মানুষের অতি লোভে অস্তিত্ব সঙ্কটে বাবুই পাখি!

0
169

নূরুজ্জামান ফারুকী,বিশেষ প্রতিনিধি: বাবুই পাখিরে ডাকি, বলিছে চড়াই, কুঁড়ে ঘরে থেকে কর শিল্পের বড়াই, আমি থাকি মহাসুখে অট্টালিকা পরে, তুমি কত কষ্ট পাও রোদ, বৃষ্টি, ঝড়ে। বাবুই হাসিয়া কহে, ‘সন্দেহ কি তাই? কষ্ট পাই, তবু থাকি নিজের বাসায়, পাকা হোক তবু ভাই পরের বাসা, নিজ হাতে গড়া মোর কাঁচা ঘর খাসা।’ গ্রামাঞ্চলে তাল গাছে বাবুই পাখি বাসা দেখলে রজনীকান্ত সেনের এ কবিতাটি মনে পড়বেই।
তবে পরিবেশ বিষয়ে অসচেতন ও মানুষের অতি লোভের কারণে আগের মতো এখন আর তেমন দেখা মেলে না বাসা বাঁধার নিপুণ কারিগর বাবুই পাখির। কারণ কালের বিবর্তনে বিলীন হতে বসেছে খড় দিয়ে বানানো তাল গাছে বাবুই পাখির বাসা। একই অবস্থা হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলায়।
যেখানে একসময় বাবুই পাখির কলতানে মুখরিত থাকত বিভিন্ন গ্রাম। তালগাছ নিধনের ফলে বাসা হারিয়ে বিলীনের পথে বাবুই পাখি।

জানা যায়, একটা সময় গ্রাম-বাংলার মাঠের ধারে, পুকুর পাড়ে কিংবা মাঠের পাশে দেখা মিলতো সারি সারি তালগাছের, সেখানে সাদা চঞ্চল নিষ্ঠাবান বুনন শিল্পী পাখির বাসা কারো নজর এড়াতো না, সেই তালগাছ আর বাবুই পাখির বাসা দু’টিই আজ হারিয়ে যাচ্ছে। হারিয়ে যেতে বসেছে প্রাকৃতিক শিল্পী পাখির ভোরবেলার কিচিরমিচির মধুর সুরে ডাকাডাকি আর উড়োউড়ি। শুধু কি গ্রামগঞ্জে, শহরতলীতেও অনেক তাল গাছে ঝুলে থাকতো হাওয়ায় দোদুল্যমান বাবুই পাখির বাসা।

একসাথে ১৫ থেকে ২০টির বেশি বাসা ঝুলে থাকতে দেখা যেতো তাল গাছগুলোতে। এমন প্রাকৃতিক দৃশ্য আজ নবীগঞ্জে অতীত। বর্তমানে না দেখা যায় তালগাছ, না দেখা যায় তালগাছে ঝুলন্ত বাবুইয়ের বাসা।

শুধু তালগাছ নয়, নারকেল, সুপারিসহ নানান দীর্ঘ বৃক্ষেই বাসা বাঁধে বাবুই। কিন্তু সময়ের সাথে সাথে এসব গাছ কমে যাওয়ায় আবাসন নিয়ে চরম সঙ্কট পড়েছে এই পাখি। যার ফলে চরম অস্তিত্ব সঙ্কটের মধ্যে পড়েছে বাবুই পাখি। ঝুঁকি জেনেও অনেকটা বাধ্য হয়েই যেন অনিরাপদ জায়গায় ঝোঁপঝাড়ে আবাস গড়ে তুলছে কিছু পাখি।

বয়োবৃদ্ধদের সাথে কথা বলে জানা যায়, বাবুই পাখিটি খুবই বুদ্ধিমান, দেখতে ছোট হলেও বুদ্ধিতে সব পাখিকে হার মানায় বাবুই পাখি। ঘাস ও লতা পাতা দিয়ে তালগাছের মাথায় সুন্দর করে বাসা তৈরি করতে পারে বলে এদের তাঁতি পাখি বলা হয়। নিপুণ কারিগর এই পাখি স্ত্রী-পুরুষ মিলে তাদের স্বপ্নের সংসার পাতে এবং তাতে ডিম পাড়ে বাচ্চা ফুটায়।

গ্রামের প্রবীণরা আরো বলেন, ছোটবেলায় পথের ধারে, বাড়ির আনাচে-কানাচে অনেক তাল গাছ দেখা যেত। কিন্তু আধুনিকতার ছোঁয়ায় মানুষ তালগাছ কেটে ফেলায় আজ আর তালগাছের মগডালে চির চেনা বাবুই পাখির বাসা নজরে পড়ে না।

উপজেলা কৃষি অফিসার জানান, অত্র অঞ্চলে পুরাতন তাল গাছগুলোকে না কাটার জন্য এবং নতুনভাবে তালগাছের চারা উৎপাদন করে পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করার জন্য। এছাড়া বজ্রপাত থেকে রক্ষা পেতে তালগাছের কোনো বিকল্প নেই। এর ফলে বিলুপ্ত হওয়া নিপুণ বাবুই পাখি অস্তিত্ব ও রক্ষা পাবে।