রাজনীতিতে নতুন মেরুকরনের চেষটা ফ্রান্সেঃবিএনপির

    0
    250

    আমারসিলেট 24ডটকম,১১অক্টোবর :স্বাভাবিক ভাবেই বিএনপির কাছে ইউরোপের মধ্যে লন্ডনের পরে প্যারিসের অবস্হান।সে হিসাবে ফ্রান্সে বিএনপির কমিঠি গঠনে এখন আর দেরী করতে রাজি নয় কেন্দ্রীয় কমিটি। সম্প্রতী ইউকে বিএনপির সাবেক আহবায়ক এম এ মালেক দুবার প্যারিস সফর ও শেষ পর্যন্ত বিএনপির নব নির্বাচিত আন্তর্জাতিক সম্পাদক মাহিদুর রহমানের প্যারিসে আগমন।অনেকের ধারনা মাহিদুর রহমান যেহেতু কেন্দ্রীয় নেতা সেহেতু কেন্দ্র থেকে ইউরোপ বিএনপির সকল দায়ীত্ব তাহার উপরই নির্ভর করছে।অন্যদিকে, এমন এক সময় বিএনপির কমিঠি গঠিত হচ্ছে যখন দেশে নির্বাচন নিয়ে দুইবড় দলের অবস্হানর দুই দিকে।সব মিলিয়ে এ সময় কমিঠি গঠন অত্যন্ত চ্যালেন্জের বলেও বিএনপির অনেকে মনে করেন।।মাঠ পর্যায়ে কর্মীদের জোর দাবী ও কেন্দ্র থেকে চাপের ফলে দীর্ঘদিন পর ফ্রান্স বিএনপিতে ঐক্যের আমেঝ আসাতে চুড়ান্ত কমিঠি এখন প্রায় দ্বারপ্রান্তে। সকল ভেদাভেদ কোন্দল ভূলে ফ্রান্স বিএনপি ঐক্যবদ্ব হওয়ার পথে বলে বিএ্ন পি নেতাদের ধারনা।

    দীর্ঘ দিনের অপেক্ষায় থাকা ফ্রান্সে বিএনপির কমিঠি এখনই হতে পারে বলে তারা মনে করছে  । ফ্রান্সে বিএনপির বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃত্বের সাথে আলাপ আলোচনার করেই চুড়ান্ত কমিঠি গঠন করতে যাচ্ছে বলে তারা জানায় ।  গুরুত্ব পূর্ণ সব বলয়ের সাথে আলোচনা করে সবাইকে নিয়ে গঠিত হচ্ছে নতুন কমিটি ।বিভিন্ন সুত্রে জানা গেছে  কেন্দ্রের হাতে যে কজন নেতার নাম আছে যার যে কোন একজন এর হাতে ফ্রান্স বিএনপির দায়ীত্ব আসতে পারে তারা হলেন সৈয়দ সাইফুর রহমান,আহসানুল হক বুলু,এম এ তাহের,সিরাজুল ইসলাম মিয়া ও সাহেদ আলী।সাধারন সম্পাদক হিসাবে অনেকেরই নাম এখন তৃনমুল কর্মীদের মুখে।তবে শেষ পর্যন্ত কে সাধারন সম্পাদক হবেন তা কেন্দ্রের সিদ্ধান্তের উপর নির্ভর করছে।এ পর্যন্ত যাদের নাম শোনা যাচ্ছে তারা হলেন হাজী হাবীব,সিরাজুর রহমান,শাহজামাল প্রমুখ।

    সাংগঠনিক সম্পাদক পদে যে কয়েকজনের নাম শোনা যাচ্ছে তাদের মাঝে  ফ্রান্স বিএনপির সাবেক কার্যনির্বাহী কমিঠির মেম্বার ও বিগত দিনে সাবেক ছাত্রদল নেতৃবৃন্দের ব্যানারে  বিএনপির বিভিন্ন কর্মসুচীর মাধ্যমে ফ্রান্সে বেশ সরব ছিলেন জোনেদ আহমদ,দলের গুরুত্ব পুর্ন এ পদে দায়িত্ব পেতে বসে নেই  আজিজুর রহমান সহ অনেকে।সহ সভাপতি,সহ সাধারন সম্পাদক সহ অন্যান্য গুরুত্বপুর্ন পদে লবিং করছেন এরকম আরো দশ জনের উপর নেতা রয়েছেন যারা দলের উচ্চ পর্যায়ে সমর্থন আদায়ে বেশ ব্যাস্ত সময় কাঠাচ্ছেন।মাঠ পর্যায়ে কর্মীদের কেউ কেউ অধিকতর হতাশ হলে ও বেশীর ভাগ কর্মী নতুন কমিঠির আগমনকে স্বাগত জানাতে উৎফুল্ল।আলোচনা সমালোচনার ফাকে ফাকে কেউ কেউ প্রকাশ করছেন মনের অভিব্যাক্তি এমন নেতা চাই যে কর্মীদের সুখে দুখে ফ্রান্সে অবস্হান করবে,কেউ বা আবার বলছেন কমিঠি শেষ পর্যন্ত হবেনা।

    তবে শেষ পর্যন্ত কমিঠি হবে কি হবেনা তা অনেকটা নির্ভর করছে ফ্রান্সে দীর্ঘদিন থেকে বিএনপির ঘরোয়া কোন্দল মিটমাটের উপর। প্যারিসে মৌলভিবাজার প্রবাসী কল্যানের আমন্ত্রনে এক মত বিনিময় সভায় মাহিদুর রহমান পরিষ্কার জানিয়ে দিলেন সবার ঐক্য না হলে কমিঠি কোনভাবেই হবেনা,এবং অবশ্যই ২৪ অক্টোবরের আগে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।ঐক্যের ডাকে ফ্রান্স বিএনপির নেতৃত্বে থাকা একাংশের সৈয়দ সাইফুর ও অন্য অংশের আহসানুল হক বুলু এবং সাবেক ছাত্রদল নেতৃবৃন্দ বসলেও এখনও দেখা মেলেনি সাবেক সভাপতি ডঃ মালেক সমর্তিথ একাংশ বিএনপির,তবে ডঃ মালকের উপর সংস্কার পন্থীর অভি্যোগ থাকাতে সম্প্রতি এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি তার লিখিত বক্তব্যে তা অস্বীকার করেন।সব কিছু মিলিয়ে তৃনমুল কর্মীদের বিশ্বাস বর্তমান রাজনীতির এ প্রেক্ষাপটে দলের উচ্চ পর্যায় থেকে তারুন্য নির্ভর,যোগ্য ও দলে দীর্ঘদিন থেকে শ্রম দিয়ে আসছেন এরকম নেতৃত্ব আসবে যারা ফ্রান্স বিএনপিতে নতুন  প্রানের সন্চার জোগাবে।শীঘ্রই ফ্রান্স বিএনপি নিয়ে এ প্রতিবেদনের ২য় পর্ব প্রকাশ হবে।