মাশরাফীকে আ’লীগের যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক নির্বাচিত করায় আনন্দে ভাসছে নড়াইল

0
831

সুজয় বকসী,নড়াইল প্রতিনিধি: বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সাবেক সফল অধিনায়ক ও নড়াইল-২ আসনের জনপ্রিয় সংসদ সদস্য যুব সমাজের আইকন মাশরাফী বিন মোর্ত্তজাকে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক নির্বাচিত করায় আনন্দে ভাসছে নড়াইল। রাজনীতিবিদ, জনপ্রতিনিধি সহ বিভিন্ন শ্রেনীপেশার মানুষের শুভেচ্ছা ও অভিনন্দনে ভাসছে মাশরাফী।
সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে জুড়ে শুধু মাশরাফীর শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন বার্তা। জেলা আওয়ামীলীগ সহ বিভিন্ন শ্রেণীপেশার মানুষ মনে করছেন মাশরাফী বিন মোর্ত্তজাকে দল থেকে মুল্যায়ন করা হয়েছে। মাশরাফীর হাত ধরেই অবহেলিত নড়াইলের উন্নয়নের অগ্রযাত্রায় যুক্ত হবে।
জানা গেছে, সোমবার (২৬ ডিসেম্বর) রাত ১০টার পরে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক হিসেবে মাশরাফী বিন মোর্ত্তজাকে ঘোষণা করা হয়।
খবরটি কিছু সময়ের মধ্যে জন্মস্থান নড়াইলের আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দসহ বিভিন্ন শ্রেণীপেশার মানুষের মাঝে ছড়িয়ে পড়ে। তখন থেকেই যেন অন্যরকম অনুভূতি ও আনন্দের বন্য বইতে শুরু করে। অনেককে মনে করছেন আওয়ামীলীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মাশরাফী বিন মোর্ত্তজাকে মুল্যায়ণ করেছেন। ক্রিকেটার মাশরাফীকে একটি যোগ্য স্থানে দিয়েছেন। মাশরাফী বিন মোর্ত্তজার হাত ধরে আওয়ামীলীগের উর্বরভূমি নড়াইল আরো এগিয়ে যাবে। অবহেলিত নড়াইলের উন্নয়নের গতি আরো বেড়ে যাবে।
এমন আনন্দে আওয়ামীলীগ ও অঙ্গ সংগঠনের পক্ষ থেকে মিষ্টি মুখ, আনন্দ র‌্যালি সহ বিভিন্ন কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছে।

এদিকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক জুড়ে চলছে অভিনন্দন ও শুভেচ্ছার বন্যা।
লোহাগড়া উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক জানান, মাশরাফী বিন মোর্ত্তজাকে যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক মনোনীত করায় মঙ্গলবার লোহাগড়া উপজেলা আওয়ামীলীগ কার্যালয়ে মিষ্টি বিতরণ ও আনন্দ র‌্যালি বের করা হবে।
অভিনন্দন জানিয়ে ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্রলীগনেতা মোঃ বাতেন শেখ তাঁর ফেসবুকে লিখেছেন ‘আওয়ামীলীগের কমিটিতে চমক থাকবে সেটাই স্বাভাবিক। অভিনন্দন যুব সমাজের আইডল মাশরাফী ভাই।’
এছাড়াও আওয়ামীলীগের অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ, জনপ্রতিনিধি, ক্রীড়ানুরাগীসহ বিভিন্ন শ্রেণীপেশার মানুষ মাশরাফীকে অভিনন্দন জানিয়েছেন।
এ ব্যাপারে ক্রিকেটার ও সাংসদ মাশরাফী বিন মোর্ত্তজার প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে তিনি ফোন রিসিভ করেন। তবে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের ফোন আসায় তিনি দ্রুত ফোন কেটে দেন।