মহিলা চা শ্রমিকদের বনদেবীর পূজা অনুষ্টিত

    0
    497

    আমারসিলেট24ডটকম,০১নভেম্বর,শাব্বির এলাহীঃ কমলগঞ্জ উপজেলার শমশেরনগর চা বাগানের বাঘিছড়া এলাকায় পাহাড়ি টিলার উপর বৃহদাকার বটগাছের নিচে যুগ যুগ ধরে চা শ্রমিকরা বনদেবীর পূজা করে আসছে। বনদেবীর পূজা অর্চনা করলে পাহাড়ি এলাকায় কাজের নিরাপত্তা পাওয়া যাবে। এই প্রত্যাশা নিয়ে শনিবার সমবেত চা শ্রমিকরা এই পূজা অর্চনা করে। শমশেরনগর চা বাগানের ফাঁড়ি বাঘিছড়া চা বাগানের পাহাড়ি টিলার উপরে পুরানো বটবৃক্ষের নিচে মাটির তৈরী বাঘের মূর্তির উপর দূর্গা মূর্তি স্থাপন করে মহিলা চা শ্রমিকরা পূজার আয়োজন করে। বট গাছের নিচের দেহটা লাল সালু কাপড়ে ঢেকে গাছের নিচের মাটির নতুন আবরন লাগিয়ে আনুষ্ঠানিক ভাবে মন্ত্র পড়ে বনদেবীর পূজা শুরু হয়। চা বাগানের প্রিয় দ্বীননাথ পন্ডিত মন্ত্র পড়ে পূজার কার্যক্রম শুরু করলে সারিবদ্ধ মহিলা চা শ্রমিকরা এসে ভক্তি শ্রদ্ধা করে বনদেবীকে। পালাক্রমে চা শ্রমিকরা নিজেদের ভাষায় গান গেয়ে পাহাড়ি এলাকায় কাজের সময় সাপ ও বণ্য প্রাণীর হাত থেকে নিজেদের নিরাপত্তা প্রার্থনা করে। এ সময়ে ঢুলের তালে তালে এক মহিলা শ্রমিক বাঘের রূপ ধারণ করে নাচতে থাকে। আর বাঘিনি রুপী এই মহিলা শ্রমিকের পায়ের নিচে সন্তানাদী নিয়ে মহিলা শ্রমিকরা ভক্তি করতে থাকে।

    মহিলা শ্রমিক শেফালী, লছমি রাজভর জানান, মা দূর্গা নানা রুপে নানাভাবে সর্বত্র বিরাজমান থাকেন। জলে যেমন জল দূর্গা পাহাড়ে বা  বনের মাঝে তিনি বনদূর্গা। বনে তিনি বাঘের পিটে বসে থাকেন। বনদূর্গা ছাড়া কেউ বনের নিরাপত্তা দিতে পারবে না। তাই যুগযুগ ধরে মহিলা চা শ্রমিকরা বনদূর্গা বা বনদেবীর প্রার্থনা করছে। বনদেবীর পুরোহিত দ্বীননাথ পন্ডিত জানান, সনাতনী হিন্দু ধর্মাবলম্বী চা শ্রমিকরা ¯্রষ্টার সৃষ্ট সব কিছুর কোন না কোনভাবে পূজা অর্চনা করে। মহিলা চা শ্রমিকরা মনে প্রাণে বিশ্বাস করে পাহাড়ি এলাকায় মা দূর্গা বনদেবী হিসাবে বিরাজমান। তাকে সন্তুষ্ট না করে পাহাড়ি এলাকায় সুষ্ঠুভাবে কোন কাজ করা সম্ভব নয়। সে জন্য সুদীর্ঘকাল থেকে মহিলা চা শ্রমিকরা বনদেবীর পূজা সম্পন্ন করে শান্তিতে পাহাড়ি এলাকায় কাজ করতে পারে।