মঙ্গলবার দেশে বড় ধরনের কিছু ঘটতে যাচ্ছে!

    1
    282

    আমার সিলেট  24 ডটকম,১৮নভেম্বরঃ আগামীকাল মঙ্গলবার দেশে বড় ধরনের কিছু ঘটতে যাচ্ছে !তাহলে কী ঘটবে দেশে ? আজ সোমবার বিকেলে সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোশাররফ হোসেন ভূইঞা সাংবাদিকদের বলেন, আগামীকাল ৩টি কাজ হবে। রাষ্ট্রপতি মন্ত্রীদের পদত্যগপত্র গ্রহণ করবেন, প্রজ্ঞাপন জারি হবে। পোর্টফোলিও বণ্টন হবে। আরেকটা বিষয়ও আগামীকাল ঘটবে! তবে আমি আপনাদের বলছি না। আগামীকালই দেখতে পাবেন বলে মন্তব্য করেন তিনি।আগামীকাল সরকারের পক্ষ থেকে আরেকটি ঘোষণা আসবে যা দেখার জন্য সাংবাদিকদের অপেক্ষায় থাকতে বললেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোশাররফ।আজ সর্বদলীয় মন্ত্রীসভার সদস্য হিসাবে ছয় মন্ত্রী ও দুই প্রতিমন্ত্রীর শপথ গ্রহণ এবং রাষ্ট্রপতির সঙ্গে বিরোধী দলীয় নেতা খালেদা জিয়ার সাক্ষাতের সময় ঠিক হওয়ার মধ্যেই আজ তিনি এ কথা বলেন।

    মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ৬ জন মন্ত্রী ও ২ জন প্রতিমন্ত্রীর শপথের পর প্রজ্ঞাপন জারি হয়ে গেছে। পুরনোদের মধ্যে যারা মন্ত্রী থাকবেন না আগামীকাল মঙ্গলবার তাদের নামের গেজেট প্রকাশ ও দপ্তর বণ্টন হবে। এ সময় নির্বাচন সামনে রেখে আরো বড় কোনো পরিবর্তন আসছে কি না- এমন প্রশ্নেও তিনি বলেন, কালকেই দেখতে পাবেন।সচিব বলেন, সর্বদলীয় মন্ত্রীসভায় কে থাকবেন আর কে থাবকবে না, সে বিষয়ে আগামীকাল প্রজ্ঞাপন জারি করা হবে। এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী সিদ্ধান্ত নিয়েই রেখেছেন। তবে শেষ মুহূর্কে কিছু পরিবর্তন আসতেই পারে। শেষ মুহূর্তে সিদ্ধান্ত পরিবর্তনের উদাহরণও সাংবাদিকদের সামনে তুলে ধরে তিনি বলেন, জিয়া উদ্দিন বাবলুর মন্ত্রী হিসাবে শপথ নেয়ার কথা ছিল। শপথ অনুষ্ঠানে তিনি উপস্থিতও ছিলেন। কিন্তু তিনি নির্বাচিত সাংসদ না হওয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ওই অনুষ্ঠানেই সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করেন এবং তাকে নিজের উপদেষ্টা করার সিদ্ধান্ত জানান।
    সচিব মোশাররফ জানান, নতুন মন্ত্রীদের শপথের পরও প্রধানমন্ত্রী তার কয়েকটি সিদ্ধান্ত আমাকে জানিয়েছেন। আমি এখন গণভবনে যাচ্ছি, আরো কিছু পরিবর্তন আসতে পারে। সব ঠিক করে কাল প্রজ্ঞাপন জারি করা হবে।মঙ্গলবার গেজেট জারির প্রস্তুতি শেষ করে রেখে রাতেই পাঁচ দিনের সফরে জাপানের পথে রওনা হওয়ার কথা রয়েছে মন্ত্রিপরিষদ সচিবের। প্রসঙ্গত সর্বদলীয় মন্ত্রিসভা গঠনে গত ১১ নভেম্বরই প্রধানমন্ত্রীর হাতে পদত্যাগপত্র দিয়ে রেখেছিলেন মন্ত্রিসভার সদস্যরা। বিরোধী দল বিএনপিও এ সরকারে আসবে বলে সরকারের পক্ষ থেকে আশা প্রকাশ করা হয়েছিল। তবে শেষ পর্যন্ত বিএনপির পক্ষ থেকে জানিয়ে দেয়া হয়, তারা এ তামাশার মন্ত্রিসভায় যোগ দিবে না।