যাজক-সন্ন্যাসীরা ও পর্নো দেখেন বললেন রোমান ক্যাথলিকদের পোপ ফ্রান্সিস

0
259

আমার সিলেট ডেস্কঃ গত বুধবার ভ্যাটিকান সিটিতে এক বৈঠকে পাদ্রী ও সেমিনারিয়ানদের কাছ থেকে বিস্ত‍ৃত প্রশ্নের উত্তর দিয়েছেন খৃষ্টানদের বৃহৎ সম্প্রদায় রোমান ক্যাথলিকদের পোপ ফ্রান্সিস (৮৬)। তিনি বিজ্ঞান ও বিশ্বাসের উপর ভর করে ব্যক্তিগত ত্রুটিগুলোর সাথে লড়াই করে সৎভাবে বাঁচার চেষ্টার উপর জোর দেন।
’খৃষ্টান হওয়ার আনন্দ ভাগ করে নিতে ডিজিটাল ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের উত্তম ব্যবহার কীভাবে সম্ভব?’ এ প্রশ্নের জবাবে পোপ বলেন-পর্নো (অশ্লীল যৌন চিত্রণ) হচ্ছে পাপের বোঝা। অনলাইনে ক্রমাগত খবর দেখলে ও গান শুনলে নিজের কাজের ওপর থেকে মন অন্যদিকে চলে যায় যা কখনোই উচিত নয়।
ডিজিটাল পর্নোগ্রাফি দোযখে যাওয়ার দরজার মতোই। এটা এমন এক পাপ,যা অনেক মানুষই করে থাকেন; সাধারণ অনেক মানুষ, অনেক নারী, এমনকি-অনেক পাদ্রী (যাজক) ও সন্ন্যাসীও (নান)! এটা দেখা দরকার বলে আপনারা মনে করলে, মনে করিয়ে দেবো-এ কাজ অনৈতিক। এটা মোটেই পূণ্যের কাজ নয়। এ অভ্যাস মানুষের হৃদয়কে দুর্বল করে দেয়। আর একজন যাজকের হৃদয় দুর্বল হয়ে পড়লে, সেখান দিয়েই শয়তান ঢোকে। পরিশুদ্ধ হৃদয়ে কখনো পর্নোগ্রাফি বা অশ্লীলতা জায়গা করে নিতে পারে না। আমি কেবল অপরাধমূলক পর্নোগ্রাফি সম্পর্কে কথা বলছি না; যেমন- যেগুলোতে শিশুদের অপব্যবহার করা হয়, বরং আমি সেসব পর্নোগ্রাফির কথাও বলছি – যেগুলোকে স্বাভাবিক বলে ধরা হয়। এগুলোর নানা অপশন ব্যবহার করা উচিত। তবে এসব মাধ্যমে বেশী সময় নষ্ট করা উচিত নয়। তাই, নিজের সেল ফোন থেকে পর্নোগ্রাফিক সামগ্রী যতো দ্রুত সম্ভব-মুছে ফেলুন। আমি কখনো মোবাইল ফোন ব্যবহার করি না।
পবিত্র হৃদয় হলো-যা প্রতিদিন যিশুকে গ্রহণ করে; পর্নোগ্রাফিকে নয়। মোবাইল ফোন থেকে পর্নোগ্রাফি ডিলিট করে দেয়া উচিৎ। তাহলে প্রলোভনের ফাঁদে পড়তে হবে না।
উল্লেখ্য, জুন মাসেও পোপ ’পুরুষ ও নারী মর্যাদার উপর স্থায়ী আক্রমণ’, ’জনস্বাস্থ্যের জন্যে হুমকি’ ইত্যাদি বলে ডিজিটাল পর্নোগ্রাফির নিন্দা করেন। সূত্র: আল-জাজিরা ও ডয়চে ভেলে।