড়েন অধিনায়ক হোল্ডার। এবার টেলর (১১) উমেশ যাদবের বলে কট অ্যান্ড বোল্ড হন।এর মাঝে হোল্ডার তুলে নেন ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় হাফ সেঞ্চুরি। জাদেজার বলে কোহলির হাতে হোল্ডার ক্যাচ দিলে শেষ হয় ক্যারিবিয়ানদের ইনিংস। হোল্ডার ৬৪ বলে ৫৭ রান (৪ চার, ৩ ছয়)করেন।

    ভারতের শামি ৩টি, যাদব-জাদেজা ২টি করে উইকেট নেন। অশ্বিন, মোহিত শর্মা ১টি করে উইকেট পান।