মৌলভীবাজারের মহলালে স্কুল কমিটি নিয়ে মামলাঃঅনিয়মের বিরুদ্ধে বিক্ষুব্ধ অভিভাবকরা

0
310

আলী হোসেন রাজন,মৌলভীবাজারঃ মৌলভীবাজার জেলার রাজনগর উপজেলার ৮নং মনসুর নগর ইউনিয়নের মহলাল উচ্চ বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি নিয়ে প্রধান শিক্ষক মো: খালিছুর রহমানের অনিয়মের বিরুদ্ধে ফুঁসে উঠেছে ছাত্র-ছাত্রীদের অভিভাবক ও স্থানীয় লোকজন।
এ বিষয়টি এখন গড়িয়েছে আদালত পর্যন্ত। বিদ্যালয়ের সিলেকশন কমিটির বিরুদ্ধে অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার প্রার্থনা করে মো: আলতাফুর রহমান বাদী হয়ে এই বিষয়ে সহকারী জজ আদালত রাজনগর মৌলভীবাজারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রিয়াংকা পালকে ১ নং বিবাদী করে ১৩ জনের বিরুদ্ধে দেওয়ানী কার্যবিধি আইনের ৩৯নং আদেশের ১নং রুলের বিধান মতে ১৪৯/২২ নাম্বারে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলাটি আমলে নিয়ে সহকারী জজ তানজিনা নাফিজ ৫ থেকে ১৩ নং বিবাদীগনকে পাঁচ দিনের মধ্যে কারন দর্শানোর জন্য নির্দেশ দেন।
মামলা ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, মহলাল উচ্চ বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটি নিয়ে এলাকার স্থানীয় লোকজন এবং ছাত্র-ছাত্রীদের অভিভাবকের সাথে আলোচনা না করে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো: খালিছুর রহমান অনিয়ম ও পেশি শক্তি ব্যবহার করে নিজের ইচ্ছায় বারবার সিলেকশনের মাধ্যমে পকেট কমিটি গঠন করেন।
এ নিয়ে অভিভাবকদের মাঝে উত্তেজনা সৃষ্টি হলে এব্যাপারে তাঁরা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রিয়াকা পালের কাছে গত ৯ নভেম্বর কমিটি পুন:গঠনের দাবী জানিয়ে একটি স্মারকলিপি প্রদান করেন।
স্মারকলিপিতে উল্লেখ করা হয়, মহলাল উচ্চ বিদ্যালয়ের ৯০ শতাংশ ছাত্র-ছাত্রী ১১টি গ্রামের, এ স্কুলটি প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে স্বার্থলোভী অর্থ আত্বস্বাথকারী প্রধান শিক্ষক মো: খালিছুর রহমান বারবার ১১টি গ্রামের অভিভাবকদের মতামত উপেক্ষা করে অনিয়ম করে সিলেকশনের মাধ্যমে পরিচালনা পরিষদের কমিটি গঠন করেন। তাই তাদের দাবি, নির্বাচন দিয়ে বিধি মোতাবেক বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটি পুন:গঠন করা হোক। কিন্তু তাতেও কোন লাভ হয়নি, তাই পরবর্তীতে তাঁরা আদালতে অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার প্রার্থনা করে একটি মামলা করেন। কিন্তু সেটি উপেক্ষা করে, রাজনগর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা রোববার (১৩ নভেম্বর) সকালে ঐ কমিটির সভাপতি হিসেবে হুমায়ুন কবিরকে নির্বাচিত করেন।
এ সময় অভিভাবক ও স্থানীয় লোকজন সেখানে গিয়ে কমিটি করতে বাধা দিলে,পুলিশ দিয়ে তাঁদেরকে সেখান থেকে সরিয়ে দেয়া হয়।
এ বিষয়ে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোহাম্মদ ইউনুস বলেন, “১৩ নভেম্বর স্কুল কমিটির সভাপতি নির্বাচন করার সময় ছিলো ২টায়, তার একটু আগে ছাত্র-ছাত্রীদের অভিভাবকরা এসে আদালতের একটি কপি দিয়েছেন, তারা একটি মামলা করেছেন। আদালতের প্রতি সম্মান রেখে আমাদের ২টার মিটিং ৩ টায় নিয়ে যাই। তবে আদালতের কোন আদেশ আমাদের হাতে না আসায় সমর্থনে ও প্রস্তাবের মাধ্যমে আর কোন প্রার্থী না থাকায় হুমায়ুন করিরকে কমিটির সভাপতি নির্বাচন করা হয়। তিনি বলেন আদালতের কোন আদেশ আসলে সেটা আমলে নেয়া হবে, তবে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে বোর্ড।”
এদিকে স্মারকলিপি প্রদানের বিষয়টি নিশ্চিত করে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রিয়াংকা পাল জানান, “স্কুল কমিটি সংক্রান্ত বিষয়ের অভিযোগ তদন্ত করেছেন উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোহাম্মদ ইউনুস। নিয়ম অনুযায়ী কমিটি গঠন করা হবে। তবে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো: খালিছুর রহমান বলেন, তার বিরুদ্ধে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর একটি অভিযোগ দেয়া হয়েছে বলে তিনি শুনেছেন, কিন্তু এ ব্যাপারে অফিসিয়াল কোন কাগজ তিনি পাননি।”
এ বিষয়ে ৮নং মনসুর নগর ইউনিয়ন এর চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক মিলন বক্স বলেন, “মহলাল উচ্চ বিদ্যালয়ে কমিটি হবে সেটাতো আমি নিজেই যানি না। শিক্ষা অফিসার বলেছেন কোন প্রার্থী নেই, ভাল ভাবে জানালে এখানে প্রার্থীর অভাব হতনা। তবে আমি বলবো এই কমিটি একটি অবৈধ কমিটি। স্কুলের কমিটি নিয়ে মামলা হয়েছে এটা আমার ইউনিয়নের জন্য লজ্জাজনক বিষয়। আমি আশা করবো মামলা মকদ্দমার বিষয়টি সমাধান করে কর্তৃপক্ষ নির্বাচনের মাধ্যমে একটি সুন্দর কমিটি করবেন।”